সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘এ কেমন রায় হল’

file‘জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ মামলা করেছিলাম, ভেবেছিলাম স্বাধীনতার ৪৪ বছর পর হলেও ন্যায়বিচার পাবে বাংলার মানুষ। কিন্তু এ কেমন রায় হল। তারপরেও আমৃত্যু কারাদন্ড পেয়েছে এতেও গর্ববোধ করি। তবে পিরোজপুরের মুক্তিযোদ্ধা সমাজ, যেসব পরিবারের হত্যা, ধর্ষণ, লুট চালানো হয়েছিল তারা এতে খুশি হয়নি।’

মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়ার পর অগ্নিসংযোগ, ধর্ষণ এবং বিশাবালী হত্যা মামলার বাদী মুক্তিযোদ্ধা মাহাবুবুর রহমান তার প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলেন।

আজ বুধবার সকালে প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ সাঈদীকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ দেয়। বেঞ্চের অপর চার বিচারপতি হলেন বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী।

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। ট্রাইব্যুনালে সাঈদীর বিরুদ্ধে গঠিত ২০টি অভিযোগের মধ্যে আটটি প্রমাণিত হয়।

এদিকে সাঈদীকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়ার পর সব রকমের সহিংসতা ঠেকাতে জেলার সর্বত্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য বাড়তি পুলিশ নিয়োজিত রাখা হয়েছে।

এছাড়াও ঢাকা থেকে গতকাল রাতেই ৩ প্লাটুর বিজিবি সাঈদীর নিজ উপজেলা জিয়ানগরে অস্থায়ী ক্যাম্প করে জেলা সদর নাজিরপুর ও জিয়ানগরে সকাল থেকেই টহল দিতে দেখা যায়। পাশাপাশি র‌্যাবের ৩টি দলও বুধবার সকাল থেকে জেলা সদর সহ বিভিন্ন এলাকায় টহল দিচ্ছে।

সাঈদীর মামলার ৪ নং স্বাক্ষী সুলতান মাহামুদ বলেন, পূর্বের রায় বহাল থাকলে আমরা বেশি খুশি হতাম। অবশ্যই তার ফাঁসী হওয়া উচিৎত ছিল। তবে ক্ষতি যা হবার আমাদেরই হল। আমাদের জীবনের নিরাপত্তা নাই। আত্মীয় স্বজন ছেলে মেয়ের নিরাপত্তা নাই, ২৪ ঘণ্টা পুলিশ পাহারায় থাকছি। কাজ না করতে পেরে না খেয়ে মরতে বসেছি। আপনাদের মাধ্যমে রাষ্ট্রের কাছে বলতে চাই এই অবস্থা থেকে আমাদের মুক্তি দেওয়া হোক।

সাঈদীর মামলার আপিলের রায় এর আদেশ প্রসংঙ্গে পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক ও পিরোজপুর-১ আসনের এমপি একেএম আউয়াল বলেন, আদালতের রায়ের বিষয়ে কোন মন্তব্য করা উচিৎত নয়। তবে এ রায়ে সাধীনতার সপক্ষে সমর্থকদের প্রত্যাশা পূরণ হয়নি।  

এদিকে তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার সমির কুমার দাস বাচ্চু বলেন, সুপ্রিম কোটের সর্বোচ্চ রায়ের বিরুদ্ধে বলার কিছু নাই। তবে এ রায়ে আমরা খুশি নই।

দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে জিয়ানগর উপজেলা চেয়ারম্যান মাসুদ বীন সাঈদী বলেন, শতাব্দীর শেষ্ঠতম মিথ্যা চারের সপক্ষে এ রায় হল। আমার আব্বার ন্যায় বিচার পায়নি।