শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিপর্যয়ের আশঙ্কায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর

risk-buldingbrahmanbaria1ব্রাহ্মনবাড়িয়া শহরে ৬ তলার উপর ভবন নির্মান নিষিদ্ধ থাকলেও অবাধে নির্মিত হচ্ছে ৭ থেকে ১৪ তলা ভবন।নিয়ম নিতি ও আইনের তোয়ক্কা না করে তৈরি এসব ভবনগুলোকে অনুমোদন দিচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা।আবার কিছু ভবন আছে যেগুলোর একেবারেই অনুমোদন নেই। এসব ভবন তৈরির সময় দেওয়াল ভেঙ্গে নিহত ও আহত হচ্ছেন সাধারন মানুষ।ভবনগুলোতে নেই অগ্নিনির্বাপন ব্যাবস্থা। এর বিরুদ্ধে স্থানীয় অনেক সংঘঠন একাদিকবার প্রতিবাদ-মানববন্ধনও করেছে,কিন্তু তাতে কোন ফল হয়না।ছোট-খাট কোন ভূমিকম্প হলে ভবনগুলো হেলে পরার আশঙ্কা করছে সচেতন মহল।


জানা যায়,ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটির নিচে প্রচুর রিমানে গ্যাস থাকায় সরকারের পক্ষ থেকে বহুতল ভবন নির্মান নিষিদ্ধ করা হয়েছে।


শুধু ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরই নয়,আশুগঞ্জ ও আখাউড়া উপজেলা শহরেও এমন ভবনের সংখ্যা কম নয়।


ব্র্রাহ্মণবাড়িয়া ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়,কোন মফস্বল শহরে ভবন নির্মান করতে হলে ভবন মালিককে ফায়ার সার্ভিস হেড কোয়ার্টারে আবেদন করতে হয়।তখন হেড কোয়ার্টার সেই ভবন নির্মানে অগ্নিনির্বাপন ব্যাবস্থা ঠিক রাখছে কিনা সেটা যাচাইয়ের জন্য দায়ীত্ব দেয় সেই জেলা/শহরের ফায়ার সাভির্সকে।তখন সংশ্লিষ্ট ফায়ার সার্ভিস সব যাচাই বাচাই করার পর সঠিক মনে করলে হেড কোয়ার্টারকে জানাবে তারপর হেড কোয়ার্টার ফায়ার সার্ভিস আইনে সেই ভবনকে অনুমোদন দেবে।


কিন্তু ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বহুতল ভবনগুলো এই আইন ভঙ্গ করেই নির্মান করা হচ্ছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে বহুতল ভবন ও অনুমোদনহীন ভবনের সংখ্যা কত এব্যাপারে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার সহকারি প্রকৌশলি মোঃ কাউসার তার কোন সঠিক হিসেব দিতে পারেননি।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার নিবার্হী প্রকৌশলি জেড এম আনোয়ার(বর্তমানে বদলি হয়ে গেছে) প্রথমে কিছু জানেনা বললেও পরে ৬ তলার উপরে সব ভবন অবৈধ বলে স্বীকার করেন।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবড়িয়া পৌরসভার মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন বলেন,৬ তলা নয় আমরা ১০ তলা পর্যন্ত অনুমোদন দেওয়ার অধিকার রাখি।অবশ্য তার এ কথার পক্ষে তিনি কোন কাগজ পত্র দেখাতে পারেননি।তিনি বলেন আমি নিজে ১০ তলা পর্যন্ত অনুমোদন দিয়েছি।এর বেশি যে ভবনগুলো হয়েছে সেগুলো আমি দেইনি,দিয়েছে আগের মেয়র।