বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্র-ইউরোপে বাজার হারাচ্ছে বাংলাদেশ

1410888755.

 

চরম ভাবমূর্তি সংকট, প্রতিযোগীদের বাজার দখল, পশ্চিমাদের সঙ্গে রাজনৈতিক বিরোধের কারণে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে বাজার হারাতে বসেছে বাংলাদেশ। যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি পোশাক রপ্তানিতে তৃতীয় স্থান হারিয়ে চতুর্থ স্থানে নেমে গেছে বাংলাদেশ। দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অফিস অব টেক্সটাইলস অ্যান্ড অ্যাপারেলসের (ওটেক্সা) প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য দেয়া হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) বাজারে প্রতিবেশি ভারত, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তানসহ ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া ২০ শতাংশ হারে রপ্তানি বাড়াচ্ছে। অথচ বাংলাদেশের রপ্তানি প্রবৃদ্ধি কমতে কমতে তলানিতে ঠেকেছে। এই পরিস্থিতিতে পশ্চিমা বাজারে তৈরি পোশাকের বাজার হারানোর আশঙ্কা করছেন রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত গার্মেন্ট সেক্টরের উদ্যোক্তারা। 

যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে বাংলাদেশের একচেটিয়া বাজার দখলে দীর্ঘদিন ধরেই চেষ্টা করে আসছিল প্রধান প্রতিযোগী দেশ ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, শ্রীলঙ্কা। বিভিন্ন সময়ে পরিকল্পিতভাবে অস্থিরতা সৃষ্টি করে কৌশলে বাংলাদেশের বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলো কিনে নিয়েছেন ভারতীয়রা। তাদের এই অপকৌশলে বন্ধ হয়ে গেছে আন্তর্জাতিকভাবে স্বনামধন্য অনেক গার্মেন্ট কারখানা। প্রতিযোগীরা বাংলাদেশের বাজার দখলের মোক্ষম সুযোগ পেয়ে যায় তাজরিনের পর পরই রানা প্লাজা ধসের ঘটনায়। এসব ঘটনায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নানা অপপ্রচারের কারণে চরম ইমেজ সংকটে পড়ে দেশের গার্মেন্ট শিল্প। 
এই সংকট আরও বাড়িয়ে তোলে নির্বাচন ও ড. ইউনূস ইস্যুতে পশ্চিমাদের সঙ্গে রাজনৈতিক বিরোধ। এই বিরোধের কারণে ‘কর্মপরিবেশের’ ধুয়ো তুলে বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা স্থগিত করে যুক্তরাষ্ট্র। ইউরোপীয় ইউনিয়নও জিএসপি (পণ্যের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার) বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয়। যুক্তরাষ্ট্র একদিকে বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক আমদানি নিরুৎসাহিত করে। অন্যদিকে আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে পোশাক আমদানি উৎসাহিত করে। রাজনৈতিক বিরোধে বাংলাদেশ যে যুক্তরাষ্ট্রে বাজার হারাচ্ছে তা ফুটে উঠেছে বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আনিসুর রহমান সিনহার কথায়। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এর মধ্যেই বাংলাদেশের বিকল্প বাজার খুঁজতে শুরু করেছে। গত ছয় মাস ধরে আমাদের পোশাক রপ্তানি কমছে। আমাদের ব্যবসা অন্য দেশগুলোতে চলে যাচ্ছে। আমাদের অন্যতম প্রধান বাজার আমেরিকা এখন আফ্রিকার দেশগুলোকে বিকল্প বাংলাদেশ বানানোর চেষ্টা করছে। এই চেষ্টার অংশ হিসেবে কেনিয়া, ইথিওপিয়া ও উগান্ডাসহ অফ্রিকার দেশগুলোকে যুক্তরাষ্ট্র সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছে। ইউরোপও আমেরিকার সঙ্গে যোগ দিয়েছে। গ্যাস-বিদ্যুৎ, রাস্তা-ঘাটসহ আমরা যদি আমাদের ‘অন্যান্য’ সমস্যাগুলো দ্রুত সমাধান না করি, তাহলে আমাদের তৈরি পোশাক খাতের অবস্থা পাটের মতো হবে। 
ওটেক্সা’র রিপোর্টে বলা হয়েছে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন মেয়াদে যুক্তরাষ্ট্র পোশাক আমদানি করেছে ৩ হাজার ৭৫৩ কোটি ডলারের। আমদানিতে দেশটির গড় প্রবৃদ্ধি ৩ শতাংশ। ওটেক্সার হিসাবে, যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ পোশাক রপ্তানিতে এখন চতুর্থ অবস্থানে। গত জুন পর্যন্ত এই অবস্থান ছিল তৃতীয়। জুন শেষে তৃতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে প্রতিযোগী দেশ ইন্দোনেশিয়া। যুক্তরাষ্ট্রে দেশটির মার্কেট শেয়ার ৬ দশমিক ৬ শতাংশ। আর বাংলাদেশের মার্কেট শেয়ার কমে দাঁড়িয়েছে সাড়ে ৬ শতাংশে। অর্থাৎ, যুক্তরাষ্ট্রে একচেটিয়া বাজার ক্রমেই হারাচ্ছে বাংলাদেশ। 
রিপোর্টে দেখা গেছে, ছয় মাসে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৪৫ কোটি ৫০ লাখ ডলার। আর ইন্দোনেশিয়ার রপ্তানি ছিল ২৪৮ কোটি ৩০ লাখ ডলার। ভিয়েতনামের একই সময়ে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে সাড়ে ১৫ শতাংশ। দেশটির রপ্তানির পরিমাণ এখন দাঁড়িয়েছে ৪২৮ কোটি ৬০ লাখ ডলার। একই সময়ে চীনের রপ্তানি দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২৩৯ কোটি ৭০ লাখ ডলার। আর এই ছয় মাসে ভারত যুক্তরাষ্ট্রে ভারত পোশাক রপ্তানি করেছে ১৮২ কোটি ৩০ লাখ ডলারের। ইইউ’র বাজারে শ্রীলঙ্কার পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৩৪ দশমিক ৬ শতাংশ এবং যুক্তরাষ্ট্রে বেড়েছে ১২ দশমিক ১ শতাংশ। 
যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নে বাজার হারানোর বিষয়ে সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন ছাপিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী সংবাদপত্র ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। এতে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের ব্যবসায়ীরা এখন বাংলাদেশের পরিবর্তে ভারত, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়াকে বেছে নিচ্ছেন। চার মাসেই বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৫০ মিলিয়ন ডলারের রফতানি অর্ডার চলে গেছে ভারতে। সংবাদে বলা হয়, রানা প্লাজা ধসে ১১৩৬ জন শ্রমিকের মৃত্যু, তাজরীন, স্মার্ট ফ্যাশনস, গরিব অ্যান্ড গরিব কারখানাতে আগুন লেগে শত শত শ্রমিকের মৃত্যুর খবর বিশ্বব্যাপী সমালোচনার ঝড় তোলে। এসব ঘটনায় বাংলাদেশের ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো ভোক্তাদের চাপে পড়ে। বাংলাদেশের এই বিপদের সুযোগ প্রতিযোগী দেশগুলো কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে। 
চরম ভাবমূর্তি সংকট : সোমবার এক মতবিনিময় সভায় বিজিএমইএ সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের বাজার নিয়ে আমাদের মাঝে একটি উদ্বেগ কাজ করছে। এ শিল্প সম্পূর্ণরূপে একটি ইমেজনির্ভর আন্তর্জাতিক শিল্প। স্থানীয় পর্যায়ে এ শিল্প যত ভালোই কাজ করুক, ক্রেতাদের কাছে শিল্প সম্পর্কে ভুল তথ্য গেলে এ শিল্প ধরে রাখা কোনভাবেই সম্ভব নয়। একক রাষ্ট্র হিসেবে তৈরি পোশাক রফতানি আয়ের ২৩ শতাংশ আসে যুক্তরাষ্ট্র থেকে। উদ্বেগের বিষয়, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক রফতানির বাজারে আমরা শেয়ার হারিয়েছি। আর বাংলাদেশকে টপকে ওপরে উঠে গেছে ইন্দোনেশিয়া।
ইউরোপীয় ইউনিয়নের কূটনীতিকরা বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের ম্রিয়মাণ ভাবমূর্তিকেই এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় সংকট হিসেবে দেখছেন। তারা বলেছেন, তাজরিন, রানা প্লাজার দুর্ঘটনার পর তোবা সংকটও গভীরভাবে প্রত্যক্ষ করেছে ক্রেতারা। এসব ঘটনা এদেশের পোশাক শিল্পের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণœ করেছে। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও), অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্স এবং বাংলাদেশ সরকারের যৌথ প্রচেষ্টা জাতীয় কর্মপরিকল্পনার সঠিক বাস্তবায়নই পারে এই ভাবমূর্তি সংকট দূর করতে। সম্প্রতি এক মতবিনিময় সভায় কানাডার হাইকমিশনার হিদার ক্রুডেন, নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত গার্বেন এসডি জং, ডিএফআইডির বাংলাদেশ প্রধান সারাহ কুক, আইএলও’র বাংলাদেশ প্রধান শ্রী নিবাশ বি রেড্ডি এ বিষয়টি তুলে ধরেন। 
প্রতিযোগীদের বাজার দখল : জানা গেছে, গত এক বছরে অর্ধশতাধিক বৃহৎ তৈরি পোশাক কারখানার মালিকানা বদল হয়েছে। এসবের মালিকানা চলে গেছে ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ, আমেরিকান ও কানাডিয়ান নাগরিকদের হাতে। তারা এদেশীয় এজেন্টদের মাধ্যমে অস্থিরতা সৃষ্টির মাধ্যমে এসব পোশাক কারখানা দখলে নিচ্ছেন। পরিকল্পিতভাবে অস্থিরতার মাধ্যমে বন্ধ থাকা আরো শতাধিক কারখানা ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ীরা কিনে নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।
গার্মেন্ট মালিকদের সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশের গার্মেন্ট সেক্টর দখলে নিতে রীতিমত আটঘাট বেঁধে মাঠে নেমেছেন ভারতীয় ব্যবসায়ীরা। নিজস্ব এজেন্টদের মাধ্যমে পরিকল্পিতভাবে শ্রমিক অসন্তোষ ছড়িয়ে দিয়ে তারা একে একে দখল করে নিচ্ছে বড় বড় গ্রুপের পোশাক কারখানাগুলো। কয়েক বছর ধরে সাভার, আশুলিয়া, জয়দেবপুর ও কাঁচপুর এলাকায় গার্মেন্ট কারখানাগুলোয় শ্রমিক অসন্তোষ ও নাশকতা আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে গেছে। নিয়মিত বেতন-ভাতা পরিশোধ করে এবং কাজের পরিবেশও বেশ ভালো, এমন সব কারখানা ভাঙচুরের শিকার হয়েছে। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, এসব এলাকার স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা, এনজিও কর্মী, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ চক্র এবং ক্ষেত্রবিশেষে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরাও এসব ভাঙচুরে ইন্ধন দিয়ে থাকেন। এসব ভাঙচুরের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট কারখানার জেনারেল ম্যানেজার, প্রোডাকশন ম্যানেজার, অ্যাকাউন্টস ম্যানেজার, মার্চেন্ডাইজারের মতো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সংশ্লিষ্টতারও প্রমাণ মিলেছে একাধিক তদন্তে। ক্ষতিগ্রস্ত মালিকরাও এসব অভিযোগ তুলেছেন। সাম্প্রতিক সময়ে এর সবচেয়ে উৎকৃষ্ট প্রমাণ স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের গার্মেন্ট কারখানাটি ভস্মীভূত করে দেয়ার ঘটনা। আন্তর্জাতিক মানের কারখানা করেও এটিকে টিকিয়ে রাখতে পারেননি মালিক।  মধ্য সারির ম্যানেজমেন্টের এসব পদে কর্মরতদের অনেকেই ভারতীয় নাগরিক বলে জানা গেছে। পরিকল্পিতভাবে অস্থিরতা সৃষ্টি করে ইতোমধ্যে এসকিউ, ক্রিস্টাল, মাস্টার্ড, হলিউড, শান্তা, রোজ, ফরচুনা, ট্রাস্ট, এজাক্স, শাহরিয়ার, স্টারলি ও ইউনিয়নের মতো দেশসেরা সব গার্মেন্ট ক্রয় করে নিয়েছে। বিক্রির কথাবার্তা চলছে আরো শতাধিক কারখানার। বিক্রি উপক্রম এসব কারখানার ক্রেতারাও বিদেশি বলে জানা গেছে।
সূত্র আরো জানায়, বর্তমানে প্রায় পাঁচ হাজার তৈরি পোশাক কারখানায় ২২ হাজারের মতো বিদেশি কর্মকর্তা গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত রয়েছেন। এদের মধ্যে দেড় হাজারের বেশি ভারতীয় নাগরিক।  যোগাযোগ ও মার্কেটিংয়ে দক্ষ হওয়ায় বাংলাদেশের গার্মেন্ট শিল্প মূলত তাদেরই নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই উদ্যোক্তারা পরিচালিত হন তাদের তৈরি করা ছক অনুযায়ী। এসব কর্মকর্তারাই বিদেশে অবস্থানরত ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্যবসায়িক সম্ভাবনাগুলো জানিয়ে কারখানা কিনে নিতে উৎসাহিত করেন। মালিকানা পরিবর্তন হওয়ার আগে বিভিন্ন অজুহাতে কারখানাগুলো সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়। নতুন মালিক এসে এগুলোর আধুনিকায়ন করেন উন্নত মেশিনারি দিয়ে। 
বিজিএমইএ সূত্র জানিয়েছে, বর্তমানে তাদের তালিকাভুক্ত বায়িং হাউজের সংখ্যা ৮শ ৯১টি। এর বাইরে আরো কয়েকশ বায়িং হাউস আছে। বায়িং হাউজগুলোর ৮০ থেকে ৯০ ভাগই নিয়ন্ত্রণ করেন ভারতীয় নাগরিকরা। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নগরীর অভিজাত এলাকাগুলোতে বাড়ি ভাড়া নিয়ে বায়িং হাউসের রমরমা ব্যবসা করছেন তারা। বিভিন্ন সময় পর্যটক হিসেবে এরা বাংলাদেশে এলেও আর ফিরে যান না। বিদেশি বায়ারদের হাতে নিয়ে তারা এক রকম জিম্মি করে ফেলেছেন বাংলাদেশের পোশাক খাতকে। 
বিজিএমইএ সূত্র জানায়, দেশে এখন পর্যন্ত দক্ষ ফ্যাশন ডিজাইনার ও মার্চেন্ডাইজার তৈরির কোনো সরকারি ইনস্টিটিউট নেই। বিজিএমইএর নিজস্ব^ একটি ইনস্টিটিউট থেকে বছরে আড়াই হাজার প্রশিক্ষিত ফ্যাশন ডিজাইনার ও টেকনিশিয়ান বের হলেও চাহিদা রয়েছে এর দ্বিগুণ। ফলে বাধ্য হয়েই বিদেশি ফ্যাশন ডিজাইনার নিতে হয় গার্মেন্ট মালিকদের। এক্ষেত্রে সরকারের উদাসীনতাকে দায়ী করেন গার্মেন্ট মালিকরা। 
এ প্রসঙ্গে বিজিএমইএ সাবেক সভাপতি সালাম মুর্শেদী কয়েকদিন আগে বলেছেন, যোগ্য লোকের অভাবে বেশিরভাগ কারখানার মালিককেই ম্যানেজমেন্ট চালাতে হয় বিদেশিদের দিয়ে। শ্রমিকদের নিয়ন্ত্রণও থাকে তাদের হাতে। 
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গার্মেন্ট মালিক বলেন, পোশাক খাতে গ্যাস বিদ্যুৎ সঙ্কট ও ভাঙচুরের কারণে অনেক মালিক এ ব্যবসা থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন। বিদেশিরা ইতোমধ্যে অর্ধশতাধিক কারখানা কিনে নিয়েছেন। বিদেশিরা কারখানা কিনে প্রথমেই অটোমেটিক মেশিন বসিয়ে লোকবল কমিয়ে ফেলে। এছাড়া বিদেশিদের বায়ার ধরার ক্ষমতা অনেক বেশি। আবার অনেক ভারতীয় আছেন যারা নিজেরা বায়ার হিসেবে কাজ করছেন। সে হিসাবে তারা বেশি দামে পোশাক বিক্রি করতে পারেন। তাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা যাচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, প্রোডাকশন কস্ট ও মজুরি বেড়ে যাওয়ার কারণে অনেক কারখানাই টিকে থাকতে পারবে না। ফলে বাধ্য হয়ে হয় তারা কারখানা বন্ধ করে দেবেন অথবা বিক্রি করে দেবেন। আর ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ, আমেরিকান, কানাডিয়ান নাগরিক ও কিছু বায়িং হাউসের মালিক এ কারখানাগুলো কিনে নেবেন।
প্রতিযোগী দেশগুলোর বাংলাদেশের বাজার দখলের প্রচেষ্টা সম্পর্কে বিজিএমইএ সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, ভারত বড় আকারে এ বাজারে ঢোকার কৌশলগত পরিকল্পনা নিয়েছে। আর ভিয়েতনামে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগে সেখানকার পোশাক পণ্যে বৈচিত্র্য এনেছে। ভিয়েতনাম আমেরিকার বাজারে গত ছয় মাসে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় রফতানি প্রবৃদ্ধি করেছে সাড়ে ১৫ শতাংশ। তিনি বাংলাদেশের চিত্র তুলে ধরে বলেন, ২৩ মাসের মধ্যে গত জুলাই মাসে পোশাক খাতের ওভেন পণ্যের রফতানি কমেছে ৪ দশমিক ২৩ শতাংশ। সম্মিলিতভাবে গত জুলাই মাসে বাংলাদেশের রফতানি আয় আগের বছরের তুলনায় বেড়েছে মাত্র শূন্য দশমিক শূন্য ৭ শতংশ। অথচ এ সময়ে ভারতের বেড়েছে ১৩ দশমিক ৩১ এবং ভিয়েতনামের ১৩ দশমিক ৫০ শতাংশ। আর আগস্টে এসে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪ শতাংশ। 
রাজনৈতিক বিরোধ : যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নে তৈরি পোশাকের বাজার হারানোর পেছনে রাজনৈতিক বিরোধকে অন্যতম কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন বিশ্লেষকরা। 
পরিসংখ্যান বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত নভেম্বর ডিসেম্বরে যখন টানা হরতাল অবরোধ ছিল তখন গার্মেন্ট রপ্তানিতে ২০ শতাংশের ওপরে প্রবৃদ্ধি হয়েছে। আর ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর স্থিতিশীল পরিবেশ ফিরে এলেও রপ্তানি প্রবৃদ্ধি ১৫ শতাংশে নেমে এসেছে। আর নির্বাচনের সাত মাস পর জুলাইতে এসে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি নেমে এসেছে শূন্যের ঘরে। বিশ্লেষকরা বলছেন, এটাই ইঙ্গিত দিচ্ছে- মূল্য সমস্যা রাজনৈতিক অস্থিরতা বা কারখানার কর্মপরিবেশ (কমপ্লায়ান্স) ইস্যু নয়, মূল সমস্যা পশ্চিমাদের সঙ্গে রাজনৈতিক বিরোধ। আর এ কারণেই জানুয়ারি থেকে আশঙ্কাজনক হারে কমছে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি যা শিগগিরই নেতিবাচক ধারায় পৌঁছার তীব্র শঙ্কা জেগেছে। 
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মূলত রাজনৈতিক বিরোধের কারণেই বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। একই কারণে জিএসপি ফিরিয়ে দিচ্ছে না। এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. হেলালউদ্দিন বলেন, জিএসপি সুবিধা ফিরে পেতে হলে বাংলাদেশকে আমেরিকার রাজনৈতিক বিষয় বুঝতে হবে। আর তা হলো ৫ জানুয়ারির নির্বাচন। আমেরিকা চায় বাংলাদেশে আরেকটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন এবং তার জন্য সংলাপ। সেটা নিশ্চিত না হওয়ার আগ পর্যন্ত তারা জিএসপি সুবিধাকে চাপ প্রয়োগের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবে। পশ্চিমাদের তাদের কথা-বার্তাতেও তা স্পষ্ট হয়েছে বলে তিনি মনে করেন। 
বাংলাদেশ এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ইএবি) সভাপতি ও পোশাক শিল্প রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী বলেন, দেশে যখন রাজনৈতিক অবস্থা অস্থিতিশীল ছিল তখন আগের রপ্তানি অর্ডারগুলো ইপিবি’র হালনাগাদ তথ্যে দেখানোয় আমরা কিছু বুঝতে পারিনি। কিন্তু এখন ওই সময়ের অস্থিতিশীল রাজনীতির ফলাফল দেশের পোশাক রপ্তানিতে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এছাড়া অনেক কারখানায় সাব-কন্টাক্টের কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। ক্রেতারা অর্ডার কমিয়ে দিয়েছে। ফলে পুরো রপ্তানিতে একটা মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। এ অবস্থা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। পশ্চিমা ক্রেতাদের সংগঠন অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্স দেশে কাজ করায় ইমেজ সংকট কমেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। অ্যাকর্ড অ্যালায়েন্সের পরিদর্শনে কিছু কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়াকেও রপ্তানি কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে মনে করেন এই ব্যবসায়ী নেতা। 
সোমবারে বিজিএমইএ’র মতবিনিময় সভায়ও রাজনৈতিক বিরোধের বিষয়টি উঠে এসেছে। আলোচনায় মানবজমিন সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী বলেছেন, বাংলাদেশের প্রসঙ্গ এলেই রানা প্লাজার দুর্ঘটনা নিয়ে সমালোচনা হয়। হতাহতদের এখনও ক্ষতিপূরণ না দেয়ার সমালোচনা হয়। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক হলে ব্যবসা ভালো হবে না। ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত বলেছেন, পোশাক খাত এখন আর কোনো পণ্য নয়, এটা বরং রাজনীতির অংশ হয়ে উঠেছে।