সোমবার, ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জাতিসংঘে বাংলাদেশের গৌরবের ৪০ বছর

UN BD

১৯৭১ সালে ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে বাংলাদেশ। স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের ধ্বংসস্তূপের ওপর দাঁড়িয়ে দেশের পুনর্গঠনে সর্বশক্তি দিয়ে ব্যাপক উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। কিন্তু সদ্য স্বাধীন দেশকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তুলে ধরা ছাড়া উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। এজন্য জাতিসংঘের সদস্যপদ অর্জনের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। দেশের বাইরে তখনও বাংলাদেশের দূতাবাসগুলো ভালোভাবে চালু হয়নি। সেই পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘে বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি লাভের জন্য বঙ্গবন্ধু বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র ও তৎকালীন বিশ্বনেতাদের সমর্থন আদায়ের পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের উন্নয়নের পাশাপাশি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দক্ষ কূটনৈতিক তৎপরতায় ১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভ করে। স্বাধীনতার মাত্র আড়াই বছরে একটি স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ হিসেবে জাতিসংঘের ১৩৬তম সদস্য হিসেবে বিশ্বমানচিত্রে আত্মপ্রকাশ করে বাংলাদেশ। সে বিষয়টি ছিল আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের জন্য একটি বিরল অর্জন। বাংলাদেশ জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভের ৪০ বছর পূর্তি উদযাপন করছে এ বছর। জাতিসংঘে ৪০ বছরের পথপরিক্রমায় আমাদের অনেক অর্জন রয়েছে। বিশেষ করে যখনই আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনায় আসে, তখনি জাতিসংঘের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ ও সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হয়।
যুদ্ধ, সংঘাত মানবীয় বিপর্যয় ডেকে আনে। আন্তর্জাতিক শান্তি এবং নিরাপত্তার প্রতি প্রতিশ্রুতিতে বাংলাদেশ অটল। জাতিসংঘের নিরস্ত্রীকরণ এজেন্ডায় বাংলাদেশের অবস্থান সব সময়ই সামনের সারিতে। পারমাণবিক শক্তির ব্যবহার, সমুদ্র, আকাশ এবং সাইবার নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আরও নিবিড়ভাবে কাজ করতে আগ্রহী বাংলাদেশ। এজন্য যুদ্ধ, সংঘাত ও সন্ত্রাস রোধে জাতিসংঘের সামর্থ্য বৃদ্ধি করতে বাংলাদেশ সব সদস্য রাষ্ট্রের সঙ্গে একযোগে কাজ করবে। বিশ্বশান্তির জন্য ১৯৯৭ সালে গৃহীত জাতিসংঘের প্রস্তাবের প্রতি দৃঢ় সমর্থন দেয় তৎকালীন সরকার। এ আদর্শের পথ ধরেই বাংলাদেশের নারী-পুরুষ বিশ্বের সংঘাত-সঙ্কুল এলাকায় শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করে যাচ্ছে নিরলস।
সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদবিরোধী বৈশ্বিক সংগ্রামে স্বপ্রণোদিত হয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ। যার ফলে ২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় এসে জঙ্গিবাদের লাগাম টেনে ধরতে সক্ষম হয়। এছাড়া ভাষাবৈচিত্র্য রক্ষা ও মাতৃভাষার মর্যাদাকে সমুন্নত রাখতে বিশ্ববাসী আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করছে।
উন্নয়নের জন্য ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’Ñ এ সত্য প্রতিষ্ঠায় সরকার কাজ করে যাচ্ছে। জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ অগ্রাধিকারগুলো বাস্তবায়নের পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তন, আন্তর্জাতিক অভিবাসন, দ্রুত নগরায়ন, অসংক্রামক রোগ এবং সমুদ্রসম্পদের টেকসই ব্যবহারসহ বিভিন্ন বিষয়কে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার। উন্নয়নের জন্য অর্থবহ অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি বিশ্ববাণিজ্যের সুফল উন্নয়নশীল দেশগুলো যেন ভোগ করতে পারে, সে জন্য জাতিসংঘকে আরও কার্যকর ভূমিকা নিতে হবে।
জাতিসংঘের ৬৯তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে আজ রোববার ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ রাত ৯টা ৩০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তিনি নিউইয়র্কের উদ্দেশে যাত্রা করবেন। আগামীকাল সোমবার সকাল ৮টা ২৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কের জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছাবেন।
আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ২০১৫ সালের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা, মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল অর্জন, আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা, নারীর ক্ষমতায়ন, আবহাওয়ার পরিবর্তন ও গণতন্ত্রসহ কয়েকটি বিষয়ে বাংলা ভাষায় বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী। বিশেষ করে এ ভাষণে বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার বিস্তারিত বিষয় বিশ্বসংস্থায় তুলে ধরবেন তিনি। সপ্তাহব্যাপী সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, নেপাল, চিলি ও বেলারুশের প্রধানমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। বাংলাদেশের সদস্যপদ লাভের ৪০ বছর পূর্তি উৎসবে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন ও গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি দেশের প্রধানকে আমন্ত্রণ জানানোর ব্যাপারে কথা বলবেন প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, সমাজকল্যাণমন্ত্রী মহসীন আলী, বন ও পরিবেশমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম ও প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এছাড়া আরও আছেন কয়েকজন বিশিষ্ট আইনজীবী, উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দ ও কয়েকজন সিনিয়র সাংবাদিকের মধ্যে সৌভাগ্যক্রমে আমিও প্রধানমন্ত্রীর এবারের সফরসঙ্গী হিসেবে থাকছি।
মুক্তিযুদ্ধে জাতিসংঘ বাংলাদেশের জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছিল। এখনও জাতিসংঘ আমাদের পাশে আছে। আর ১০ বছর পরই জাতিসংঘের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করবে বাংলাদেশ। এ সময়ের মধ্যে জাতিসংঘের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ককে আরও গভীর ও অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে চায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার। সেই সূত্রে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্য অর্জনে জাতিসংঘকে অতীতের মতোই আমাদের পাশে প্রত্যাশা করি। আমাদের মানুষ যোগ্যতাবলেই উন্নয়ন ও নিরাপত্তার দরকষাকষিতে এগিয়ে আছে। বাংলাদেশ ও জাতিসংঘের অংশীদারিত্বের ভিত্তিতেই পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোর অগ্রগতি সাধিত হয়েছে জাতিসংঘে বাংলাদেশের গৌরবের ৪০ বছরের সম্পর্কের ভিত্তিতে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে এবারের সফরেও আমরা প্রত্যাশা করি জাতিসংঘের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ আমাদের পারস্পরিক সম্পর্ক যেন আরও বন্ধুত্বপূর্ণ হয়।

এ জাতীয় আরও খবর