বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জোট-মহাজোট নয়, ১০০ আসনই লক্ষ্য জামায়াতের

Untitled-332বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী এককভাবে ক্ষমতায় যেতে না পারলেও ক্ষমতার পালাবদলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। এখনও ক্ষমতা দখল ও ক্ষমতা রক্ষার রাজনীতিতে আওয়ামী লীগ-বিএনপির দ্বিদলীয় বৃত্তের মধ্যেই ঘুরপাক খেয়ে ধরাশায়ী দলটি। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য ক্ষমতার ভারসাম্য রাখতে বিএনপির কাছ থেকে ১০০ আসনে নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি পেলেই আটঘাট বেঁধে সরকার পতন আন্দোলনে নামতে চায় দলটি। তবে বিএনপির কাছ থেকে সাড়া না পেলে এবং আওয়ামী লীগ যদি তাদের ১০০ আসনে প্রার্থী দিতে আশ্বস্ত করে, তাহলে সরকার পতন আন্দোলনের পরিবর্তে যে কোনো সময় মধ্যবর্তী নির্বাচনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে তারা আওয়ামী লীগ সরকারকে বৈধতা দিতে রাজি বলে জোট-মহাজোট সূত্রে জানা গেছে। রাজনীতিতে শেষ বলে কোনো কথা নেই। প্রেম এবং যুদ্ধে নৈতিকতার বালাই নেইÑ এমন বিখ্যাত সংলাপের সঙ্গে জামায়াতের পুরনো পরিচয় থাকলেও তারা বরাবরই এই আবেদনকে এড়িয়ে গেছে। জামায়াত নেতারা মনে করেন, রাজনৈতিক সততা না থাকলে মানুষ এমন নীতিবর্জিত চিন্তা করতে পারে। তবে রাজনৈতিক মিত্রের কাছে নীতি, আদর্শ, আবেদন, অঙ্গীকার গুরুত্ব না পেলে সময়ের প্রয়োজনে প্রতিপক্ষের সঙ্গে সমঝোতাকেও অসঙ্গত মনে করে না দলটি। জামায়াত নেতারা মনে করেন, বিএনপি সময়ে নীরব, অসময়ে সরব। ক্ষমতার প্রয়োজনে বিএনপি জামায়াতকে কাছে টানছে। প্রয়োজন ফুরিয়ে গেলে আবার উচ্ছিষ্টের মতো ছুড়ে ফেলে দেয়। নিকট অতীতে এরকম বহু নজির আছে। ১৯৯১ সাল থেকেই বিএনপি জামায়াতের ওপর ভর করে ক্ষমতায় এসেছে। তেমন কোনো প্রতিদান তারা পায়নি। ক্ষমতায় গিয়ে বিএনপির আচরণ ছিল অবন্ধুসুলভ। তাই এবার জামায়াত নিঃশর্ত বা নিঃস্বার্থভাবে বিএনপির জন্য লড়তে নারাজ। জোটসূত্র জানায়, ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে যেতে জামায়াত বিএনপির কাছে ১০০টি নির্বাচনী আসন দাবি করেছে। তবে ৭৫ আসনের কমে তারা কোনোভাবেই রাজি নয়। আসন ভাগাভাগির এ প্রস্তাব তারা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে দেয়। আবার দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সম্প্রতি তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করতে লন্ডন গেলে তাঁকেও বিষয়টি নিয়ে মধ্যস্থতার দায়িত্ব দেয় জামায়াত। কিন্তু রিজভীর মধ্যস্থতা হালে পানি পায়নি। বিএনপি মনে করে, জামায়াতকে ৩০টি আসন দিলেই তাদের মেনে নেওয়া উচিত। তাই বিএনপির মূল্যায়নে নাখোশ জামায়াত। এজন্য জামায়াত বিকল্প ফ্ল্যাটফর্ম খুঁজছে বলে জানা যায়। সূত্র জানায়, বেগম খালেদা জিয়া জামায়াতকে আশ্বস্ত করলেই তারা সরকার পতনের দায়িত্ব নেবে। ঢাকাকে সারাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। আর এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সব কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক প্রস্তুতি রয়েছে জামায়াতের। তারা মনে করে, আর কালবিলম্ব না করে সময় এসেছে সিদ্ধান্ত গ্রহণের। আর দল হিসেবে জামায়াত তাকিয়ে আছে সবুজ সঙ্কেতের অপেক্ষায়। কিন্তু বিএনপির কার্যকলাপে তারা হতাশ। তাই তাদের সম্পর্কে বরফ জমাট বেঁধেছে।
জোটসূত্র জানায়, জামায়াত এখন সরকারের প্রতিও ঝুঁকেছে। ধীরে ধীরে কমছে সরকার ও জামায়াতের দূরত্ব। সরকার ইদানীং বিএনপিকে বিষোদ্গার করলেও জামায়াতের ব্যাপারে রয়েছে নীরব। মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায় জামায়াত-সরকারের সমঝোতার মাধ্যমে মধ্যবর্তী নির্বাচনে জামায়াতকে পাশে পাওয়ার ইঙ্গিত বলে মনে করছেন জোট সংশ্লিষ্টরা। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, সরকার আরেকটি বিএনপিবিহীন নির্বাচনের দিকে এগুচ্ছে। জামায়াত সরকারের কাছে ১০০ আসন আবদার করছে। সরকারের প্রতিশ্রুতি পেলেই ১৯৮৬ সালে এরশাদের অধীনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের মতোই আওয়ামী লীগের অধীনে মধ্যবর্তী নির্বাচনে যাবে দলটি। এজন্য জামায়াত ও সরকারের উচ্চপর্যায়ে দেনদরবার চলছে অবিরত। গত রোববার বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ‘মধ্যবর্তী নির্বাচন দেওয়ার আগে আওয়ামী লীগ জয়লাভের আশায় মেকানিজম চালাচ্ছে। যার প্রেক্ষিতে বিএনপি নেতাদের একের পর একজনকে জেলে ঢোকানোর পাঁয়তারা এবং ২০ দলীয় জোট ভাঙার চেষ্টা করছে। একইসঙ্গে জনগণকে বিভ্রান্ত করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায় এ সরকার।’ তিনি আওয়ামী লীগ সম্পর্কে বলেন, ‘ওয়ান-ইলেভেনের ষড়যন্ত্র এখনও অব্যাহত রয়েছে, শুধু কৌশল পরিবর্তন করেছে তারা। বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে মাইনাস করার পথে হাঁটছে এ সরকার। একদিকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে, অন্যদিকে মামলায় জেল দিয়ে নির্বাচনে অযোগ্য প্রমাণ করতে যাচ্ছে।’ তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল-আলম লেনিন ভোরের পাতাকে বলেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে সমঝোতা কেন করব। আমি এসব বিষয়ে জানি না।’ বিষয়টি স্বীকার করতে চান না আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা অধ্যাপক সুলতানা শফি। তিনি ভোরের পাতাকে বলেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে নির্বাচনের প্রয়োজন নেই। আওয়ামী লীগের ব্যাপক জনসমর্থন আছে। তাই এখনও সরকারে আছে।’ জামায়াতের কেন্দ্রীয় প্রচার সহকারী আলী আহমদ নির্বাচনী আসন নিয়ে দরকষাকষির বিষয়টি স্বীকার করতে চাননি। তিনি ভোরের পাতাকে বলেন, ‘রাজনীতি আদর্শের জন্যÑ ক্ষমতার জন্য নয়। আন্দোলনে আছি, আন্দোলনে থাকব।’ তবে আসন নিয়ে দরকষাকষির বিষয়ে খুব গোপনীয়তা রক্ষা করছেন জামায়াতসহ উভয় জোটভুক্ত নেতারা। এ কারণে গণমাধ্যম তো দূরের কথা, দলের অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতাকেও তারা এড়িয়ে চলেন। বিষয়টি জানলেও অনেকে মুখ খুলতে চান না।