মঙ্গলবার, ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কূটনৈতিক দৌড়ে পিছিয়ে বিএনপি

Untitled-513সরকারবিরোধী আন্দোলনে ব্যর্থ বিএনপি এবার কূটনৈতিক দৌড়েও পিছিয়ে পড়ল। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক কৌশলের কাছে হেরে গেল তিন-তিনবার রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকা দলটি। বিএনপিকে আন্তর্জাতিক লবিংয়ে হারিয়ে দিয়ে তাই অনেকটা খোশমেজাজে আছে সরকার। অন্যদিকে ব্যর্থতার গ্লানি নিয়ে আবারও বিদেশি কূটনীতিকদের সহযোগিতা পাওয়ার জন্য দৌড়-ঝাঁপ শুরু করেছে বিএনপি।

গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকাতে জাতিসংঘসহ বিশ্বের প্রভাবশালী দেশগুলোর বড় ধরনের সহযোগিতা পাওয়া যাবেÑ এমনটাই প্রত্যাশা ছিল বিএনপির। কিন্তু কার্যত তাদের কোনো ধ্যান-ধারণা কাজে আসেনি। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঠেকাতে এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন করার দাবিতে কূটনীতিকদের কোনো হস্তক্ষেপই ফলপ্রসূ হয়নি। ফলে সংবিধানের দোহাই দিয়ে সরকার নিজেদের অধীনেই ৫ জানুয়ারির নির্বাচন করে পুনরায় ক্ষমতার মসনদে বসে। দশম সংসদ নির্বাচনে বিদেশিদের প্রভাব ফেলতে সক্ষম না হলেও ওই নির্বাচনের পর থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক তৈরিতে সজাগ রয়েছে বিএনপি। কিন্তু তাদের সে পদক্ষেপের সফলতা অনেকটা দৃষ্টির আড়ালে। আর তাই বিগত আন্দোলনে কূটনৈতিক তৎপরতা ব্যর্থ হওয়ায় আন্তর্জাতিক শক্তি বৃদ্ধিতে কিছুটা কৌশলী ভূমিকায় এগুচ্ছে দলটি। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক উন্নয়নে এ বিষয়টির ওপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে বিএনপির হাইকমান্ড থেকে। চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান কূটনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরদার করতে ব্যাপকভিত্তিক কাজ করে চলেছেন। কেননা, আন্তর্জাতিক লবিংয়ে এখনই সরকারকে চাপে ফেলতে না পারলে বিএনপির আগামী রাজনীতি হুমকির মুখে পড়বে। কেন্দ্র থেকে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা দেখা দিতে পারে। যে কারণে অস্তিত্ব সঙ্কটে পড়তে পারে বিএনপি।

বিএনপির পক্ষ থেকে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে ‘অবৈধ’ বলে দাবি করা হলেও মূলত বর্তমান ক্ষমতাসীনদের পূর্ণ সমর্থন দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে একাত্ম হয়ে কাজ করছে বিশ্বের প্রভাবশালী দেশগুলো। ইতোমধ্যেই ভারত, রাশিয়া, চীন, জাপানের মতো শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলো সরকারকে সমর্থন দিয়ে বিভিন্ন বাণিজ্যিক চুক্তি সই করেছে; পাশাপাশি বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের আশ্বাস দিয়েছে। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপান, চীন, ব্রিটেনের সরকারপ্রধানদের আমন্ত্রণে রাষ্ট্রীয় সফর করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর এসব সফর সফলও হয়েছে বলে দাবি বিভিন্ন কূটনীতিকের। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে ইতোমধ্যেই ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ঢাকা সফর করেছেন। জাপানের প্রধানমন্ত্রীর সফরকে সবচেয়ে বেশি সফল বলে মন্তব্য করছেন দেশের বিভিন্ন কূটনীতিক। তাঁদের মন্তব্যÑ শিনজো আবের ঢাকা সফরের মাধ্যমে বাংলাদেশের সামনে বিরাট সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হলো। তাছাড়া ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে শিনজো আবের এ সফর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বড় ধরনের কূটনৈতিক সফলতা। যার একটি প্রভাব নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে আছে। বাংলাদেশের সঙ্গে একই সময় ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রাখছে ভারত, চীন ও রাশিয়া। সেখানে নতুন করে যুক্ত হচ্ছে জাপান। জাপানের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্কের নতুন যাত্রা শুরু হয়েছে স্বাধীনতার পর থেকে, জাপান বাংলাদেশকে ১১ বিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে। আর ২০১৪ সালেই প্রায় ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রতিশ্রুতি এসেছে।

এছাড়া ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পূর্ববর্তী-পরবর্তী রাজনৈতিক সঙ্কট উত্তরণে জাতিসংঘ, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করলেও সরকারের টনক নড়াতে পারেনি। সরকার তার শক্ত অবস্থান ধরে রেখে আন্তর্জাতিক মহলের সব চাপ উপেক্ষা করতে সক্ষম হয়েছে। সংবিধানমতে ক্ষমতাসীনরা তাদের অধীনে বিএনপিকে নির্বাচনে আনার চেষ্টা করেছে কিন্তু বিএনপি আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে নির্বাচনে যায়নি। আর দেশের সংবিধান অনুযায়ী সরকারের অধীনে নির্বাচনের নিয়ম থাকায় বিদেশি কূটনীতিকরা সরকারকে কোনো ধরনের চাপে ফেলতে পারেনি।

জানা যায়, বাংলাদেশে নির্বাচন নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত একে অপরের বিপরীতে ছিল। একপক্ষীয় নির্বাচনের বিরোধিতা করা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র শেষ পর্যন্ত ভারতের কাছে হেরে যায়। উল্লেখ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নির্দলীয় সরকারের অধীনে সব দলের অংশগ্রহণেই নির্বাচন চেয়েছিল।

ধারণা করা হয়, ভারতের কংগ্রেস আওয়ামী লীগের বন্ধু আর বিজেপি বিএনপির। তাই ভারতে মোদি সরকার গঠনের পর অনেকের প্রত্যাশা ছিল বিজেপি বর্তমান সরকারকে খুব একটা সহযোগিতা করবে না। কিন্তু ঘটনা এখন উল্টো; আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে পুরোদমে কাজ করছে বিজেপি সরকার।

এদিকে দেশের বর্তমান গুম, খুন, হত্যাকা-সহ রাষ্ট্রপরিচালনায় সরকারের ব্যর্থতার নানা বিষয়ের চিত্র সামনে তুলে এনে দেশব্যাপী আন্দোলন-সংগ্রামের পাশাপাশি বিদেশি শক্তির আনুকূল্যও পেতে আবারও ‘কূটনৈতিক মিশনে’ নেমেছে বিএনপি।

সূত্রমতে, কূটনৈতিক পর্যায়ে কাজ করতে বিএনপি পৃথক টিম গঠন করেছেÑ যাঁরা বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধির জন্য কাজ করবেন। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ড. এম ওসমান ফারুক, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান, সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, দলটির মানবাধিকারবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার নাসির উদ্দিন আহমেদ অসীম এবং জোটের শরিক এলডিপি চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমেদসহ আরও অনেকে এ টিমে রয়েছেন।

দলীয় সূত্রমতে, রাজধানীর একটি হোটেলে ব্যাংকক থেকে আগত দ্য ইকোনমিস্টের এক সাংবাদিকের সঙ্গে সম্প্রতি বৈঠক করেছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান ও বিএনপি নির্বাহী কমিটির সদস্য শ্যামা ওবায়েদ।

এদিকে অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদারের চেষ্টা চালাচ্ছে বিএনপি। তাই বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছে দলটি।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির এক নেতা বলেন, ‘দেশে আগাম নির্বাচন কিংবা মধ্যবর্তী নির্বাচন হবে কি-না, এ বিষয়টি অনেকটা নির্ভর করে প্রতিবেশী দেশ ভারতের ওপর। তাই ভারতের সহযোগিতা আমাদের দেশের গণতন্ত্র ও সব দলের অংশগ্রহণের নির্বাচনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া বিএনপির আন্দোলনেও একটি শক্ত বলয় গড়ে তুলতে হবে।’

এ বিষয়ে বিএনপির দায়িত্বশীল অনেক নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে তেমন কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে কেউ কেউ বলছেন, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক উন্নয়নে দল থেকে যথেষ্ট পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ ভোরের পাতাকে বলেন, ‘সারা বিশ্ব আজ এই সরকারের কর্মকা- দেখছে, তারা অবশ্যই সরকারের সব অনিয়মগুলো নিয়ে পর্যালোচনা করছে। আমরা আমাদের অবস্থান এবং সরকারের কর্মকা- বিশ্ববাসীর কাছে উপস্থাপন করে যাচ্ছি। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মহলের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক জোরদারে কাজ চলছে।’

এ বিষয়ে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘এই সরকার বৈধ নয়, তাই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তারা কারো সমর্থন পায়নি। আগামীতেও পাবে না। বিএনপির সঙ্গে সব দেশের সুসম্পর্ক অব্যাহত রয়েছে।