মঙ্গলবার, ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিদেশে গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোই সরকারের অগ্রাধিকার

Awamileg logo

একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ সরকার আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের নির্দেশে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর থেকেই এ লক্ষ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই এরই মধ্যে চীন, জাপানসহ কয়েকটি দেশে দ্বিপক্ষীয় সফর করেছেন। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত তাঁর আরও কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় ও বহুপক্ষীয় সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বিভিন্ন দেশে এক ডজনের বেশি বহুপক্ষীয় ফোরামে অংশ নিয়েছেন। বিষয়ভিত্তিক বৈঠকে যোগ দেওয়ার ফাঁকে তাঁরা স্বাগতিক এবং গুরুত্বপূর্ণ অন্য দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সমপর্যায়ের সরকারি প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করেছেন।
আগামী মাসে অনুষ্ঠেয় কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারপারসন পদে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। তিনি গত মাসে যুক্তরাজ্য সফর করে এসেছেন। শিরীন শারমিনের এই প্রার্থিতাও সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত এই সংসদের গ্রহণযোগ্যতা বিদেশে বাড়ানোর লক্ষ্যে নানা উদ্যোগের অংশ বলে মনে করা হচ্ছে।
বাংলাদেশের সঙ্গে জাতিসংঘের সম্পর্কের চার দশক পূর্তিতে এ মাসের শেষ সপ্তাহে নিউইয়র্কে এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করছে সেখানকার বাংলাদেশ মিশন। ওই অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন ছাড়াও বিভিন্ন দেশের নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের মধ্যবর্তী সময়ে অনুষ্ঠেয় ওই আয়োজনের মধ্য দিয়ে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরতে নানা প্রস্তুতি চলছে।
এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক কয়েকটি বৈঠকও আয়োজন করা হয়েছে ঢাকায়। ২০১৬ সালে অভিবাসনবিষয়ক বিশ্ব সম্মেলনও এখানে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সর্বশেষ ঢাকায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার চার দিনের আঞ্চলিক বৈঠক শেষ হয়েছে গতকাল শুক্রবার। এতে ১১টি দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রীরা অংশ নেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও দুটি অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন। এর একটি ছিল অনির্ধারিত উপস্থিতি।
প্রতিবেশী ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে বিশেষ করে নির্বাচনের পর দিল্লিতে ক্ষমতার পালাবদল হওয়ায় কিছুটা অস্বস্তিতে ছিল আওয়ামী লীগ সরকার। গত জুনে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ তাঁর প্রথম বিদেশ সফরে ঢাকা ঘুরে যাওয়ার পর সরকারের সেই অস্বস্তি দূর হয়েছে। কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানায়, বিজেপি সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খুব স্পষ্ট করেই জানিয়ে গেছেন, অতীতের সরকারের মতো বাংলাদেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখবে ভারত। ভারতের নতুন সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক সম্প্রসারণের বিষয়ে আলোচনার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর আগামী সপ্তাহে দিল্লি যাওয়ার কথা রয়েছে। ওই সফরে তাঁর সঙ্গী হওয়ার কথা বাংলাদেশের আট সচিবের।
অবশ্য ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রশ্নেও ভারতের তৎকালীন কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সরকার শেখ হাসিনার সরকারকে সমর্থন দিয়েছিল।
ভারতের পাশাপাশি চীন, রাশিয়া ও জাপান ৫ জানুয়ারির নির্বাচন-পরবর্তী সরকারের সঙ্গে সহযোগিতার সম্পর্ক ঘনিষ্ঠতর করার পথে অগ্রসর হয়েছে। এরই মধ্যে এসব দেশের সঙ্গে অনেকগুলো দ্বিপক্ষীয় চুক্তিও হয়েছে।
সরকারের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, নির্বাচনের পর থেকেই সরকার আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সক্রিয়তা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়। এ ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশেষভাবে নির্দেশ দেন। নির্বাচনের পর বিভিন্ন রাষ্ট্রের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে অভিনন্দন বার্তা সংগ্রহ এ প্রক্রিয়ারই অংশ। সাধারণত কোনো দেশে নির্বাচন শেষে নতুন সরকার দায়িত্ব নেওয়ার পর রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে অভিনন্দন বার্তা পাঠানোর রেওয়াজ রয়েছে। এবার দেখা গেছে, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর প্রচলিত রীতির ব্যতিক্রম ঘটিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থাও সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছে।
যদিও এ তালিকায় নির্বাচনের ব্যাপারে সমালোচনায় মুখর থাকা যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছিল না। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ও বাংলাদেশের সুশাসন নিয়ে তাদের অবস্থান অপরিবর্তিত রয়েছে; যা স্পষ্ট হয়েছে ২২ জুলাই লন্ডনে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে শেখ হাসিনার সৌজন্য সাক্ষাৎ-পরবর্তী বিবৃতিতেও। ওই সাক্ষাতের পর ডেভিড ক্যামেরনের দপ্তরের মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বলেন, অর্ধেকের বেশি সংসদ সদস্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ওই বৈঠকে হতাশা প্রকাশ করেছেন।
এর আগে ১৯ জুন নিউইয়র্কে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন। ওই সাক্ষাতের পর জাতিসংঘের মহাসচিবের দপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সংসদের বাইরের দলগুলোকে নিয়ে সংলাপে বসার তাগিদ দিয়েছেন বান কি মুন।
অবশ্য দশম জাতীয় সংসদের অর্ধেকের বেশি আসন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এবং বাকিগুলোতেও খুব কমসংখ্যক ভোটার উপস্থিতিতে নির্বাচন হওয়ায় শুরু থেকেই সমালোচনামুখর রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা বিশ্ব। তবে সরকারের দায়িত্বশীল একাধিক কর্মকর্তা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান সমালোচনামূলক হলেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক অনেক বিস্তৃত হয়েছে।
সরকার সমন্বিত উপায়ে বিদেশের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদারে মনোযোগী হলেও অনেক ক্ষেত্রে পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি শেষ পর্যন্ত সহায়ক হয়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্ট অনেক কর্মকর্তা। কারণ, নির্বাচনের আগে বিশেষ করে ২০১৩ সালের সহিংসতা বাংলাদেশ সম্পর্কে বিশ্বের নানা প্রান্তে নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টি করেছিল। নির্বাচনের পর দেশে অপেক্ষাকৃত শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতি বিরাজ করায় তা সরকারের জন্য সহায়ক হয়েছে। এটাকে পুঁজি করে সরকার সুশাসনের বিষয়টিকে এড়িয়ে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদারে মনোযোগী হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী প্রথম আলোকে বলেন, সরকার সমন্বিত উপায়ে বিভিন্ন দেশ ও সংস্থার সঙ্গে সম্পর্ক জোরদারের প্রয়াস অব্যাহত রেখেছে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সরকারের অবস্থান জোরদার হয়েছে, ব্যবসা-বাণিজ্যসহ নানা ক্ষেত্রে সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। তাঁর মতে, বাংলাদেশের জন্য অর্থনৈতিকভাবে যে সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে, সেটি ধরে রাখা জরুরি। আর এ সম্ভাবনাকে বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা না গেলে এর সুফল পাওয়া যাবে না।
সরকারি সূত্রগুলো জানায়, নির্বাচনের পর আট মাস পেরিয়ে গেলেও বিরোধী দল রাজপথে কোনো আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। এ কারণে সরকারের আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। ফলে জাপানের সঙ্গে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্যপদে নির্বাচনের প্রার্থিতা প্রত্যাহার এবং গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের দায়িত্ব চীনকে দেওয়ার ব্যাপারে দর-কষাকষি করেছে। অথচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার টোকিও ও বেইজিং যাওয়ার আগে আভাস মিলেছিল যে দুই দেশের ইচ্ছা পূরণে তাঁর সরকার যথেষ্ট আগ্রহী। কারণ, এ দুটি দেশ পাশে থাকলে সরকারের গ্রহণযোগ্যতা থাকবে। পরে টোকিওতে নয়, জাপানের পক্ষে জাতিসংঘের নির্বাচনে বাংলাদেশের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে ঢাকায়। আগামী বছরের প্রথমার্ধে চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেছিয়াংয়ের ঢাকা সফরের সময় গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের ব্যাপারে সরকার চূড়ান্ত ঘোষণা দেওয়ার পক্ষপাতী।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, নির্বাচন ও রাজনীতির প্রসঙ্গটিকে সরিয়ে সরকার অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিয়ে এগোতে চাইছে। কিন্তু রাজনৈতিক সুশাসন নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দুশ্চিন্তা পুরোপুরি দূর হয়নি। তাঁর মতে, রাজনৈতিক সুশাসন যদি প্রতিষ্ঠা করা না যায়, তাহলে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা সঠিকভাবে কাজে লাগানো যাবে না।

এ জাতীয় আরও খবর

এ সফর ছিল সংক্ষিপ্ত কিন্তু অত্যন্ত ফলপ্রসূ : প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশকে হারিয়ে সেমিতে আফগানিস্তান, অস্ট্রেলিয়ার বিদায়

স্ত্রীর সঙ্গে দীর্ঘদিন যোগাযোগ বন্ধ মেসির?

ইতিহাস গড়তে একসঙ্গে রজনীকান্ত-সালমান

ঈদযাত্রায় সড়কে ২৬২ জনের মৃত্যু

রাসেলস ভাইপার নিয়ে যা বলছেন বেদেরা

সংবাদ সম্মেলনে আসছেন মির্জা ফখরুল

কোপা মিশনে সকালে মাঠে নামছে ব্রাজিল, দেখবেন যেভাবে

ভোরে আফগানদের মুখোমুখি বাংলাদেশ, সেমিতে খেলতে যা করতে হবে

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের বিবৃতি অগ্রহণযোগ্য : নোয়াব

গাজীপুরের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার সাময়িক বরখাস্ত

বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ১৩ কোটি ডলার রেমিট্যান্সের ৫ কোটিই ভারতের