বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নজরুল সংগীতের সম্রাজ্ঞী ফিরোজা বেগম

1410366500.নজরুল সংগীতের সম্রাজ্ঞীখ্যাত শিল্পী ফিরোজা বেগম। তবে নজরুল সংগীত ছাড়াও সংগীতের সব শাখাতেই ছিল তার বিচরণ। কিন্তু নজরুলের গানের প্রসঙ্গ এলে স্বভাবতই ভেসে ওঠে তার ছবি। ফিরোজা বেগমের জন্ম ১৯৩০ সালের ২৮ জুলাই ফরিদপুরের এক সম্ভ্রান্ত জমিদার পরিবারে। তার বাবার নাম খান বাহাদুর মোহাম্মদ ইসমাইল এবং মায়ের নাম বেগম কওকাবুন্নেসা। ১৯৫৫ সালে সুরকার কমল দাশগুপ্তের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তার তিন সন্তান- তাহসীন, হামিন ও শাফিন। ফিরোজা বেগম শৈশবে ছিলেন একেবারেই অন্তর্মুখী। নিজের জগতেই তার বসবাস। পড়ালেখা, খেলাধুলা, গান, অভিনয়, চিত্রাঙ্গণ, নাচ-সবই করছেন। বাদ ছিল না কিছুই। তবে সবকিছুর মধ্যেও গান শোনার এক অদ্ভুত নেশা তাকে আকর্ষণ করতো। সেই সময়ে মেয়েদের পড়াশোনা, স্কুলে যাওয়ার চলই ছিল না। তেমন পরিবেশে গান শেখার অবকাশ না থাকলেও বাবা-মায়ের সংগীতপ্রীতি যে ছিল তা বলাই বাহুল্য। এটাই ছোট্ট মেয়েটির সংগীত আগ্রহে অনুঘটক হয়েছে। তার বাড়ির একটি ঘরে রয়েছে কিছু পুরনো রেকর্ড। একটি বেশ পুরনো কলের গানও। সেটার পিনটাও ঠিক নেই, অথচ তা দিয়েই কাজ চালিয়ে নিতেন সংগীতপাগল মেয়েটি। একাকী নিবিষ্ট চিত্তে তিনি গান শুনতেন। কেউ তাকে বিরক্ত করতেন না। ফলে গানের ভুবনে হারিয়ে যেতে তার মানাও ছিল না।  এমনি একদিন গান শুনতে শুনতে সে এতটাই আনমনা ছিল যে কাজের লোকেরা কখন ভাঁড়ার ঘর তালাবদ্ধ করে দিয়েছিল সেই খেয়ালও করেনি। পরে বুঝতে পারলেও তাতে তার কোন চিন্তা হয়নি বরং ভেবেছে, মন্দ কি? একা একা গান তো শোনা হবে! এদিকে সন্ধ্যায় সবাই পড়তে বসেছে। কেবল তিনি নেই। অভ্যাসবশত প্রতিদিনের মতো চোখ বোলাতে গিয়ে ঠিকই মা দেখেছেন একটা চেয়ার খালি। অন্যদের জিজ্ঞেস করলেন কিন্তু কেউই বলতে পারল না তিনি কোথায়। অবশেষে তাকে সেই গানের ঘরেই খুঁজে পাওয়া গেল। এভাবেই ক্রমাগত গানের নিশি তাকে তাড়িয়ে বেড়াত। ভেতরে ভেতরে ভাল গান শেখার প্রবল ইচ্ছায় অস্থির থাকতেন তিনি। কিন্তু গান শেখার কোন সুরাহা হচ্ছিল না। ওই সময়ে কোনো এক গ্রীষ্মের ছুটিতে ছোট মামা আর চাচাতো ভাইদের সঙ্গে কলকাতায় গেলেন তিনি। বন্ধুমহলে ভাগ্নীকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত মামা। ভাগ্নীও গান শোনাচ্ছে বোদ্ধাদের। ছোট্ট মেয়ের গায়কীতে মুগ্ধ সবাই। একদিন গুণীজনদের মজলিশে গান শুনিয়ে দারুণ তারিফও পেলেন তিনি। বাসায় ফিরে মামা বললেন, ‘জানিস তুই কাকে গান শুনিয়েছিস আজ?’ ‘আমি কী করে জানব? আমি কি ওদের চিনি, দেখেছি নাকি কখনো?’ মামা বললেন, ‘ঐ যে টুপি পরা, বড় বড় চুল, আসরের মধ্যমণি হয়ে বসেছিলেন, তোকে আদর করে পাশে বসালেন, উনি বিখ্যাত কবি কাজী নজরুল ইসলাম।’ এভাবেই ছেলেবেলার সেইসব সোনাঝরা দিনগুলো কেটেছে তার। ওই দিন কাজী নজরুল ইসলামকে তিনি শুনিয়েছিলেন- ‘যদি পরানে না জাগে আকুল পিয়াসা’। সে যাত্রায় কলকাতা ভ্রমণের এক আনন্দ নিয়ে পুনরায় ফিরে এসেছিলেন ফরিদপুরে। কলকাতায় গিয়ে আর যেটা লাভ হয়েছিল- অডিশন দিয়ে অল ইন্ডিয়া রেডিওর শিশুদের অনুষ্ঠান শিশুমহলে সুযোগ পাওয়া। স্থায়ীভাবে কলকাতায় থাকতে না পারাটাই তার গান শেখার অন্তরায় হয়েছে। তবে যখনই কলকাতা যেতেন, নজরুলের সান্নিধ্যে গান শেখা হতো।  ১৯৪২ সালে মাত্র ১২ বছর বয়সে বিখ্যাত গ্রামোফোন কোম্পানি থেকে ইসলামী গান নিয়ে তার প্রথম রেকর্ড বের হয়েছিল। প্রথম রেকর্ডে চিত্ত রায়ের তত্ত্বাবধানে ছোট্ট ফিরোজা গেয়েছিলেন ‘মরুর বুকে জীবনধারা কে বহাল’। সাহেব রেকর্ডিস্ট তাই দুরু দুরু বুকে গেয়েছিলেন তিনি কিন্তু তাতেই বাজিমাত। বাজারে আসার সঙ্গে সঙ্গে হু হু করে সব রেকর্ড বিক্রি হয়ে গেল। সংগীতপ্রেমীদের সঙ্গে সুরের আকাশের এই তারার সেটাই প্রথম পরিচয়। ছোট্ট মেয়েটির গায়কী সংগীতবোদ্ধা এবং সাধারণ শ্রোতা সকলকে মুগ্ধ করেছিল। গ্রামোফোন কোম্পানিতে রেকর্ড বের করার জন্য যেখানে বড় বড় সব শিল্পী আফসোস করে থাকেন, সেখানে এই ছোট্ট মেয়ের একের পর এক রেকর্ড বেরিয়ে যাচ্ছে। পর পর চারটি রেকর্ড বেরিয়ে গেল অল্পদিনের মধ্যেই। এসময় তিনি গান শিখতে শুরু করেন চিত্ত রায় ও কমল দাশগুপ্তের কাছে। তখন রেডিওতেও তিনি সমান্তরালে নানা ধরনের গান গেয়ে যাচ্ছিলেন। ততদিনে তিনি সংগীতে বিখ্যাত। দু-দুইবার আধুনিক গানের ক্ষেত্রে মাসের সেরা শিল্পী হয়েছিলেন। একবার তার গলায় রবীন্দ্রসংগীত শুনে তাকে গান শেখানোর জন্য পঙ্কজ মল্লিকের মতো শিল্পী ফিরোজা বেগমের কলকাতার বাড়িতে চলে আসছেন। গুণী শিল্পীরা তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। অন্যদিকে তিনি আব্বাসউদ্দিন এবং পল্লীকবি জসীম উদ্দীনের কাছে অল ইন্ডিয়া রেডিওর জন্য মাঝে মাঝে লোকগীতির তালিম নিতেন। রেডিওতে পাশাপাশি স্টুডিওতে গান গাইতেন তিনি এবং ওস্তাদ বড়ে গোলাম আলী খাঁ। ‘আয় না বালম’-এর মতো বিখ্যাত সেই গান রেকর্ড হচ্ছে। দৃষ্টি বিনিময় হচ্ছে, বিনিময় হচ্ছে শুভেচ্ছা। নানা গানের ভিড়ে নিজেকে আলাদা করে নেয়ার এক তীব্র ইচ্ছা কাজ করত তার মধ্যে। আর তা অন্য কোন গান নয়- নজরুলগীতি। এটা ছিল তার কাছে এক চ্যালেঞ্জের মতো। তখন নজরুল সংগীত বলা হতো না, বলা হতো আধুনিক গান লিখেছেন কাজী নজরুল ইসলাম। পরে সেটা থেকে নজরুলগীতি হয়। আর ফিরোজা বেগমের চেষ্টাতেই তা পায় নজরুলগীতির অভিধা। তিনিই অল ইন্ডিয়া রেডিওতে নজরুলের গানের অনুষ্ঠানকে বাধ্যতামূলক করেন। নজরুলগীতিকে জনপ্রিয় করার জন্যই তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন অন্য গান নয়, নজরুলের গানই গাইবেন। গ্রামোফোন কোম্পানির কর্তারা অবাক। ফিরোজার এই আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত বুঝে উঠতে পারছেন না তারা। তাদের কথা হলো, ‘এত ভালো গলা তোমার! এভাবে নিজের ক্যারিয়ার কেউ নষ্ট করে? তাছাড়া এখন তো আর লোকে সেভাবে নজরুল সংগীত শোনে না। ভেবে দেখ কী করবে!’ কিন্তু ফিরোজা বেগম অবিচল। গাইলে নজরুলগীতি। সেটাই হবে তার ধ্যান ও জ্ঞান। অগত্যা হতাশ হতে হচ্ছে সবাইকে। নজরুলের গান নিয়ে প্রকাশিত প্রথম রেকর্ডের কথা বলতে গিয়ে তিনি একবার বলেছিলেন, ‘১৯৪৯ সালে গ্রামোফোন কোম্পানি আমার গলায় নজরুলের গান রেকর্ড করতে রাজি হয়। তখন আমি গগন গহনে সন্ধ্যাতারা… গেয়েছিলাম। পুজোর রেকর্ডের ক্ষেত্রেও আমি একই সিদ্ধান্তে অবিচল থেকেছি । এজন্য আমাকে বারবার ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। শেষ পর্যন্ত জয় আমারই হয়েছে। কোম্পানি পুজোয় আমার গাওয়া নজরুল সংগীতের রেকর্ড বাজারে ছাড়তে রাজি হয়েছিল।’ ১৯৬০ সালের পুজোয় সেই রেকর্ড বেরোয়। তবে দুর্গাপুজোর আগে নয় পরে। সেই রেকর্ডে ফিরোজা গাইলেন সর্বকালের জনপ্রিয় দুটি গান ‘দূর দ্বীপবাসিনী’ আর ‘মোমের পুতুল’। ফিরোজার জনপ্রিয়তাকে আর কেউ ঠেকিয়ে রাখতে পারেনি। ১৯৬১ সালে তার গাওয়া নজরুলসংগীত নিয়ে লংপে রেকর্ড বেরোয়। সেখানে ‘মোর ঘুম ঘোরে’ আর ‘নিরজনে সখী’ গান দুটো গেয়েছিলেন। এটাই ছিল নজরুলের গানের প্রথম লংপে। একইভাবে ১৯৭৬-৮৬তে পাকিস্তানেও প্রথম নজরুলের গানের লংপে ছিল তার। ঐ রেকর্ডে ছিল ‘ওরে শুভ্রবাসনা রজনীগন্ধা’ গানটি। এটি সেই সময়ে খুব সুপারহিট হয়েছিল। এমনকি নজরুলের গজলের প্রথম লংপেও ছিল তার। ১৯৬৮ সালে আমার গাওয়া ‘শাওন রাতে যদি’র রেকর্ড এক সপ্তাহের মধ্যে দু’লাখ কপি বিক্রি হয়ে যায়। এজন্য জাপানের সনি কর্পোরেশনের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান সিবিএস আমাদের গোল্ড ডিক্স দিয়ে সম্মানিত করেছিল তাকে। ১৯৫৪ থেকে ১৯৬৭ টানা ১৩ বছর ছিলেন কলকাতায়। এই সময়টাকে তিনি নির্বাসন হিসেবেই দেখেন। ঐ সময়েই ১৯৫৬ সালে বিরলপ্রজ সুরকার কমল দাশগুপ্তের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। এই সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারেনি তার পরিবার। কিন্তু নিজের সত্যকেই তিনি সব সময় অগ্রাধিকার দিয়েছেন। কলকাতেই জšে§ছে তার তিন সন্তান- তাহসীন, হামিন ও শাফিন। ঐ সময়ে স্বর্ণযুগ স্বর্ণকণ্ঠী ফিরোজার। অথচ টানা পাঁচ বছর স্বামী-সন্তান-সংসার সামলাতে গিয়ে গান গাইতে পারেননি তিনি। এগিয়ে চলা সময়ের সঙ্গে তাদের দুর্ভাগ্যও এগিয়ে এসেছিল। অসুস্থ হয়ে পড়লেন কমলবাবু। ১৯৭৪ সালের ২০ জুলাই পিজি হাসপাতালে মৃত্যু হয় কমল দাশগুপ্তের। মাত্র ১৮ বছরের সুরময় দাম্পত্যের ইতি ঘটে। এর আগে বাচ্চাদের কথা, স্বামীর চিকিৎসার কথা ভেবে ১৯৬৭ তে তিনি দেশে ফিরলেন। আসতে না আসতেই পড়েছিলেন দুর্বিপাকে। তদানীন্তন পাকিস্তান সরকার তাকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দেশত্যাগের নির্দেশ দিয়েছিল। রাওয়ালপিন্ডি থেকে এসেছিল টেলিগ্রাম। বিভিন্ন সময়ে নানা সম্মাননা পেয়েছেন তিনি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো স্বাধীনতা পুরস্কার, শিল্পকলা একাডেমি পুরস্কার, শ্রেষ্ঠ টিভি শিল্পী পুরস্কার (পাকিস্তান এবং বাংলাদেশে), নাসিরউদ্দিন স্বর্ণপদক, স্যার সলিমুল্লাহ স্বর্ণপদক, দীননাথ সেন স্বর্ণপদক, সত্যজিৎ রায় স্বর্ণপদক, বাচসাস পুরস্কার, সিকোয়েন্স পুরস্কার। বাংলা ১৪০০ সালে কলকাতার সাহিত্যিক-শিল্পীদের দেয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেও তাকে সম্মান জানানো হয়। সেবার একই বৃন্তে দুটি কুসুম শিরোনামে দুই অসামান্য কণ্ঠমাধুর্যের অধিকারী নজরুল সংগীতে ফিরোজা বেগম এবং রবীন্দ্রসংগীতে সুচিত্রা মিত্রকে সম্মান জানানো হয়। সংগীত ভুবনের এই সম্রাজ্ঞীর জীবন কখনোই কুসুম বিছানো ছিল না। প্রতিকূলতার সঙ্গে লড়তে হয়েছে তাকে। ভারত আর পাকিস্তান মিলিয়ে যেখানে এই কিংবদন্তির রেকর্ডসংখ্যা ১৬০০, সেখানে বাংলাদেশে হাতেগোনা তিন কি চারটা। জাতীয় কবির সম্মান দেয়া হলেও নজরুলের গানের জন্য কোন সরকারই সেভাবে কিছুই করেনি। কোন টেলিভিশনে তার গানের অনুষ্ঠান বাধ্যতামূলক করার তাগিদও কেউ অনুভব করে না। এসব নিয়েও তার হতাশা ছিল অনিঃশেষ।

এ জাতীয় আরও খবর