শনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজও বৃষ্টির আভাস বন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা

imagesমৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় আজ রোববারও দেশের অধিকাংশ স্থানে মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টি হওয়ার কথা জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। এদিকে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে ঝড়ো হাওয়ার শঙ্কায় সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্কতা দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।
গতকাল শনিবার ভোর ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ফেনীতে দেশের সর্বোচ্চ ১০৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড হয়েছে। এ সময় ঢাকায় ২৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। আবহাওয়া অধিদফতর বলেছে, পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন অন্ধ্র-উড়িষ্যা উপকূলে অবস্থিত লঘুচাপটি সামান্য উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে সরে ও ঘনীভূত হয়ে বর্তমানে উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উড়িষ্যা উপকূলে অবস্থান করছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগরে বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্য থাকায় উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা ও সমুদ্র বন্দরগুলোর ওপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। ‘চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলেছে অধিদফতর।
টানা বর্ষণে জলাবদ্ধতা, জনদুর্ভোগ :টানা বর্ষণে জলাবদ্ধতার কবলে পড়েছে রাজধানীবাসী। গত শুক্রবার রাত থেকে চলছে অঝোর বর্ষণ। কখনো ঝিরিঝিরি, কখনো টিপটিপ, কখনো বা ঝেঁপে। আষাঢ়-শ্রাবণ পেড়িয়ে আশ্বিনের ৫ তারিখেও গোমড়ামুখো আকাশের অবিরাম বর্ষণে তলিয়ে গেছে রাজধানীর অনেক রাস্তা। ব্যাহত হচ্ছে যানবাহন চলাচল। অনেক জায়গায় যাত্রীছাউনি না থাকায় বৃষ্টিতে ভিজতে হয়েছে বহু মানুষকে। কাকভেজা হয়েই অফিসে পৌঁছেছেন কেউ কেউ।
আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, গতকাল রাত থেকে আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত ঢাকায় ৩৪ মিলিমিটার এবং সকাল ছয়টা থেকে ৯টা পর্যন্ত রাজধানী ঢাকায় ১৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত ধারণ করা হয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে থেমে থেমে বৃষ্টিপাত হবে। টানা বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা কম। দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে ময়মনসিংহে ১৩৪ মিলিমিটার।
আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, মধ্য ও তৎসংলগ্ন অন্ধ্র-ওড়িশা উপকূলে অবস্থিত লঘুচাপটি উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন ওড়িশা উপকূলে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগরে বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্য বিরাজ করছে। এতে ঢাকা, রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝোড়া হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। একই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।
গতকাল থেকে কখনো মুষলধারে আবার কখনো বা থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। এই বৃষ্টিতেই ডুবে গেছে নগরের অধিকাংশ নিচু এলাকা। টানা বর্ষণে ঢাকার বেশ কিছু এলাকা হাঁটুপানিতে তলিয়ে যায়। বৃষ্টিতে রাজধানীর চাঁনখারপুল, নিউমার্কেট, ধানমন্ডি, গ্রিন রোড, পান্থপথ, বসুন্ধরা মার্কেটের পেছনের রাস্তা, মোহাম্মদপুর, খিলগাঁও, আরামবাগ, মালিবাগ, মৌচাক, মিরপুর, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, কল্যাণপুর, পলবী, ভাষানটেক, বাড্ডা, ভাটারা, রামপুরা, পূর্ব রামপুরা, ফার্মগেট, তেজগাঁও, যাত্রাবাড়ী, কদমতলী, পুরনো ঢাকাসহ রাজধানীর অনেক এলাকার বিভিন্ন সড়ক ও গলিতে পানি জমেছে।
গতকাল রাজধানীর গাবতলী, কল্যাণপুর, ফার্মগেট এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, অফিসগামী অনেক মানুষ ছাতা মাথায় বাসের জন্য অপেক্ষা করছেন। তবে অপেক্ষমাণ যাত্রীরা গাড়িতে ওঠার সুযোগ না পেলেও রাস্তায় গাড়ির অভাব নেই। কারওয়ান বাজার-ফার্মগেট এই এলাকায় সৃষ্টি হয় যানজট।
সকাল ৭টার দিকে নিউমার্কেট থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার উদ্দেশে যাত্রা করেন কাজী সাজ্জাদুল হক। কিন্তু বৃষ্টিপাত ও যানজটের কারণে সকাল সাড়ে ৯টায় গন্তব্য স্থলে পৌঁছান। কাজী সাজ্জাদুল হক বলেন, বৃষ্টির কারণে রাস্তায় ভয়াবহ যানজটের কবলে পড়েন। টানা বর্ষণের কারণে প্রায় সব ভর্তি পরীক্ষার্থী ও অভিভাবক দুর্ভোগে পড়েন।
রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে পানির কারণে যান চলাচল ব্যাহত হতে দেখা গেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েন অফিসগামী মানুষ। গাড়ি না পেয়ে বৃষ্টিতে ভিজে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে অনেক যাত্রীকে। রাজধানীর অফিসগুলোতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি অন্যদিনের তুলনায় কিছুটা কম। ফুটপাতের অনেক দোকান খোলা হয়নি। রাজধানীর বিভিন্ন কাঁচাবাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে গিয়েও অনেকে পড়েন বিপাকে। কাদা-জলের মধ্যেই চলে কষ্টের কেনাকাটা।