শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নখে সূঁচ ঢুকিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের শাস্তি!

nokহাতের আঙুলের নখের ভেতর সূঁচ ঢুকিয়ে এক দোকান মালিককে শাস্তি দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। শুধু তাই নয়, ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে ওই দোকান মালিককে লাঠি দিয়ে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।১৯ দিন কারাভোগ করে জামিনে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের এ অভিযোগ করেছেন নির্যাতনের শিকার দোকান মালিক নাজমুল হোসেন ওরফে নোয়েল।

গত ১২ আগস্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের দাতিয়ারা এলাকার জান্নাত জেনারেল স্টোরের মালিক নোয়েলকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) নাজমুল আহসানের নির্দেশে এ ‘শাস্তি’ দেওয়া হয়।

দোকানের রেফ্রিজারেটরে মাংস রাখা এবং আবাসিক বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে দোকানে বাতি জ্বালানোর অপরাধে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে এনডিসি নাজমুল আহসান এ বর্বর শাস্তির ব্যবস্থা করেন।

এসময় দোকানটি সীলগালা করে নোয়েলকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নিচতলার একটি কক্ষে নেওয়া হয়। পরে দরজা বন্ধ করে ‘শাস্তি পর্ব’ শুরু করা হয়।
নখে সূঁচ ঢুকিয়ে মধ্যযুগীয় এ শাস্তি প্রদান শেষে তাকে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।

সম্প্রতি ঢাকায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, দাতিয়ারা এলাকায় প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তাদের ডরমেটরির পাশেই তার দোকান। সেখান থেকে সরকারি কর্মকর্তারা বাকিতে নানা পণ্য কিনেন। অনেকেই তার দোকানে বসে চা খান। এই অবস্থায় কয়েক মাস আগে পাওনা টাকা (বাকি) নিয়ে এনডিসি নাজমুল আহসানের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। গত মার্চ মাসে তিনি এনডিসির কাছে পাওনা ১০টি সিগারেটের দাম চেয়েছিলেন। এতে এনডিসি নাজমুল ক্ষিপ্ত হন। তবে পরে তার দোকানে এসে পাওনা শোধ করেন। এরপর তার দোকান থেকে মালামাল নেওয়া বন্ধ করে দেন প্রশাসনের ওই কর্মকর্তা।

নোয়েল আরও জানান, কিছুদিন আগে ডরমেটরির সামনের পুকুরের পানিতে এনডিসির ছেলে ডুবে যাচ্ছিল। পরে আনসার সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে। গত ১১ আগস্ট জেলা তথ্য অফিসার তারিক মোহাম্মদ দোকানে এসে এনডিসির ছেলের পানিতে পড়ার বিষয়টি সম্পর্কে তার কাছে জানতে চান।

নোয়েল জানান, তিনি ওই কর্মকর্তাকে তখন বলেন, ‘ওই দিন আনসার সদস্যরা থাকায় স্যারের বাচ্চারা বেঁচে গেছে।’

কিন্তু তথ্য কর্মকর্তা এনডিসির কাছে গিয়ে বলেন, নাজমুল নাকি তার সন্তানের মৃত্যু কামনা করেছে। এর জের ধরেই নোয়েলের ওপর অত্যাচারের খড়গ নেমে আসে।
নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে নোয়েল বলেন, ‘দোকান থেকে আমাকে গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়ার সময় এনডিসি নাজমুল আহসান আনসার বাহিনীর সদস্য সহিদুল হোসেনকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, ‘আমার বিষটা মজাইতে পারলাম না। অফিসে নিয়ে তাকে ভালো কইরা শায়েস্তা করবা। আমি তো পিটাইতে পারবো না।’

দোকানে থাকার সময়ই আনসার সহিদুল তাকে লাঠি দিয়ে পেটায়। যে কক্ষটিতে তাকে নির্যাতন করা হয় সেখানে জেলা তথ্য অফিসারও বসা ছিলেন। আনসার সদস্য সহিদুল ওই কক্ষে নোয়েলের ওপর চড়াও হন। এসময় তার হাতে একটি সুঁচ ও ব্লেড ছিল।

বাম হাতের আঙ্গুলে সূঁচ ঢুকানোর সময় আনসার সহিদুল নোয়েলকে বলেন, ‘বল, তুই স্যারের ছেলের মৃত্যু কামনা করেছিস!’ নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে শেষ পর্যন্ত নোয়েলের কাছ থেকে স্বীকারোক্তিও আদায় করা হয়। ততক্ষণে তার চার আঙুলের নখের ভেতরেই সূঁচ ফোটানো হয়েছে।

নির্যাতন শেষে তথ্য অফিসার নোয়েলকে বলেন, ‘তুই আজ এখানে হওয়াতে রক্ষা পেয়েছিস। যদি ঢাকার মিরপুরে থাকতি তাইলে তোরে ন্যাংটা কইরা বাইড়াইতাম (পিটাইতাম)।’
এদিকে, নোয়েলের দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার পর তার পরিবারের সদস্যরাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তারা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করে নোয়েলের সন্ধান পান।

Ibrahimঘটনাটি পরিবারের সদস্যরা তাদের আত্মীয়স্বজন উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তাদের জানানোর পর তারা জেলা প্রশাসককে ফোন করেন এবং বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বলেন। যাদের মধ্যে একজন সচিব এবং বিভাগীয় কমিশনার রয়েছেন। এরপর নোয়েলের বড় ভাই মোশাররফ হোসেন টিটো এবং ভাবী নারগিস বেগম একাধিকবার জেলা প্রশাসকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।
যে কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত

সদর উপজেলা স্যানিটারি পরিদর্শক ছফিউর রহমান ভূঁইয়া নোয়েলের দোকান নিয়ে অভিযোগ দেন। তার অভিযোগ, নোয়েলের দোকানের রেফ্রিজারেটরে আইসক্রিম ও পানীয়ের সঙ্গে মুরগির মাংস ও কাঁচা মাছ মোড়কবিহীন অবস্থায় রাখা হয়েছে। এই অপরাধে ১২ আগস্ট নোয়েলের দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়। এছাড়াও তিনি আবাসিক বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার করে রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছেন।

এরপর দোকানে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৫২ ধারা মতে, সেবা গ্রহণকারী বা ভোক্তার জীবন বিপন্ন করার জন্যে তাকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মান ও বিএসটিআই-এর সিলবিহীন পণ্য ধ্বংস করা হয়। বিদ্যুৎ আইন-১৯১০ এর ৪২ ধারার সুস্পষ্ট লঙ্ঘনের জন্য বিদ্যুৎ বিতরণকারী কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশ দেওয়া হয়। এছাড়া তার দোকানটি সিলগালা করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আমাকে এ ব্যাপারে সচিবসহ উচ্চপদস্থ অনেক সরকারি কর্মকর্তা ফোন করেছেন। আমি বিষয়টি সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজখবর নেই। কিন্তু তাকে নির্যাতন করা হয়েছে এমন তথ্য আমি কারও কাছ থেকে পাইনি।’
এভাবে মারধর করার কোনও সুযোগ ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেই বলেও জানান ডিসি।

ডিসি আরও বলেন, ‘আমি আপনাদের (সাংবাদিকদের) কাছ থেকেই এ ধরণের অভিযোগ প্রথম শুনলাম।’

অবশ্য আনসার সদস্য সহিদুল হোসেন সূঁচ ফোটানোর অভিযোগ অস্বীকার করলেও লাঠি দিয়ে পেটানোর কথা স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘স্যারের নির্দেশেই পিটিয়েছি। আমার কী করার আছে?’

এ বিষয়ে সদর উপজেলা স্যানিটারি পরিদর্শক ছফিউর রহমান ভূঁইয়াকে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘আমি অভিযোগ দেইনি। আমাকে আদালতের প্রণব বাবু ফোন দিয়ে দাতিয়ারায় নিয়ে যান। গিয়ে দেখি এনডিসি স্যার আগেই ওই দোকানে উপস্থিত।’

ওই দিন দাতিয়ারা এলাকার আর কোনও দোকানে তারা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেননি বলেও জানান তিনি।

অভিযোগের বিষয়ে নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) নাজমুল আহসানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এতদিন আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়া ছিলাম কোনও অভিযোগ ছিল না। কিন্তু আমি ঢাকায় আসার পর অভিযোগ কোথা থেকে আসলো।’

তিনি বলেন, ‘ওইদিন তাকে (নোয়েল) সবার সামনে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং কোর্টে এনে হেফাজতে দিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

বাইরে কোথাও তাকে নির্যাতনের কোনও সুযোগ নাই উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘গাড়ি থেকে আদালতে নামানোর সময় সে নামতে পারছিল না বলে এক আনসার তাকে লাঠি দিয়ে একটা বাড়ি দিয়েছে। এর বাইরে তাকে পেটানো হয়নি।’