বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ওজন কমান এক মাসে ৫-৭ কেজি

ojon-300x245এ কথা সবারই জানা, মেদবাহুল্য কিংবা বাড়তি ওজন শরীরে নানা সমস্যার সৃষ্টি করে। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, মেদবাহুল্য শরীরের নানা স্বাস্থ্য সমস্যাকে উস্কে দেয় এবং ক্যানসার সৃষ্টির নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। মেদাধ্যিক্যের কারণে শরীরে বিশেষ কিছু হরমোনের নিঃসরণ বেড়ে যায়, যার ফলে সূচিত হয় ক্যানসার সৃষ্টির প্রক্রিয়া।ওজন কমানোর বিষয়টি এখন অনেকের কাছেই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানেন না কীভাবে এই কাজটি করতে হবে। ওজন কমানোর জন্য খাদ্য নিয়ন্ত্রণ এবং ব্যায়াম একই সঙ্গে চালানো উচিত। খাদ্য নিয়ন্ত্রণের জন্য খাবারের তালিকা এবং ব্যায়াম কেমন হবে তা বয়স, ওজন এবং বিদ্যমান রোগের ওপর নির্ভর করে নির্ধারিত হয়ে থাকে।

ডায়েটিং করতে গিয়ে অনেকেই দরকারি সব খাবার বাদ দিয়ে এক রকম অনাহারে দিন কাটানোর চেষ্টা করেন। এত কষ্ট হয়। এক সময় দেখা যায়, রণেভঙ্গ দিয়ে আবার যেমন ছিল তেমন। কাজেই ডায়েটিংয়ের আগে আপনি ডায়েটচার্ট মেনে চলবেন, এই প্রতিজ্ঞাতে স্থির থাকতে হবে। ডায়েটিং করছি আর যখন তখন চকলেট, আইসক্রিম, শিঙ্গাড়া খাচ্ছি তা চলবে না। কিছুই খাচ্ছিনার নাম করে দেখা যায় দিনের মধ্যে পাঁচ-ছয় কাপ চা খাচ্ছি চিনি দিয়ে, তেলে খাবার খাচ্ছি। আলুভর্তা গরুর মাংস কিংবা ফিরনি পায়েস খেয়ে ভাবছি একটু আদটু খেলে কিছু হবে না। এমনটি হলে ডায়েটিং সিকেয় উঠবে।
 ডায়েটিং করতে হলে মাইন্ড সেটআপ দরকার। আমি যা নিষেধ খাব না। আমি চিনি, ঘি খাব না, ভাত, তেল কম খাব, প্রচুর সবজির আইটেম খাব। দরকারমতো হাঁটব। কেউ একটু কিছু সাধলেই খাব না। ব্যস এইটুক হলেই ডায়েটিং সফল হবে।
ধরা যাক কারও বয়স ৩০-৫০ বছর। ওজন ৬০-৭০ কেজির মধ্যে। কোনোরকম রোগ নেই। এক মাসের মধ্যে বাড়তি ওজনের পাঁচ থেকে সাত কেজি কমানো দরকার। এ অবস্থায় দরকারি খাদ্য তালিকাটি এরকম।
 সকাল সাতটা
এক গ্লাস কুসুম গরম পানি, ছোট্ট এক টুকরো লেবু, এক চা-চামচ মধু ও আধা চা-চামচ কালোজিরা এক সঙ্গে মিশিয়ে পান করতে হবে।
 সকাল আটটা
প্রতিটি ২০ গ্রাম ওজনের লাল আটার দুটি রুটি, আলু কচু গাজর ছাড়া এবং রসুন সহযোগে সবজি দিয়ে তৈরি নিরামিষ।
 বেলা ১১টা
মৌসুমি টক জাতীয় ফলের সালাদ অথবা কম পানি দেওয়া ২০০ মিলি ফলের জুস।
দুপুর ২টা
সপ্তাহে চার দিন ভাত এক কাপ (২০০ গ্রাম), শাকসবজি, লেবু, করল্লা ভর্তা, রান্না করা সামুদ্রিক মাছ (৩০ গ্রাম) অথবা পাতলা চামড়াযুক্ত মাছ, সালাদ।
সপ্তাহের বাকি তিন দিন পাতা সবজিযুক্ত সবজি খিঁচুড়ি, সালাদ। প্রতিদিনই ভাত/খিচুড়ির তিনগুণ পরিমাণ সালাদ খেতে হবে।
 বিকেল ৪টা
২৫০ মিলি সবজি স্যুপ অথবা টক দইয়ের লাচ্ছি।
 রাত ৮টা
মুড়ি ছোট এক বাটি, সবজি, ডাল অথবা রুটি একটি, সবজি, ডাল অথবা চিড়া, দই ও একটি ফল।
ঘুমানোর আগে
এক গ্লাস পানিতে দুই চা-চামচ ইসবগুলের ভুসি মিশিয়ে খেতে হবে।
প্রতিবেলা খাবার গ্রহণের আগে এক গ্লাস
পানি পান করতে হবে।
নিয়মিত দুই বেলা অধাঘণ্টা করে হাঁটতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর