মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় বাংলাদেশ (ভিডিও)

BD Cricket---না, ব্যর্থতার গ-ি থেকে বেরোতে পারেননি মুশফিকুর রহিম ও তার দলবল। স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচেও হেরেছেন তারা। ডোয়াইন ব্র্যাভোর দলের কাছে এবার মুশফিকরা হেরেছেন ৯১ রানে। স্বাগতিকদের দেওয়া ৩৩৯ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করে বাংলাদেশের ইনিংস শেষ হয়েছে ৮ উইকেটে ২৪৭ রান তুলে। ফলে সিরিজের তিনটি ম্যাচই হেরে ‘ক্যারিবীয়ওয়াশ’ হয়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। সঙ্গে দেশকে ডুবিয়েছেন হোয়াইটওয়াশের লজ্জায়।
সোমবার সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্ক স্টেডিয়ামে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। টসে জিতে এই ম্যাচে আগে ব্যাট করেছে স্বাগতিকরা। বলা হয়ে থাকে, ওয়ার্নার পার্কের পিচ ব্যাটসম্যানদের জন্য স্বর্গের আশীর্বাদ। কারণ এটা ব্যাটিং সহায়ক উইকেট। তবে মাত্র ১২ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দুই ওপেনার ল্যান্ডল সিমন্স ও মারকুটে ক্রিস গেইলকে আউট করে এই কথা মিথ্যা প্রমাণ করারই ইঙ্গিত দিয়েছেন বাংলাদেশের বোলাররা। সিমন্সকে ক্রিজছাড়া করেছেন পেসার মাশারফি বিন মর্তুজা। আর গেইলকে সাজঘরের পথ দেখিয়েছেন পেসার আল-আমিন হোসেন। তবে বাংলাদেশী বোলারদের বীরত্ব এখানেই থেমে গেছে। তৃতীয় উইকেট জুটিতে ড্যারেন ব্র্যাভো ও দিনেশ রামদিন ধীরেসুস্থে বিপদ সামলে এক সময় ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছেন। বাংলাদেশী বোলারদের বেধড়ক পিটুনি দিয়ে দু’জনই ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরির মুখ দেখেছেন। সঙ্গে গড়েছেন তৃতীয় উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ ২৫৮ রানের রেকর্ড পার্টনারশিপ। ৭ বাউন্ডারি আর ৮ ছক্কায় ১২৭ বলে ব্র্যাভো করেছেন ১২৪ রান। আর রামদিন ১২১ বল মোকাবেলায় ৮ বাউন্ডারি ও ১১ ছক্কায় করেছেন ১৬৯ রান। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গড়েছে ৩৩৮ রানের বিশাল সংগ্রহ। বাংলাদেশের পক্ষে আল-আমিন ১০ ওভার বল করে ৫৯ রান খরচায় সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নিয়েছেন।
 
জয়ের জন্য বিরাটাকায় রানপাহাড়ের নীচে চাপা পড়ায় বাংলাদেশের হোয়াইটওয়াশ নিশ্চিতই হয়ে পড়েছিল। ওপেনার এনামুল হক বিজয় ও ওয়ানডাউনে নামা ইমরুল কায়েস দলীয় ২ রানে সাজঘরের পথে হাঁটতে শুরু করায় হোয়াইটওয়াশের লজ্জা ত্বরান্বিত হয়েছে। যদিও ওপেনার তামিম ইকবাল ও অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ৯৯ রানের পার্টনারশিপ গড়ে আশা জাগিয়েছেন। তবে ক্যারিয়ারের ১৫তম হাফসেঞ্চুরি করেই তামিম তার দায়িত্ব শেষ করেছেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্পিনার সুনিল নারাইনের বলে সরাসরি বোল্ডআউট হয়ে ক্রিজ ছেড়েছেন ব্যক্তিগত ৫৫ রানে। দলীয় ১০১ রানে তৃতীয় উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ।
এই ম্যাচে দলে সুযোগ পেয়েছেন মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক। তাকে মূল একাদশে রাখার জন্য সুপারিশ করেছেন ক্রিকেট বোদ্ধাদের অনেকেই, মিডিয়াতে লেখালেখি হয়েছে বিস্তর। তবে এ সব করা যে উচিত হয়নি, তা প্রমাণ করতেই যেন মুমিনুল ক্রিজে এসে ১৩ বল খেলে ব্যক্তিগত ৫ রান করেই ড্রেসিংরুমের দিকে হাঁটা দিয়েছেন। দলীয় ১০৮ রানে চতুর্থ উইকেটের পতন হয়েছে বাংলাদেশের।
মুশফিক আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৫৫ রানের পার্টনারশিপ গড়েছেন। ব্র্যাভো-রামদিনের পথ ধরে সেন্ট কিটেসে বাংলাদেশের অধিনায়কও সেঞ্চুরি করতে পারেন এমন সম্ভাবনাও জেগেছে। কিন্তু আশা জাগিয়ে আশা ভঙ্গ করাই বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের স্বভাব! মুশফিকও তাই ব্যক্তিগত ৭২ রানে রবি রামপালের বলে ক্যাচ দিয়েছেন এই ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে প্রত্যাবর্তন করা ড্যারেন সামিকে। দলীয় ১৬৩ রানে পঞ্চম উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ।
মুশফিক যখন আউট হয়েছেন তখন ম্যাচের বাকি আর মাত্র ১৩ ওভার, ম্যাচ জিততে বাংলাদেশের প্রয়োজন ১৭৫ রান। অর্থ্যাৎ ওভারপ্রতি ১৩.৪৬ গড়ে রান তুলতে হবে বাংলাদেশকে। অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত কিংবা শ্রীলঙ্কা হলে তখনও ম্যাচ জেতার আশা রাখা যায়। কারণ তিন শতাধিকের উপরে রান তাড়া করে হরহামেশাই ম্যাচ জিততে পারে এ সব দল। কঠিন পরিস্থিতিতে পেশাদারী মনোভাব দেখিয়ে ম্যাচকে নিজ আনুকূল্যে টেনে আনতে পারে তাদের ক্রিকেটাররা। কিন্তু বাংলাদেশ দলে তেমন ক্রিকেটার কোথায়? হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জা তাই ম্যাচে শেষ হওয়ার অনেক আগেই মেনে নেওয়ার প্রস্তুতি নিতে হয়েছে বাংলাদেশকে।
শেষ চেষ্টা বলে একটা কথা আছে; হোয়াইটওয়াশের লজ্জা এড়ানোর সেই চেস্টাই করেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (২৭ রান), নাসির হোসেন (২৬ রান), সোহাগ গাজী (২৪ রান) ও মাশরাফি বিন মর্তুজারা (হার না মানা ১৫ রান)। তাদের মিলিত চেষ্টায় নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৪৭ রান তুলতে পেরেছে বাংলাদেশ। ৯১ রানে ম্যাচ জিতে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সিরিজের তিন ম্যাচ হেরে ডোয়াইন ব্র্যাভোর দলের কাছে হোয়াইটওয়াশ হতে হয়েছে মুশফিকুর রহিমদের।
জাতীয় দলের ক্রিকেটাদের একের পর এক দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যর্থতার কারণে বিশ্ব ক্রিকেটে বাংলাদেশ এখন এক লজ্জামিশ্রিত নাম। মাঠের খেলায় ক্রিকেটাররা খারাপ করেন, আর তার মাসুল হিসেবে পুরো জাতিকে পুড়তে হয় হতাশার আগুনে। মুশফিকরা দেশ ও জাতিকে এই হতাশা থেকে মুক্তি দিতে পারেন কিনা, তা দেখার জন্য থাকতে হচ্ছে দুই দেশের মধ্যকার আসন্ন একমাত্র টোয়েন্টি২০ ম্যাচ ও দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজটা শুরুর অপেক্ষায়।
 
https://www.youtube.com/watch?v=7s7V_lsll_I