শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইমামের পেছনে নামাজে দাঁড়ানোর বিধান

namazআমাদের দেশের মসজিদগুলোতে একটি বিষয়ে ভিন্ন আচরণ দেখা যায় কখনো কখনো। তা হলো মসজিদে জামাতের সঙ্গে নামাজ আদায়ের ক্ষেত্রে ইমামের পেছনে মুক্তাদিদের দাঁড়ানোর বিষয়ে। আসলে ইমামের পেছনে অনুসরণকারী মুক্তাদিরা জামাতে নামাজ আদায়ের ক্ষেত্রে কখন দাঁড়াবেন? বিষয়টি অনেকেই না জেনে কেউ মসজিদে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন, আবার কেউ ইমাম সাহেব মসজিদে আসার পর পরই দাঁড়িয়ে যান, অনেকেই আবার ইকামত শুরু হলে কিংবা ইকামতের মাঝামাঝি সময়ে নামাজের জন্য কাতার করে দাঁড়ান। ইসলামী স্কলারদের মতে করণীয় হলো, নামাজ শুরু হওয়ার সময় ইমাম যদি মসজিদের ভেতরে পূর্ব থেকে অবস্থান না করেন; বরং তার বাসস্থান থেকে এসে ইমামতির স্থানে দাঁড়ান তবে (নামাজের সময় হয়ে গেলে) মুক্তাদিরা ইমামকে মসজিদে আসতে দেখলেই নামাজে দাঁড়াবেন এবং মুয়াজজিন আকামত দিবেন, যদিও ইমাম তার ইমামতির স্থানে না পৌঁছে থাকেন। এ বিষয়ে হাদিসে বর্ণিত আছে, হজরত আবু হুরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত, ‘নামাজের জন্য ইকামত দেয়া হতো, আর লোকেরা কাতারে অবস্থান নিত, নবীজী (সা.) তার স্থানে অবস্থান নেয়ার পূর্বে’ (মুসলিম)। অবশ্য ইমাম তার স্থানে অবস্থান নেয়ার সময়ও মুয়াজজিন ইকামত দিতে পারে, তাতেও নিষেধের কিছু নেই। উল্লেখ থাকে যে, নবী (সা.) ফরজ নামাজগুলোর আগে ও পরের সুন্নত নামাজগুলো ঘরেই বেশি আদায় করতেন। তাই রাসুলুল্লাহর (সা.) মসজিদে আসাটাই ফরজ নামাজ শুরু করার সময় ও অনুমতি ধরে নেয়া হতো। আর যদি ইমাম মসজিদেই থাকেন, তাহলে তিনি যখন মুয়াজজিনকে অনুমতি দেবেন বা নামাজ আরম্ভ করার নির্ধারিত সময় হবে, তখন বাকি মুসল্লিরা কাতারবদ্ধ হবেন।
কিন্তু ঠিক ইকামতের কোন্ শব্দের সময় উপস্থিত মুসল্লিরা কাতারবদ্ধ হওয়ার জন্য দাঁড়াবেন, তা নিয়ে ভিন্ন কিছু মতো পাওয়া যায়। কেউ বলেন, ইকামত শেষ হওয়ার সময় মুসল্লিরা দাঁড়াবেন। কেউ বলেন, মুয়াজজিন যখন ‘ক্বাদ ক্বামাতিস্ সালাহ’ বলবে, তখন দাঁড়াবেন। কেউ বলেন, ইকামতের শুরুতে ‘আল্লাহু আকবার’ বলার সময় দাঁড়াবেন। আসলে এ বিষয়ে বিভিন্ন প্রমাণাদির দিকে লক্ষ্য করলে  বোঝা যায় যে, মুসল্লিরা ইমামকে ইমামতির স্থানে আসতে দেখলে বা তার স্থানে অবস্থান নিতে দেখলে মুয়াজজিন ইকামত দেয়া শুরু করবেন এবং মুক্তাদিরা তাদের সাধ্যমতো কাতারবদ্ধ হবেন। এক্ষেত্রে একটু আগে বা পরে হলে সমস্যা নেই। তবে নেকির কাজে দ্রুতগামী হওয়াই বেশি ভালো।