বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইলে মারমুখী অবস্থানে আওয়ামীলীগের দু,গ্রুপ

rajnitiমারমুখী অবস্থানে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে আওয়ামীলীগের দু,গ্রুপ।একই স্থানে,একই সময়ে দু,গ্রুপ সভা আহবান করলেও প্রশাসনের হস্তক্ষেপে উপজেলা পরিষদে কেউই সভা করতে পারেনি।তবে তীব্র উত্তেজনা আর ভয়াবহ সংঘর্ষের আশংকার মধ্য দিয়ে দিন কেটেছে সরাইলবাসীর।যে কোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকাও করা হচ্ছে উপজেলা সদরে।জানা যায়,গত ২০১২ সালের ২১ অক্টোবর সন্ধায় উপজেলা সদরে সরাইল উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী একেএম ইকবাল আজাদ দলীয় প্রতিপক্ষের হাতে নির্মমভাবে খুন হয়।

এ ঘটনায় হত্যা মামলায় আসামী করা হয় উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আবদুল হালিম,সাধারন সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান রফিক ঠাকুর,যুগ্ম-সম্পাদক সদর ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার,সাংগঠনিক সম্পাদক মাহফুজ আলী সহ তাদের অনুসারিরা।এরপর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগ সভা করে সরাইল উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি বিলুপ্ত করেন।কিন্তু অদ্যাবধি এ কমিটি সক্রিয় কিংবা বহাল সংক্রান্ত কোনো চিঠি দেয়া হয়নি।গত বৃহস্পতিবার সকালে বিলুপ্ত কমিটির সাধারন সম্পাদক রফিক ঠাকুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে শনিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভা করার অনুমতির জন্য আবেদন করেন।এ খবর পেয়ে প্রতিপক্ষের হাতে নিহত ইকবাল আজাদ অনুসারিরা বিলুপ্ত কমিটি সভা ডাকায় ক্ষুব্দ হয়ে উঠেন।আগামী ২১ অক্টোবর ইকবাল আজাদের মৃত্যুবার্ষিকীর প্রস্তুতি সভা করার জন্য বৃহস্পতিবার সন্ধায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে শনিবার সকাল ১০ টায় সভা করার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন ইকবাল আজাদ স্মৃতি পরিষদের সদস্য সচিব,উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক এড.জয়নাল উদ্দিন।এ ঘটনায় সরাইল উপজেলা জুড়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।মুখোমুখি অবস্থানে চলে আসে প্রতিপক্ষের হাতে নিহত আওয়ামীলীগ নেতা ইকবাল আজাদ সমর্থকরা এবং ইকবাল আজাদ হত্যা মামলার আসামী উপজেলা আওয়ামীলীগের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি আবদুল হালিম ও সাধারন সম্পাদক রফিক ঠাকুর অনুসারিরা।
শনিবার সকাল থেকে সরাইল সদরে সাজ-সাজ রব পড়ে যায়।দু,গ্রুপের সমর্থকরা সংঘবদ্ধ হয়ে প্রতিপক্ষকে মোকাবেলার প্রস্তুতি নিয়ে সরাইল সদরে আসতে থাকে।থমথমে পরিবেশ বিরাজ করতে থাকে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা সদরে।এ অবস্থায় সংঘর্ষ এড়াতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এমরান হোসেন উভয় পক্ষকে উপজেলা পরিষদে সভা না করার নির্দেশ দেন।সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী আরশাদ বিপুল সংখ্যক পুলিশ সহ উপজেলা পরিষদ এলাকায় সকাল থেকেই অবস্থান নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখেন।উপজেলা পরিষদে সভা করতে না পেরে উপজেলা আওয়ামীলীগের বিলুপ্ত কমিটি ইউনিয়ন পরিষদে সভা করেছে বলে জানায় বিলুপ্ত কমিটির সাধারন সম্পাদক রফিক ঠাকুর।
তিনি জানান,আবদুল হালিমের সভাপতিত্বে এ সভায় কমিটির বেশীর ভাগ সদস্য উপস্থিত ছিলেন।তিনি আরো বলেন, আমাদের কমিটি জেলা আওয়ামীলীগ বিলুপ্ত করেছে কিংবা বহাল করেছে এমন কোনো চিঠিই আমাদের দেয়া হয়নি।তবে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক(চট্রগ্রাম বিভাগ) বীর বাহাদুর এর সাথে আমরা দেখা করলে তিনি আমাদের বলেছেন,আমাদের কমিটি বহাল আছে।আমরা যেনো এই কমিটির নিজেই কাজ করি সেজন্য তিনি আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন।তার নির্দেশেই আমরা সংগঠনকে গতিশীল করতে শনিবার সকালে উপজেলা কমিটির সভা করেছি।
অপরদিকে ইকবাল আজাদ হত্যা মামলার আসামীদের যে কোনো মুল্যে প্রতিহত করার ঘোষনা দিয়ে বিলুপ্ত কমিটির সভার পাল্টা কর্মসূচী ঘোষনাকারী ইকবাল আজাদ সমর্থক শতশত আওয়ামীলীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগ,শ্রমিকলীগ সমর্থক সকাল থেকেই ইকবাল হত্যার বিচার দাবী করে উপজেলা পরিষদ গেইট এলাকায় জমায়েত হয়।এসময় সরাইল সদরে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।পরে পুলিশ তাদের বুঝিয়ে সরিয়ে দেয়।এসময় ইকবাল সমর্থকরা ঈসা খা মার্কেট এলাকায় সমাবেশ করেন।সভায় বক্তব্য রাখেন ইকবাল আজাদ স্মৃতি পরিষদ সদস্য সচিব,উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক এড.জয়নাল উদ্দিন,উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান শের আলম,যুবলীগ নেতা এড.আশরাফ উদ্দিন মন্তু,মাহফুজ মিয়া,পাহলভী,উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি বেলায়েত হোসেন মিল্লাত।এড.জয়নাল উদ্দিন বলেন,সরাইল উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি জেলা আওয়ামীলীগ বিলুপ্ত করেছে।সরাইলে ইকবাল আজাদ খুনের আসামীদের কোনো সমাবেশ আমরা করতে দেবোনা।সরাইলের আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা তাদের বর্জন করেছে।তারা কোনো সভা করতে পারেনি।সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী আরশাদ বলেন,উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশের কঠোর অবস্থানের কারণে আপাতত সংঘর্ষ এড়ানো গেছে।তবে পরিস্থিতি ছিলো থমথমে।আওয়ামীলীগের দু,গ্রুপই মারমুখী অবস্থানে ছিলো।