শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মহানবী (সা.)-এর রওজা সরানোর সিদ্ধান্ত নেয়নি সৌদি সরকার

nobi jiমহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা মোবারক স্থানান্তরের পরিকল্পনার খবরে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে মুসলমানদের মধ্যে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, সৌদি সরকার এ ধরনের কোনো পরিকল্পনা নেয়নি। মহানবী (সা.)-এর রওজা স্থানান্তরের উদ্যোগ নিয়ে যুক্তরাজ্যভিত্তিক ডেইলি মেইল ও ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকা সম্প্রতি সংবাদ পরিবেশন করে। অত্যন্ত স্পর্শকাতর এ খবরে মুসলমানদের মধ্যে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। ঢাকায় সৌদি দূতাবাস এ খবর নিয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, সৌদি সরকার এ ধরনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি। বরং রওজা স্থানান্তরের মতো অত্যন্ত স্পর্শকাতর ইস্যুকে পুঁজি করে পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় কালের কণ্ঠকে বলেন, সৌদি আরব বা মধ্যপ্রাচ্যের কোনো সংবাদমাধ্যমে এ বিষয়ে কোনো প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়নি। সৌদি সরকারও এ বিষয়ে কোনো ঘোষণা দেয়নি। পশ্চিমা ও অমুসলিমদের পরিচালিত সংবাদমাধ্যমে এ নিয়ে বিভ্রান্তিকর খবর পরিবেশন করা হচ্ছে। সারা বিশ্বে মুসলমানদের মধ্যে আন্তদ্বন্দ্ব সৃষ্টি করে বিশেষ কোনো মহল এর সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করছে বলে মনে করা হচ্ছে। ওই কর্মকর্তা আরো জানান, সৌদি বাদশাহ পবিত্র দুই মসজিদের হেফাজতকারী। তিনি সারা বিশ্বের মুসলমানদের পক্ষে পবিত্র দুই মসজিদ হেফাজত করে থাকেন। সম্প্রতি গাজায় ইসরায়েলি বর্বরতা ও গণহত্যার সময় দৃশ্যত নির্লিপ্ত অবস্থানের কারণে সৌদি সরকার সারা বিশ্বে মুসলমানদের সমালোচনার শিকার হয়েছে। এটি সৌদি আরবেরও অজানা নয়। এখন মহানবী (সা.)-এর রওজা স্থানান্তরের মতো স্পর্শকাতর কোনো প্রস্তাব সৌদি বাদশাহ অনুমোদন করবেন- এমন ভাবনা অবান্তর। উর্দু ভাষায় প্রকাশিত পাকিস্তানের জাতীয় দৈনিক উম্মাতে গতকাল বুধবার সৌদি সরকারি সূত্রগুলোর বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, খবরটি ভিত্তিহীন। রওজা স্থানান্তর নিয়ে লন্ডনভিত্তিক পত্রিকা ইনডিপেনডেন্ট ও ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনের সঙ্গে সৌদি সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই। দেশটির সরকার এ ধরনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি, নেওয়ার পরিকল্পনাও নেই। সৌদি সরকার যে এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি তার উল্লেখ রয়েছে রওজা স্থানান্তর বিষয়ে প্রথম সংবাদ পরিবেশনকারী দুটি ব্রিটিশ পত্রিকাতেও। ডেইলি মেইল পত্রিকায় গত ২ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত শিরোনামে প্রশ্ন করা হয়েছিল- ‘সৌদি আরব কি নবী মুহাম্মদের রওজা সরিয়ে নেবে?’ ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রওজা স্থানান্তরের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে এ ধরনের পরিকল্পনা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে প্রচার করা হয়েছে। ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে সূত্র হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে যুক্তরাজ্যের ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকার নাম। এর আগে ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকা মসজিদে নববীর তত্ত্বাবধায়কদের মধ্যে বিলি করা ৬১ পৃষ্ঠার একটি নথির বরাত দিয়ে খবর পরিবেশন করে। ডেইলি ইনডিপেনডেন্টের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, ৬১ পৃষ্ঠার নথিতে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা মসজিদে নববীর কাছে জান্নাতুল বাকি কবরস্থানে স্থানান্তরের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। ওই কবরস্থানের অন্য কবরগুলোর মতো মহানবীর কবরেরও কোনো চিহ্ন না রাখার সুপারিশ করা হয়েছে ওই নথিতে। ইসলামিক হেরিটেজ রিসার্চ ফাউন্ডেশনের পরিচালক ড. ইরান আল-আলাবি ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকাকে বলেছেন, ‘হাজীরা মহানবী (সা.)-এর রওজা জিয়ারত করুন- এটা তাঁরা চান না। কারণ তাঁরা বিশ্বাস করেন, এটি শিরক।’ ড. ইরান বলেন, ‘মহানবী (সা.)-এর রওজায় যাওয়া থেকে মুসলমানদের থামানোর একমাত্র পথ হলো তাঁর রওজা সরিয়ে কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া।’ ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকা এর আগেও মদিনায় ঐতিহাসিক ইসলামী নিদর্শনগুলো ধ্বংসের অভিযোগ তুলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। ২০১২ সালের ২৬ অক্টোবর পত্রিকাটিতে প্রকাশিত প্রতিবেদনের শিরোনাম ছিল- ‘মদিনা : সৌদিস টেক আ বুলডোজার টু ইসলামস হিস্ট্রি’। ওই প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয়েছিল, মসজিদে নববীতে নামাজ পড়ার জায়গা বাড়াতে গিয়ে আশপাশের ঐতিহাসিক মসজিদগুলো ভেঙে ফেলা হচ্ছে। ওই প্রতিবেদনেও ইসলামিক হেরিটেজ রিসার্চ ফাউন্ডেশনের পরিচালক ড. ইরান আল-আলাবির উদ্ধৃতি স্থান পেয়েছিল। প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয়েছিল, নামাজের কাছাকাছি সময় মুসলমানরা মহানবীর রওজা জিয়ারত করতে গেলে সৌদি আরবের ধর্মীয় পুলিশ তাদের বাধা দেয়। প্রভাবশালী ধর্মীয় নেতারা ধর্মীয় ঐতিহাসিক স্মৃতিচিহ্নগুলো ধ্বংস করছেন। ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকায় প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে এ ধরনের অভিযোগ নাকচ করে সৌদি কার্টুন অ্যান্ড অ্যানিমেশন সোসাইটির চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ সায়েল বলেছিলেন, সৌদি জনগণ নয়, ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকা বুলডোজার ব্যবহার করছে। ইহুদিদের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুললেন আলেম-ওলামারা : মহানবী (সা.)-এর রওজা মোবারক সরিয়ে ফেলার প্রস্তাবের বিরুদ্ধে সোচ্চার বাংলাদেশের বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠন। এ ধরনের কোনো পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে তারা বলেছে, এমন সংবাদ পরিবেশন ইহুদিদের ষড়যন্ত্র। ওই সংগঠনগুলোর মতে, সাম্প্রতিক সময়ে ইসরায়েল যেভাবে ফিলিস্তিনের জনগণের ওপর বর্বরোচিত হামলা চালিয়েছে, তা থেকে দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরাতেই এ ধরনের অসম্ভব ও অবাস্তব বিষয় নিয়ে কল্পকাহিনীর প্রচারণা চালানো হচ্ছে। হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা মনে করি, মহানবী (সা.)-কে নিয়ে কোনো ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে চাইলে সে বিষয়ে সৌদি আরবের পত্রপত্রিকায় আগে খবর আসবে। এ বিষয়ে অন্য দেশের পত্রিকার খবর আমলে নেওয়ার সুযোগ নেই।’ তিনি বলেন, বিশ্ব মুসলমানদের দৃষ্টি অন্যদিকে ঘোরানোর জন্যই যুক্তরাজ্যের পত্রিকায় এমন সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ইসলামের দৃষ্টিতে মহানবী (সা.)-এর রওজা মোবারক সরিয়ে ফেলার কোনো বিধান নেই। তাই কেউ এটা চাইলেও করতে পারবে না। এদিকে রওজা স্থানান্তর সম্পর্কিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে সৌদি সরকারের কাছে ব্যাখ্যা চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত। গতকাল সংগঠনটি চট্টগ্রামে সংবাদ সম্মেলন করে বলেছে, এ বিষয়ে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সৌদি কর্তৃপক্ষের কোনো বিবৃতি না পেলে আগামী রবিবার তারা ঢাকায় সৌদি আরবের দূতাবাস ঘেরাও করবে। ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী কালের কণ্ঠকে বলেন, এগুলো ইহুদিদের আন্তর্জাতিক চক্রের ষড়যন্ত্র। ইসলাম সম্পর্কে তাদের অপপ্রচার। এসব খবরের কোনো ভিত্তি নেই। তিনি বলেন, এটা কোনো দিনই সম্ভব নয়।