শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চুপিসারে আখাউড়া উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠন

BNP

বিশেষ প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা বিএনপির কমিটি চুপিসারে গঠন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নতুন এই কমিটিতে আগের সেই পুরনোদেরকেই বহাল রাখা হয়েছে।
উপজেলা বিএনপির আগের কমিটির সহসভাপতি শেখ মোশাররফ হোসেন মারুফ ইতোমধ্যেই অগণতান্ত্রিকভাবে গঠিত এই কমিটি প্রত্যাখান করে বিবৃতি দিয়েছেন।
বিবৃতিতে তিনি বলেন, এবার উপজেলা বিএনপির কমিটি করতে সকল স্তরের নেতা-কর্মীদেরকে আমন্ত্রণই জানানো হয়নি। ওই সম্মেলনে সব মিলিয়ে শ’দেড়েক নেতা-কর্মীও উপস্থিত ছিলেন না। সম্মেলন স্থলে আসা অনেক নেতাকর্মীই এ ধরণের আয়োজন কারা করেছে এ নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।
উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন ও পৌর শাখার সকল তৃণমূূল নেতাকর্মীর দাবি, দলের স্বার্থে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করতে হবে। এ ধরণের সিদ্ধান্ত দলের জন্য আত্মঘাতিমূলক হতে পারে। নতুন করা এই কমিটি বহাল থাকলে দলের ভবিষ্যত নেতৃত্ব বলে কিছু থাকবে না।
জানা যায়, স্থানীয় কলেজ পাড়ার বাঁধন কমিউনিটি সেন্টারে আগের কমিটির সভাপতি ও সম্পাদককে স্ব স্ব স্থানে রেখেই উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সাধারণত উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন কিংবা সড়ক বাজার মোটরস্ট্যান্ডে বড় রাজনৈতিক দলগুলোর সম্মেলন হলেও এক্ষেত্রে স্থান নির্ধারণে বিএনপি ছিল ব্যতিক্রম।
বুধবার দুপুরে অনুষ্ঠিত সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো.  মুসলেহ উদ্দিন। জেলা বিএনপির আহবায়ক হাফিজুর রহমান মোল্লা এতে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্যে রাখেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক গোলাম সারোয়ার, মো. শফিকুল ইসলাম, জিল্লুর রহমান। জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মো. জহিরুল হক প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
পরে সন্ধ্যায় জেলা বিএনপির আহবায়ক হাফিজুর রহমান মোল্লার সভাপতিত্বে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে আখাউড়া উপজেলা ও পৌর বিএনপি’র সভাপতি, সম্পাদক নির্ধারণ করা হয়। এতে উপজেলা বিএনপির সভাপতি হিসেবে মো. মুসলেহ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আবুল মুনসুর মিশন, পৌর বিএনপির সভাপতি পদে মো. বাহার মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক পদে শাহাদৎ হোসেন লিটনকেই বহাল রাখেন।
এদিকে আখাউড়া উপজেলা বিএনপির শীর্ষ নেতারা বলছেন, সরকারি দলের ‘ঝামেলা’ এড়াতেই এমন অনাড়ম্বরভাবে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।
উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আবুল মুনসুর মিশন বলেন, ‘বড় আকারের আয়োজন করলে ঝামেলার সৃষ্টি হতে পারতো। সরকারি দল থেকেও বাঁধা আসতে পারে। এছাড়া পুলিশের অনুমতি নেওয়ার একটা ব্যাপার থাকে। এসব কথা চিন্তা করে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়িই সাদামাটা আয়োজন করা হয়’।
অন্যদিকে এমন চুপিসারে গঠন করা কমিটিকে অগণতান্ত্রিক আখ্যা দিয়ে আগের কমিটির সহসভাপতি শেখ মোশারফ হোসেন মারুফ বলেন, ‘আমাদেরকে উপস্থিত থাকতে বলা হলেও সম্মেলন করার কথা বলা হয়নি। সম্মেলনের আয়োজন করা  হলে আরো জাঁকজমকপূর্ণভাবে করা উচিত ছিল। কয়েকজনকে ডেকে পকেট কমিটি করা দলের জন্য মঙ্গল নয়।