মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া হাসপাতালে দরপত্র জমাদানে বাধা দেয়ার অভিযোগ

Hospital

প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা সদর হাসপাতালের একটি সরবরাহ কাজের দরপত্র জমাদানে বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে স্থানীয় ঠিকাদারদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বুধবার সকালে হাসপাতাল প্রাঙ্গনে এ ঘটনা ঘটে।
 ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি ও মেসার্স এ হোসেন এন্টারপ্রাইজের সত্ত্বাধিকারি মনির হোসেন টিপু জানান, গত ২৫ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালের খাবার, জনবল, মনোহরি সামগ্রী সরবরাহ ও লিলেন ধৌতকরন সম্পর্কিত ৪টি দরপত্র জমাদানের শেষ দিনে সরকার দলীয় কয়েকজন নেতারা ক্যাডারদের দিয়ে পাহারা বসিয়ে কাজ বাগিয়ে নেয়। কর্তৃপক্ষ ৩টি কাজের অনুমোদন দিলেও মনোহরি সামগ্রী সরবরাহের জন্য ২৭ জুলাই পুনঃদরপত্র আহবান করেন। এ কাজে দরপত্র সংগ্রহের শেষ দিন গত মঙ্গলবার পর্যন্ত ১৯টি দরপত্র বিক্রি হয়।
বুধবার দরপত্র জমাদানের শেষ দিনে সকাল থেকেই জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমদের পরিচয় দানকারী অনুসারীরা হাসপাতাল চত্বরে পাহারা বসায়। এসময় ঠিকাদারদের দরপত্র জমাদানে বাঁধা দেয়া হয়। আমিও সকাল সাড়ে ১১টায় দরপত্র জমা দিতে গেলে কয়েক যুবক সেখানে উপস্থিত পুলিশের সামনেই দরপত্র ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালায়। জমাদানে বাঁধা দেয়। আমি দায়িত্বরত পুলিশকে বারবার বললে তারা কিছুটা এগিয়ে আসলে আমি দরপত্র জমা দেই।
তবে সাধারন ঠিকাদাররা বাধার কারণে, লাঞ্চিত হবার ভয়ে দরপত্র জমা না দিয়েই ফিরে যান। এসময় বাধা দেয়া যুবকেরা কয়েকজন নেতার নাম উল্লেখ করে কথা বলতে বলেন আমাকে। তিনি আরো জানান, বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ১৯টি দরপত্রের মধ্যে মাত্র ৬টি দরপত্র জমা পড়লেও একটি বাতিল হয়ে ৫ টি দরপত্র টিকে আছে। দুইবার টেন্ডার আহবান করেও ঠিকাদাররা দরপত্র জমা দিতে না পারায় তাদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে।
এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ঠিকাদার দরপত্র জমা দিতে না পেরে ক্ষোভের সাথে জানান, হাসপাতালে সকল কাজ জেলা যুবলীগের প্রভাবশালী নেতা মোস্তাক নিয়ন্ত্রন করছে। তাকে না জানিয়ে কোন টেন্ডার জমা দানে করতে দেয়া হচ্ছে না।
 
জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ জানান, আমি এ বিষয়ে কোন কিছুই জানিনা। আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।