বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘুষ গ্রহনকারী সিভিল সার্জন নারায়ন পুলিশ প্রহরায় পার

pic civil sergon 1আমিরজাদা চৌধুরী:নিয়োগে ঘুষ-দূর্নীতির অভিযোগে ওএসডি হওয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. নারায়ন চন্দ্র দাস পুলিশ প্রহরায় গতকাল সোমবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ত্যাগ করেছেন। এর আগে ঘুষের টাকা ফেরত পাওয়ার জন্যে চাকুরী প্রার্থীরা তার বাসভবন অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ করছিল। ২৪ শে জুলাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিভিল সার্জন অফিসের অধীনে স্বাস্থ্য বিভাগে ১৭২ জনের নিয়োগের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হয়।ঐদিন থেকেই কর্মস্থলে অনুপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন নারায়ন চন্দ্র দাশ। এই নিয়োগে ব্যাপক ঘুষ-দূর্নীতির অভিযোগ উঠলে রোববার স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় তাকে ওএসডি করে।এদিকে নারায়ন চন্দ্র দাশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া এসেছেন এবং বাসায় অবস্থান করছেন এই  খবর পেয়ে রোববার রাতে তাকে ঘুষ প্রদানকারী চাকুরী প্রার্থীরা তার বাসভবনে ভীড় করেন এবং ঘুষের টাকা ফেরত পাওয়ার জন্যে অবরুদ্ধ করেন। প্রত্যক্ষদর্শী সুত্র জানায়,এসময় ২/১ জন চাকুরী প্রার্থী জুতা হাতে আঘাত করার জন্যে তেড়ে যান তার দিকে। একজন তার দিকে ঝাড়– ছুড়ে মারেন। এসময় সেখানে উপস্থিত ১২/১৩ জন চাকুরী প্রার্থীর কাছ থেকে সাড়ে ১৬ লাখ টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করে পরদিন অর্থাৎ গতকাল সকালে টাকা ফেরত দেয়ার আশ্বাস দেন সিভিল সার্জন নারায়ন চন্দ্র দাশ। এসময় তিনি উপস্থিত চাকুরী প্রার্থীদের কাছে স্বীকার করেন,টাকা নিয়েও চাকুরী দিতে পারেননি বলে তার মোট ১ কোটি টাকা ফেরত দিতে হবে।প্রতিশ্র“তি মতো ঘুষ প্রদানকারী চাকুরী প্রার্থীর গতকাল সকালে সিভিল সার্জনের বাসায় ভীড় করেন। কিন্তু এর আগেই সদর মডেল থানা পুলিশের একটি দল তার বাসায় অবস্থান নেয়। চাকুরী প্রার্থীরা ঘুষের টাকা ফেরত পাওয়ার জন্যে তার বাসা ঘিরে বিক্ষোভ করতে থাকে। এসময় সিভিল সার্জনের বাসার এমএলএসএস নজরুল ইসলাম ও পল্লব ভৌমককে দেখিয়ে চাকুরী প্রার্থীদের কেউ কেউ বলেন ঘুষের টাকা সিভিল সার্জনের সামনে তাদের হাতেই দিয়েছি।এমএলএসএস পল্লব ভৌমিকের বিরুদ্ধে মে মাসের প্রথম দিকে এস এ পরিবহনের মাধ্যমে ঘুষের টাকা ঢাকায় পাঠানোরও অভিযোগও আছে।  পরে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের তাড়িয়ে দিয়ে সিভিল সার্জন নারায়ন চন্দ্র দাশকে বাসা থেকে বের করে নিয়ে যায় এবং বাসাটি তালাবদ্ধ করে দেয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি মো:আবদুর রব জানান সিভিল সার্জনের নিরাপত্তা দেয়ার জন্যে পুলিশ প্রহরা দেয়া হয়েছিলো। উল্লেখ্য,নারায়ন চন্দ্র দাশের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা ও কসবা থানায় ঘুষ নিয়ে চাকুরী না দেয়ার অভিযোগে চাকুরী প্রার্থীরা দুটি এজাহার দিয়েছেন। এছাড়া স্বাস্থ্য মন্ত্রীর কাছেও লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। 

টাকা ফেরত পাওয়ার আশ্বাস মিলেছিলো যাদের: রোববার রাতে সিভিল সার্জনের বাসায় ভীড় জমানোদের বেশীরভাগই ছিলো তার অধীনস্তদের আত্বীয়-স্বজন। চাকুরী দেবেন বলে অধীনস্তদের মাধ্যমে ঘুষ নিয়েছিলেন ঐ চাকুরী প্রার্থীদের কাছ থেকে। বিভিন্ন পদের এই চাকুরী প্রাথীরা হচ্ছেন তারিকুল(ঘুষের পরিমান ৫০ হাজার টাকা),রফিক(৫০ হাজার টাকা),সাদেকুল ও রঞ্জন (৩ লাখ টাকা),আমিনুল ইসলাম(১ লাখ ৫০ হাজার),আনোয়ার(১ লাখ),বোরহান(২লাখ),মোরছালীন(৫০ হাজার),কামাল(৩ লাখ ৫০ হাজার),শফিউর(১ লাখ ৫০ হাজার),দেলোয়ার(৩ লাখ),বিল্লাল(সাড়ে ৩ লাখ টাকা)। সুত্র জানায়,রোববার রাতে এই টাকা ফেরত দেয়ার অঙ্গীকার করেন সিভিল সার্জন। কিন্তু সকালে টাকা ফেরত না দিয়ে পুলিশ প্রহরায় পালিয়ে যান।