শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভর্তি পরীক্ষায় প্রযুক্তির মাধ্যমে জালিয়াতিতে শিক্ষার্থীদের শঙ্কা

1410662776ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, এমনকি নিয়োগ পরীক্ষায় প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার করে জালিয়াত চক্র হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। এবারও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে। এ ধরনের জালিয়াতির ফলে শুধু টাকার জোড়ে কম মেধাবীরা সুযোগ পাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার। ২০১০ সাল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এ কেলেঙ্কারি ঘটেই চলছে। 
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর একশ্রেণির শিক্ষক ও কর্মচারী ইলেকট্রনিক উপায়ে প্রশ্ন বাইরে পাচার করেন। এরপর এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীকে উত্তর জানিয়ে দেয় জালিয়াত চক্র। এজন্য ব্যবহার করা হয়েছে বিশেষ ধরনের ‘ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস’। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র যে প্রক্রিয়ায় তৈরি ও সংরক্ষণ করা হয় তাতে পরীক্ষার আগে প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার আশঙ্কা নেই। তবে ব্যবহার বেড়েছে প্রযুক্তির মাধ্যমে জালিয়াতির। 
অনেকেই অভিযোগ করেছেন ‘ইউসিসি’, ‘প্যারাগন’সহ বেশ কয়েকটি কোচিং সেন্টার ভর্তি পরীক্ষায় অপকর্ম চালু করেছে। কয়েক মাস আগে সরকার এক পরিসংখ্যানে বলেছে, শুধু বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা কেন্দ্র করে ৩২ হাজার কোটি টাকার কোচিং ব্যবসা হয়। এসব ঠেকানোর জন্য সরকার ‘ক্লাস্টার’ বা ‘গুচ্ছ’ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা চালুর কথা বললেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো রাজি হচ্ছে না। 
জানতে চাইলে শিক্ষা সচিব ড. মুহাম্মদ সাদিক গতকাল শনিবার বর্তমানকে বলেন, এবারের ঘটনাটি যেহেতু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় ঘটেছে সেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষই ব্যবস্থা নেবে। ইতিমধ্যে শিক্ষামন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সঙ্গে এ বিষয়ে বিস্তারিত কথা বলেছেন। আর উপাচার্যও মন্ত্রণালয়কে নিশ্চিত করেছেন যে, এ ঘটনার সুরাহা হবেই। আগের পরীক্ষাগুলোতে জালিয়াতির বিষয়ে তিনি বলেন, ওগুলো ছিল শিক্ষা বোর্ডের অধীনে। 
শিক্ষাবিদ ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান বর্তমানকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এ ধরনের জালিয়াতি আগে হয়েছে কি না তা সন্দেহ রয়েছে। শুধু ভর্তি পরীক্ষাই নয়, দিন দিন এ ধরনের অপরাধ প্রবণতা বাড়ছে। এটি অত্যন্ত দুঃখের বিষয়। তিনি বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় এরা ধরা না পড়লে অপরাধীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতো। তখন কী হতো? তিনি বলেন, এ ধরনের প্রবণতা ঠেকানো সহজ নয়। তবে ‘সচেতনতা’ নামের একটি ‘অস্ত্র’ দিয়ে ঠেকানো যেতে পারে। 
সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক থেকে চ— সব ইউনিটের পরীক্ষাকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছে শক্তিশালী জালিয়াত চক্র। প্রায় সব জালিয়াতির ঘটনায় মামলা হলেও আটককৃত শিক্ষার্থীরা জামিনে বের হয়ে যান। দায়েরকৃত মামলাগুলোর খোঁজখবর রাখে না ও ফলোআপ করে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আর পুলিশ। ফলে দোষীদের আটক করতে থাকে না কোনো কার্যকর উদ্যোগ। ফলে জালিয়াতির মূল হোতারা রয়ে যায় ধরা-ছোঁয়ার বাইরে।