বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আমি জিকো, “সাদা পেলে” নই

বিশ্বকাপ না-জেতা ফুটবলারদের মধ্যে সর্বকালের অন্যতম সেরা তিনি। ‘সাদা পেলে’ নামে পরিচিত। ব্রাজিলের এই কিংবদন্তি ফুটবলার এখন ভারতে। এসেছেন নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি ফুটবল লিগ ইন্ডিয়ান সুপার লিগের দল এফসি গোয়ার কোচ হয়ে। সেখানেই পরশু গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ব্রাজিল ফুটবলের ভূত-ভবিষ্যৎ ও বর্তমান নিয়ে কথা বললেন জিকো

0ffc3dff89e25b71047140d90d28f53a-Untitled-6জিকো বিশ্বকাপ-বিপর্যয়ের পর ব্রাজিল কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে?
জিকো: নতুনদের ক্ষেত্রে আমাদের নজর দেওয়া উচিত সৃষ্টিশীল খেলোয়াড়দের দিকে। আমরা শক্তপোক্ত গড়নের ও খেলাটা কৌশলগত দিকটা ভালো বোঝে এমন খেলোয়াড়দের দলে টেনেছি। অভাব ছিল সৃষ্টিশীলতার। ইউরোপভিত্তিক খেলোয়াড়দের অতিরিক্ত গুরুত্ব দেওয়াটাও ব্রাজিলের ভুল ছিল।
বিশ্বকাপ চলাকালে মিডিয়া বিশেষজ্ঞ হিসেবে ব্রাজিলের সমালোচনা আপনি কম করেননি। কিন্তু ৭-১-এ বিধ্বস্ত, এতটা কি ভেবেছিলেন?
জিকো: ভেবেছিলাম আমরা বড়জোর ৪ গোলে হারতে পারি! ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে শুরুটা বাজে হয়েছিল, খারাপ অবস্থা ছিল মেক্সিকোর সঙ্গে ম্যাচেও। ক্যামেরুনকে হারানো গেছে কিন্তু বিশ্বকাপে আফ্রিকার দুর্বলতম দলটির বিপক্ষে জয়টা যত সহজ হওয়া উচিত ছিল ততটা হয়নি। এরপর চিলিও তাদের বিদায় করে দিতে পারত। একমাত্র কলম্বিয়ার বিপক্ষেই ভালো খেলেছে কিন্তু এবার প্রতিপক্ষ ছিল দুর্বল। তাই যখনই দলটি শক্তিশালী দলের (জার্মানি ও হল্যান্ড) সঙ্গে খেলল, কী হয়েছে সেটা তো সবারই জানা।
তা ছাড়া নেইমারের চোটের পর ব্রাজিল দলটা কি বেশি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েনি?
জিকো: তারা তারকাদের মতো আচরণ করেছে, সেসব তারকার মতো যারা মাঠের চেয়ে টেলিভিশনেই নিজেদের দেখাতে ব্যস্ত থাকে। মনে হচ্ছিল দলটিতে ফুটবলারদের চেয়ে সেলিব্রিটির সংখ্যা বেশি। আমি ওই সব কান্নার কথা বোঝাচ্ছি।
ব্রাজিল কি ১৯৮২ ও ১৯৮৬ বিশ্বকাপের পরই তাদের ফুটবল স্বকীয়তা হারিয়ে ফেলেছে? ২০১৪ সালের দল সাজানো কি সেটারই ধারাবাহিকতা?
জিকো: আমরা স্বকীয়তা হারিয়েছি, কারণ আমরা ওই বিশ্বকাপগুলো জিততে পারিনি। কিন্তু যেটি আমার বোধগম্য নয় সেটা হলো ব্রাজিলকে কেন খেলার ধরন পাল্টাতে হলো? অন্য দলগুলো যেখানে বলছে তারা ব্রাজিলের মতো খেলতে চায়। স্পেন এটা বলেছে, জার্মানিও বলেছে। মানসম্মত খেলোয়াড় তৈরি করার জন্য ভালো কাঠামো দাঁড় করাতে হবে। এ ছাড়া অনেক ব্রাজিলিয়ানের কাছে ফুটবল এখন পেশা। তাই আনন্দের অভিব্যক্তিটা নেই বললেই চলে।
২০১২ সালে মানো মেনেজেসের বিদায়ের পর পরই কি বিদেশি কোচ নিলে ভালো করত না ব্রাজিল?
জিকো: না, আমি মনে করি দেশেই যোগ্যতাসম্পন্ন লোকের অভাব নেই। মরিসি রামালহো ও তিতে এই দুটি নামই সবার আগে আমার মনে হয়েছে।
লুইস ফেলিপে স্কলারির বরখাস্ত হওয়ার পরও তো তাঁরা সুযোগ পেলেন না?
জিকো: বড় একটা ভুল হয়ে গেছে। ব্রাজিলিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের সমস্যাটা হলো, এমন কিছু লোক এটা চালায় যারা শুধু একে অপরের দেখভালই করে।
ফ্ল্যামেঙ্গো ও জাপানের কাশিমা স্টেডিয়ামে আপনার মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। এভাবে অমর হয়ে থাকতে কেমন লাগে?
জিকো: (হাসি) আমি তাদের জন্য যা করেছি সেটারই স্বীকৃতি এটা। এই ক্লাবগুলোর ঐতিহাসিক কিছু জয়ের আমি অংশ ছিলাম, সেগুলোকেই চিরমূর্ত করে রাখার জন্য তারা এটা করেছে। মারাকানাতেও আমার মূর্তি আছে, ওখানেও তো আমি অনেক গোল করেছি। একটা পর্যায়ে এমনটাও হয়েছিল যে সবাই আমার সমালোচনা করে বলত, আমি কেন শুধু মারাকানাতেই ভালো খেলি।
‘সাদা পেলে’—এই নাম পেয়ে আপনি খুশি?
জিকো: আমি এটা মোটেই পছন্দ করি না। কখনোই করিনি। মানুষ যখন আমাকে অনেক উঁচুতে স্থান দেয় সেটা আমার ভালো লাগে, কিন্তু পেলে তো কিংবদন্তি। ফরাসি মিডিয়া এই ডাকনামটা দিয়েছে, আর অন্য সবাই লুফে নিয়েছে। এমনও হয়েছে পেলে যা করত, লোকজন সেটাই আমার কাছ থেকে আশা করত। এটা বুঝতে পেরেছি লোকজন পেলেকে দেখতে চাইত, কিন্তু আমি তো আমিই। জিকো জিকোই।
১৯৭০ সালের পর ১৯৮২ বিশ্বকাপের ব্রাজিল দলটাই কি সর্বকালের সেরা?
জিকো: এই বিচারটা আপনারা (মিডিয়া) করবেন। আমি শুধু এটুকুই বলতে পারি, আমি খেলেছি এমন জাতীয় দলগুলোর মধ্যে সেটিই ছিল সেরা। আমরা জিতিনি, কিন্তু বড় ছাপ ফেলতে পেরেছি।
সক্রেটিসকে কীভাবে মূল্যায়ন করবেন? আপনি যাঁদের সঙ্গে খেলেছেন, তাঁদের মধ্যে কি তিনিই সেরা?
জিকো: অন্যতম সেরা, এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। আমার সৌভাগ্য তার পাশে খেলতে পেরেছি। সক্রেটিস ফুটবলে অনেক দেরিতে এসেছিল, পেশাদার ফুটবলার হবে কিশোর বয়সে তার এমন ভাবনা ছিল না। সে ফুটবল খেলত, কারণ তার এটা ভালো লাগত। তাই ফুটবলের প্রতি তার দৃষ্টিভঙ্গিটা একটু অন্য রকম ছিল। আর ঠিক এ কারণেই সে ভাবুক ও দার্শনিক ছিল।