মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রীর মুখে এত দুর্গন্ধ! (ভিডিও)

syed-mohsin-on-journalist-300x172ডেস্ক রির্পোট : সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় হচ্ছে দেশের অন্যতম বৃহত্তম জাতি গঠনমূলক প্রতিষ্ঠান। আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি সমাজের প্রতিটি নাগরিককে মানবসম্পদে পরিণত করাই যার কাজ।কিন্তু এই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে রয়েছেন এমন একজন ব্যক্তি যার মুখ ভরা দুর্গন্ধ। তিনি হচ্ছেন সৈয়দ মহসীন আলী। আমাদের সমাজকল্যাণ মন্ত্রী। যার প্রধান কাজ হওয়া উচিত কল্যাণমূলক বিষয় নিয়ে প্রতিনিয়ত ভাবা। সমাজকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলা।কিন্তু এর পরিবর্তে তার মুখ থেকে বেরিয়ে আসছে এমন কিছু কথা যা পুরো সমাজকে দুর্গন্ধময় করে তুলছে। বিষাক্ত করে তুলছে সামাজিক পরিবেশকে।৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর মন্ত্রিত্ব পান সৈয়দ মহসীন আলী। এরপর থেকেই বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নানা সমালোচনা ও বিতর্কের জন্ম দিয়ে আসছেন এই মন্ত্রী। গণমাধ্যমকর্মীদের নিয়ে তিনি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরনের আপত্তিকর বক্তব্য দিয়েছেন।

 সর্বশেষ শনিবার সিলেটের একটি অনুষ্ঠানে তিনি সাংবাদিকদের নিয়ে এমন অশালীন বক্তব্য দিয়ে বসলেন, যা নিয়ে মিডিয়া অঙ্গনসহ সারাদেশে চলছে তোলপাড়।
 এদিন সিলেটে আদিবাসী দিবস উপলক্ষে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় বক্তৃতাকালে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নিজেকে উন্মোচন করেন। বক্তৃতার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলেন তার ব্যক্তিত্ব। আর এই ব্যক্তিত্ব ফুটাতে গিয়ে তিনি এমন দুর্গন্ধ ছড়িয়েছেন যা শুধু সিলেট নয়, যেন পুরো দেশকেই দুর্গন্ধময় করে তুলেছেন।
 বক্তৃতায় জনসম্মুখে এমনকি মিডিয়ার সামনেই ‘পাছায় বাশ’ বাল ছিঁড়া’র মত অশ্লীল ও নোংরা শব্দ চয়ন করেছেন এই অদ্ভূত মন্ত্রী।
বাংলাদেশের ইতিহাসে সৈয়দ মহসিন আলীর মতো আর কেউ এমন অশ্লীল বক্তৃতা করেছেন বলে কোনো নজির খুঁজে পাওয়া যায় না।
 তিনি অনুষ্ঠানের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সাংবাদিকদের সম্পর্কে বিষোদগার করেন। মঞ্চে উঠে মাইক হাতে নিয়েই তিনি সাংবাদিকদের অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করতে বলেন। বলেন, ‘সর সরৃতোমাদের মুখ দেখতে আসি নাই’। কিন্তু পেশাগত দায়িত্ব পালনের কারণে সাংবাদিকরা স্থান ত্যাগ না করায় মন্ত্রী ক্ষেপে যান।
 এ সময় সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, ‘সাংবাদিকদের ঠিক করতে নীতিমালা হয়েছে। ওই দিন কেবিনেট মিটিংয়ে আমি থাকলে সাংবাদিকদের ৃৃ (অশালীন শব্দ) দিয়ে বাঁশ ঢুকাতাম। সাংবাদিকদের এখন এমনভাবে ঠিক করা হবে যে, নিজের স্ত্রীকে পাশে নিয়েও শান্তিতে ঘুমাতে পারবে না। সাংবাদিকরা বদমাইশ, খবিশ, চরিত্রহীন, লম্পট।’
 আদিবাসী দিবস নিয়ে অনুষ্ঠান হলেও পুরো ৪০ মিনিটের বক্তব্যে মন্ত্রী ঘুরেফিরে সাংবাদিকদের সমালোচনা করেন।
 সাংবাদিকেরা ‘যা ইচ্ছে তা-ই লেখে’ দাবি করে তিনি বলেন, ‘এরা কেউ জার্নালিজম পড়ে সাংবাদিক হয়নি। একমাত্র আমার মেয়ে জার্নালিজমে এমএ করেছে। আর এরা কলেজে ঘোরাঘুরি করে সাংবাদিক বনে গেছে।’
কিছুদিন আগে শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ধূমপান এবং টাঙ্গাইলের যৌনপল্লি উচ্ছেদের বিরোধিতাকারীদের নিয়ে কটূক্তি করেও সমালোচনার মুখে পড়েন এই মন্ত্রী।
 সমাজকল্যাণমন্ত্রীর একের পর এক এমন দায়িত্ব জ্ঞানহীন বক্তব্যে সারাদেশে সমালোচনার ঝড় বইছে। গণমাধ্যমের পাশাপাশি তোলপাড় চলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও। সবার একই প্রশ্ন একজন মন্ত্রী হয়েও কিভাবে তিনি জনসম্মুখে এ ধরনের বক্তব্য দেন।
 সচেতন মহলের অভিমত, একটি দেশ পরিচালনার দায়িত্ব থাকে জাতীয় সংসদের এইসব মন্ত্রীদের হাতে। যারা সমাজ ও দেশ নিয়ে ভাবে। দেশের মানুষ নিয়ে ভাবে। সমাজ ও সমাজের মানুষকে সঠিক পথে পরিচালিত করতে তারা জাতীয় সংসদে বসে বিভিন্ন নীতিনির্ধারণ করেন।
জাতীয় সংসদের জনপ্রতিনিধিদের মধ্যেও বিভিন্ন শ্রেণি রয়েছে, যেমন: রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, এমপি। এসব পদবির মধ্যে মন্ত্রী শীর্ষ স্থানীয় একটি পদ। অথচ সেই পথে থেকে সমাজকল্যাণমন্ত্রী যে ধরনের অশালীন বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন তা নিশ্চয়ই দেশ ও জাতির জন্য কলঙ্কজনক।

আমাদের সময়.কম

https://www.youtube.com/watch?v=FNg_LHQZuaM

এ জাতীয় আরও খবর

মেয়রের সামনে কাউন্সিলরকে জুতাপেটা করলেন চামেলী!

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন

নির্বাচনের পর আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে সরকার : ফখরুল

২৪ উপজেলায় ইভিএমে ভোট হবে মঙ্গলবার

এলজিইডি’র সেই প্রকৌশলীর স্ত্রীরও ৬ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ!

রাইসির হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় আমরা জড়িত নই: ইসরায়েলি কর্মকর্তা

কঠোরভাবে বাজার মনিটরিংয়ের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

‘গিভ অ্যান্ড টেকের অফার অনেকেই দেয়, মেডিকেলের স্যারও দিয়েছিল’

বিয়ের পর আমার কাজের মান ভালো হয়েছে

৪ দিনেও খোঁজ মেলেনি ভারতে নিখোঁজ এমপি আনারের

বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক দেবে সরকার, পুরস্কার কোটি টাকা ও স্বর্ণ পদক

অটোরিকশা চালকদের তাণ্ডবের ঘটনায় ৪ মামলা, আসামি প্রায় ২৫০০