শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদেশি সহায়তার দেড় লাখ কোটি টাকা আটকা

file (1)বিপুল পরিমাণ প্রতিশ্রুত বিদেশি সহায়তা কাজে লাগছে না। বিদেশি সহায়তার পাইপলাইনে আটকে থাকা অর্থের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯৫৬ কোটি ডলার। বাংলাদেশী মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকা। সময়মতো প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে এর বড় একটা অংশ ছাড় হয়ে যেত। প্রকল্প বাস্তবায়নে মন্থরগতির কারণে দাতারা অর্থছাড় করতে পারছে না। এ অবস্থায় বাংলাদেশে কাজ করা বিভিন্ন দাতা দেশ ও সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে আজ বৈঠকে বসছে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি)। লোকাল কনসালটেটিভ গ্রুপের (এলসিজি) বৈঠকে বিদেশি সহায়তার অর্থছাড়ের উপায় বেরিয়ে আসবে বলে আশা প্রকাশ করছেন ইআরডি কর্মকর্তারা।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে মহাজোট সরকার গঠনের পর এটিই হবে প্রথম এলসিজি বৈঠক। এতে ১০টি বিষয় স্থান পাবে বলে জানিয়েছেন ইআরডির অতিরিক্ত সচিব মনোয়ার হোসেন। এর মধ্যে রয়েছে সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা, বিদেশি সব অনুদান ও ঋণের তথ্য পেতে দাতাদের সহযোগিতা এবং জয়েন্ট কোঅপারেশন স্ট্রাটেজি।

এ মুহূর্তে উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে এ বৈঠক খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন ইআরডি সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন। তিনি বলেন, কয়েকটি বিষয় নিয়ে উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে বৈঠক হবে। এর মধ্য দিয়ে দাতাদের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

রাজধানীর এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিতব্য বৈঠকে কো-চেয়ারের দায়িত্ব পালন করবেন ইআরডি সচিব ও ইউএনডিপির আবাসিক প্রধান। অতিথি থাকবেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা। বৈঠকে বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি), কাউন্সিলর ডেভেলপমেন্ট কোঅপারেশন ফর সাউথ এশিয়াসহ ৪৪টি সংস্থা ও দেশের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন।

এ বিষয়ে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক অতিরিক্ত সচিব ও বর্তমানে পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য আরাস্তু খান বলেন, উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে এলসিজি প্লানারি বৈঠকটি গুরুত্বপূর্ণ। এটি যত ঘন ঘন হবে ততই সুবিধা। এতে তাদের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি থাকে না। অর্থছাড় দ্রুত হয়। যে কোনো বিষয়ে সমস্যা থাকলে তা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা যায়। জানা যায়, চলমান জয়েন্ট কোঅপারেশন স্ট্রাটেজির মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে আগামী বছর। এ স্ট্রাটেজির ওপর ভিত্তি করে দাতারা বাংলাদেশে উন্নয়ন কাজ পরিচালনা করে আসছে। পরবর্তী সময় উন্নয়ন কার্যক্রম চালিয়ে নিতে একটি কৌশল ঠিক করা প্রয়োজন। এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে সভায়।

দাতাদের সঙ্গে বৈঠকে পাইপলাইনের অর্থছাড়ের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা করা উচিত বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা। তারা বলছেন, বছরের পর বছর উন্নয়ন প্রকল্পগুলো ঝুলে থাকায় দাতারা অর্থছাড় করতে পারছে না। এক পর্যায়ে তারা বাধ্য হয়ে প্রকল্পের পরিধি কমিয়ে বরাদ্দও কমিয়ে দেয়। ফলে ব্যাহত হয় উন্নয়ন কার্যক্রম। পাইপলাইনে আটকে থাকা অর্থের আকার বেড়ে যাওয়ায় সম্প্রতি অনুষ্ঠিত একনেক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। চুক্তিবদ্ধ বৈদেশিক সহায়তার সবচেয়ে বেশি অর্থ পাইপলাইনে রয়েছে বিশ্বব্যাংকের। দাতা সংস্থাটির প্রায় ৫০০ কোটি ডলার পাইপলাইনে রয়েছে। কাজে গতি না আসায় সম্প্রতি সংস্থাটি বেশ কয়েকটি প্রকল্পের পরিধি কমিয়েছে। এর বাইরে সমস্যাগ্রস্ত হিসেবে ১০টি প্রকল্প চিহ্নিত করে ইআরডিকে চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি। সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিতে না পারলে এসব প্রকল্পে অর্থায়ন বাতিল হতে পারে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের লিড ইকোনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন বলেন, কমিটমেন্ট হওয়ার পর ঢিলেঢালা ভাব দেখা যায়। ক্রেডিট ইফেক্টিভ করতে প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ, প্রকল্প অফিস তৈরি ও ভূমি অধিগ্রহণে সিদ্ধান্ত নিতে দেরি হচ্ছে। এছাড়া বাস্তবায়ন পর্যায়ে টেন্ডার প্রক্রিয়া ও মূল্যায়ন পর্যায়ে অনেক সময় জটিলতা তৈরি হয়। এর ফলে পাইপলাইনে অর্থের পরিমাণ বাড়ে। বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের নির্বাহী পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, বাংলাদেশে বিদেশি সহায়তার আটকে থাকা অর্থ আশঙ্কাজনক পর্যায়ে রয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নে দীর্ঘদিনের স্থবিরতার কারণে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে বিদেশি সহায়তা ফেরত গিয়ে উন্নয়ন কার্যক্রম ব্যাহত হতে পারে। তাছাড়া প্রকল্পের মেয়াদ বাড়লে একদিকে ব্যয় বাড়ে, অন্যদিকে প্রকল্পের সুফল পেতেও বাড়তি সময়ের প্রয়োজন হয়।