সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মামলার নথি গায়েব

3_150415মানবতাবিরোধী অপরাধে চার অভিযুক্তের মামলার নথি কেন্দ্রীয় তথ্য ভাণ্ডার থেকে খোয়া গেছে। ফলে জামায়াতের সাবেক আমীর মতিউর রহমান নিজামী, আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, পলাতক আশরাফুজ্জামান ও চৌধুরী মাইনউদ্দিনের মামলার ফাইল পাওয়া যাচ্ছে না। নথিগুলোতে বিভিন্ন আলামত বিশেষ করে সাক্ষীদের সাক্ষ্য, তথ্য-উপাত্ত, ঘটনা প্রবাহ, কেস স্টাডি, পত্রিকার কাটিং, অভিযুক্তদের স্বীকারোক্তি সংরক্ষিত ছিল। ট্রাইব্যুনালের প্রধান প্রসিকিউটরের কার্যালয়ের কেন্দ্রীয় কম্পিউটার (কেন্দ্রীয় তথ্য ভাণ্ডার) থেকে এসব মামলার নথি মুছে ফেলায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় প্রসিকিউশন বিভাগ থেকে থানায় কোনো জিডিও হয়নি। বিষয়টি স্পর্শকাতর হওয়ায় তা চেপে যাওয়ার চেষ্টা করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

কম্পিউটার থেকে মামলার নথি মুছে ফেলার বিষয়টি অস্বীকার করেননি প্রসিকিউটর প্রশাসন জিয়াদ আল মালুম। কেন্দ্রীয় কম্পিউটার থেকে নথি মুছে ফেলা প্রসঙ্গে জিয়াদ আল মালুম সরাসরি উত্তর না দিয়ে বলেন, ‘এর ব্যাকআপ আছে।’ তিনি যুগান্তরকে বলেন, আমরা সরকারকে আগেই বলেছি ফাইলগুলো সংরক্ষণে আর্কাইভ করা প্রয়োজন। কিন্তু সরকার এ বিষয়ে কোনো সহায়তা করেনি। আর্কাইভ করার জন্য তিনি চিঠিও দিয়েছিলেন। কে বা কারা নথিগুলো কম্পিউটার থেকে মুছে ফেলেছে, এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি কেন এসব প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এগুলো সিরিয়াস বিষয়। বেশি কথা না বলাই ভালো।

কেন্দ্রীয় তথ্য ভাণ্ডার থেকে নিজামী ও সাঈদীর মামলার নথি খোয়া যাওয়া প্রসঙ্গে প্রসিকিউটর রিজিয়া সুলতানা চমন যুগান্তরকে নিশ্চিত করেন, যেসব কম্পিউটারে নথিগুলো সংরক্ষণ করার কথা সেই কম্পিউটারগুলোতে মামলার নথিগুলো পাওয়া যাচ্ছে না। কেউ হয়তো এগুলো মুছে ফেলতে পারে। আবার কম্পিউটারে ভাইরাস সমস্যাও হয়ে থাকতে পারে।

জানা গেছে, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের চিফ প্রসিকিউটরের কার্যালয়ের কেন্দ্রীয় তথ্য ভাণ্ডারে মামলার নথি সংরক্ষণের জন্য ৩ থেকে ৪টি কম্পিউটার রয়েছে। তথ্য ভাণ্ডারে মামলার নথিগুলো পাওয়া না যাওয়ায় সম্প্রতি প্রসিকিউটররা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেন। এ সময় একজন নারী প্রসিকিউটর অপর প্রসিকিউটরকে বলেন, ‘এবার নিজামীর মামলার নথিও নেই।’ একের পর এক নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি হওয়া সত্ত্বেও প্রসিকিউশন কার্যালয়ে তথ্য সংরক্ষণে আর্কাইভ তৈরি না হওয়ায় সংশ্লিষ্টরা উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, আর্কাইভ না থাকায় এ ধরনের সমস্যা হচ্ছে। আর্কাইভ তৈরি করা নিয়ে কেউ মাথা ঘামাচ্ছে না। উল্টো তথ্য খোয়া যাওয়ার বিষয়গুলো আড়ালের চেষ্টা চলছে। সংশ্লিষ্টদের মতে, মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার বাধাগ্রস্ত করতে একটি বিশেষ চক্র এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত। আর ট্রাইব্যুনালের ভেতরের এক বা একাধিক ব্যক্তি চক্রকে সহায়তা দিচ্ছে। এর আগে ট্রাইব্যুনাল থেকে একাধিক মামলার রায়সংক্রান্ত তথ্য আগাম ফাঁস হয়েছে। রায় আগাম ফাঁসের ঘটনা প্রমাণ করে এর সঙ্গে ট্রাইব্যুনালের ভেতরের লোক জড়িত।

প্রসঙ্গত, বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মামলার রায়ের আগের দিন রায়ের অংশবিশেষ ফাঁস করা হয়। তার আগে রাজাকার আবুল কালাম আজাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকারের পরিবারকে বিভিন্ন ধরনের তথ্য আগাম জানিয়ে দেয়া হতো। এসব ঘটনার পরও কোনো কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

জানা গেছে, আগামীতে মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। এ অবস্থায় তার মামলার পুরো ফাইল প্রসিকিউশনের কেন্দ্রীয় কম্পিউটার ল্যাব থেকে খোয়া যাওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। কম্পিউটার থেকে ডিলেট করা (মুছে ফেলা) ফাইলগুলোতে মামলার সব ধরনের নথি সংরক্ষণ করা ছিল। সদ্য সাজাপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মামলার ফাইলেও স্পর্শকাতর অনেক তথ্য ছিল। শুধু নিজামী বা সাঈদীর মামলার ক্ষেত্রেই নয়, আগামীতে অন্য অভিযুক্তদের বিচারের ক্ষেত্রে এসব তথ্য খুবই জরুরি ছিল। তথ্যগুলো দিয়ে শুধু গ্রেফতারকৃতদের বিচার নয়, এসব ফাইল থেকে নতুনদের গ্রেফতারের বিষয়ে সহায়তা পাওয়া যেত বলে জানা গেছে।

নিজামীর মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলী যুগান্তরকে জানান, আদালতে কিছু নথি পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, সংরক্ষণে থাকা তথ্যের মধ্যে ফরমাল চার্জ, সাক্ষ্য বেং ওপেনিং স্টেটমেন্টগুলো গুরুত্বপূর্ণ। তিনিও দাবি করে বলেন, আগের প্রসিকিউটর সাইফুল ইসলাম কেন্দ্রীয় তথ্য ভাণ্ডার বুঝিয়ে দিয়ে যাননি।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চিফ প্রসিকিউটর কার্যালয়ের প্রসিকিউটর ঋষিকেশ সাহা যুগান্তরকে বলেছেন, মাত্র ১৪ দিনের ছুটি নিয়ে সাইফুল ইসলাম বিদেশে গেলেও তিনি কোনো কিছু বুঝিয়ে দিয়ে যাননি। মামলার নথি সংগ্রহের দায়িত্বে ছিলেন সাইফুল ইসলাম।

ট্রাইব্যুনালের একটি সূত্র জানায়, কম্পিউটার ল্যাবের দায়িত্বে ছিলেন প্রসিকিউটর উমর খৈয়াম মোঃ সাইফুল ইসলাম। বিনা অনুমতিতে বিদেশে ছুটি কাটানোয় শৃংখলা ভঙ্গের দায়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের এই প্রসিকিউটরকে গত আগস্টে অব্যাহতি দেয়া হয়ে। তিনি ৩ এপ্রিল ১৪ দিনের ছুটিতে যুক্তরাষ্ট্র যান। তিনি ট্রাইব্যুনালকে না জানিয়ে ৩ মাসের বেশি সময় যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করেন। ছুটির নির্ধারিত সময় পার হওয়ার পর রহস্যজনক কারণে তিনি আইন মন্ত্রণালয় বা প্রসিকিউশন অফিসেও যোগাযোগ করেননি। ২৩ জুলাই প্রসিকিউটর সাইফুল ইসলামের বিষয়টি চিঠির মাধ্যমে আইন মন্ত্রণালয়কে অবহিত করে ট্রাইব্যুনাল। ওই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতেই আইন মন্ত্রণালয় সাইফুল ইসলামের নিয়োগ বাতিল করে। সাইফুল ইসলামের মেয়াদেই নিজামী, সাঈদী এবং অন্য দুজনের মামলার ফাইলগুলো মুছে ফেলা হয়েছে কিনা তা নিয়েও সন্দেহ করছে অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে কম্পিউটার ল্যাবের দায়িত্বে নিয়োজিত প্রসিকিউটর জিয়াদ আল মালুম যুগান্তরকে বলেন, ট্রাইবুনালের কম্পিউটারগুলোও পুরাতন। নতুন কম্পিউটার প্রয়োজন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক প্রসিকিউটর বলেন, প্রসিকিউশনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মাসুদ রানা সম্প্রতি একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার রেফারেন্স দিয়ে সব হার্ডডিস্ক কপি করার কথা বলেছেন। আর তখন থেকেই নিজামী, সাঈদী, আশরাফুজ্জামান ও মাইনউদ্দিনের মামলার ফাইল পাওয়া যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, মামলাসংক্রান্ত অনেক গুরুত্বপূর্ণ নথি ছিল কম্পিউটারে। বিশেষ করে অভিযুক্তদের মধ্যে যারা গ্রেফতার হয়েছেন তাদের বিচারের ক্ষেত্রে প্রয়োজন তো আছেই- পাশাপাশি যারা গ্রেফতার হননি তাদের আইনের আওতায় আনার পর বিচার নিশ্চিতের ক্ষেত্রে আলামত হিসেবে এসব নথি খুবই সহায়ক ছিল।

এ প্রসঙ্গে মাসুদ রানা যুগান্তরকে বলেন, তিনি কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক চালাতে পারেন না। কাজেই ফাইল কপি করার প্রশ্নই আসে না।

এ জাতীয় আরও খবর

চকবাজারে পলিথিন কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ষসেরা ক্রিকেটার মহারাজ

ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

শোক দিবসে সংঘর্ষ, ছাত্রলীগ কর্মীদের পেটাল পুলিশ

দল যখন ডাকবে তখনই সাড়া দেবো : সোহেল তাজ

কোনো সভ্য রাষ্ট্র খুনিদের প্রশ্রয় দেবে না: আইনমন্ত্রী

ভাসমানসহ সব শিশু টিকা পাবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় হবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার: প্রতিমন্ত্রী

মানুষ যেন স্বল্পসময়ে ন্যায়বিচার পায় : প্রধান বিচারপতি

আশপাশের সব ভবনই ঝুঁকিপূর্ণ : ফায়ার সার্ভিস

বাংলাদেশ সংকটে নেই, বিশ্ব সংকটে আছে : নৌ-প্রতিমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণে সংগ্রাম করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা: কাদের