বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেয়ে তুমি শুধুই কি বন্ধু?

uniবিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম দিন থেকেই মেয়েটি কে ভালো লেগে যায় নীরবের। কয়েকদিনের চেষ্টায় জেনেও নেয় মেয়েটির নাম ও ঠিকানা। কিন্তু কিভাবে কথা শুরু করা যায় ভেবে পায় না নীরব। ওহ মেয়েটির নাম তো বলাই হয়নি। তার নাম লুনা।



অবশেষে একদিন কেন্টিনে পেছন থেকে কে যেন বলে ওঠে এই তোমার কাছে কি লোকপ্রশাসনের ভালো কোনো বই আছে? অচেনা সম্মোধন শুনে পেছনে ফিরেই তো অবাক নীরব। এ যে তার অনেকদিনের প্রতীক্ষার মানুষ। যার সঙ্গে কথা বলার ব্যাকুল হয়ে রয়েছে নীরব। লুনা বলে চলে টিচার আমাদের এক গ্রুপে সিলেক্ট করে দিয়েছে সেই থেকে নীরব আর লুনার একসঙ্গে ওঠা-বসা। আর এর থেকেই বন্ধুত্ব।



পড়াশোনা, আড্ডা, গল্প, ঘুরাঘুরি, খুনসুটি এই সব কিছুর মধ্য দিয়ে তারা একে অপরের অনেক ভালো বন্ধু হয়ে যায়। লুনার সব কাজে সাহায্য করা, সময় পেলে বাসায় গিয়ে বন্ধুদের নিয়ে একসাথে আড্ডা মারা, ঝগড়া করা, আবার কখনো মন খুলে মনের কথা বলে দেয়া আরো কত কি।



কিন্তু ইদানীং নীরবের কেন যেন মনে হচ্ছে লুনা তার কাছে বন্ধুর চেয়ে আরো অনেক বেশী কিছু। বন্ধুদের মাঝখান থেকেও তার প্রতি যেনো অন্যরকম ভালোলাগা কাজ করছে। কিন্তু এই ভালোলাগার কথা কিভাবে সে জানাবে লুনাকে?



কারন কখনও সে লুনাকে অন্য কিছু বোঝায়নি। যদি তার এই ভালোলাগা তাদের এই সুন্দর বন্ধুত্বকে নষ্ট করে দেয় বা তাদের পরিবারই বা কি ভাববে। অথবা তার এই ভালোলাগার কথা শুনলে লুনাই বা কি ভাববে?



এই ধরনের ঘটনা আজকাল তরুণ তরুণীদের মধ্যে এক খুব পরিচিত দৃশ্য। কারণ কিছুদিন আগেও ছেলে মেয়ের বন্ধুত্বটাকে খুব ভালোভাবে দেখা হত না। তাদের একসঙ্গে চলাটাকে আশেপাশের সবাই অনেক অন্যভাবে দেখত। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এই ধারণা অনেকখানি পাল্টেছে।



এখন বিভিন্ন প্রযুক্তি যেমন ফেসবুক, টুইটার, স্কাইপ ইত্যাদির মাধ্যমে অথবা বিশ্ববিদ্যালয়ে একসাথে পড়ার সময়, গ্রুপ ওয়ার্ক আরো অনেক কিছুর মাধ্যমে ছেলে মেয়েদের মধ্যে ও অনেক ভালো বন্ধুত্ব হয়ে যায়। কিন্তু সমস্যা হয় তখন যখন সম্পর্কটা বন্ধুত্বের চেয়ে বেশী মনে হতে থাকে। যদি সে মেয়েটার অনেক বেশী ভালো বন্ধু হয় তাহলে তাকে না বলতে পারা তার ভালোলাগার কথা তাকে সবসময় তাড়িয়ে চলে। তার মনের মধ্যে সবসময় মেয়েটার বন্ধুত্ব হারানোর ভয় কাজ করে। ফলে সে যেকোনো অযুহাতে তাকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করে এবং নিজেকে তার কাছ থেকে লুকিয়ে রাখতে চায়। কিন্তু সবসয় এর ফলাফল ভালো হয় না।  কারন এর ফলে সে সবসময় একটা মানসিক চাপের মধ্যে থাকে যার ফলে তার পড়াশোনার ও ক্ষতি হতে পারে।



অনেক সময় এসব ডিপ্রেশন থেকে মুক্তি পেতে সিগারেট অথবা অন্যান্য নেশাজাতীয় দ্রব্যের দিকে ঝুঁকে পড়ে। এতে করে যেমন তার শারীরিক ও মানসিক ক্ষতি হচ্ছে সাথে সাথে তার ভবিষ্যতের ও ক্ষতি হচ্ছে। আবার যদি সে সাহস করে বলেও দেয় কিন্তু মেয়েটা যদি তাকে শুধু বন্ধুই ভেবে থাকে তাহলেও এই ধরনের সমস্যা হতে থাকে। কারণ তাহলে সেই ছেলে ও মেয়েটার মধ্যে সম্পর্কটা আর আগের মতো সহজ হয় না। তারা একে অন্যের থেকে দূরে থাকতে চায় এবং তাদের সুন্দর বন্ধুত্বের মধ্যে একটা বিশাল দূরত্ব সৃষ্টি হয়।



আবার দেখা যাক যদি ভালো বন্ধু থাকতে থাকতে দুইজনের মধ্যেই একে অন্যের জন্য ভালোলাগা তৈরি হয় মানে উত্তর যদি হ্যাঁ হয় তাহলেও তাদের  সম্পর্কটা আগের মতো থাকে না। কারণ তখন বন্ধুত্বের বাইরেও এক ধরনের অতিরিক্ত চাওয়া পাওয়া কাজ করে যেটা সাধারণত নরমাল বন্ধুদের ভেতর থাকে না।



যেমন যেই সময় তারা সব বন্ধুরা একসঙ্গে আড্ডা মারত, ঘুরে বেড়াত সেই সময়টা তারা শুধু নিজেদের সঙ্গেই কাটাতে চায়। ফলে অন্য বন্ধুদের সঙ্গে তাদের এক ধরনের দূরত্ব তৈরি হয়। এছাড়া সবচেয়ে বড় সমস্যা যেটা হয় অন্য তৃতীয় কোনো ভালো বন্ধুর উপস্থিতি তাদের সম্পর্কের মধ্য ফাটল ধরাতে পারে।



অথচ বন্ধু থাকার সময় একটা ছেলে বন্ধু অথবা মেয়ে বন্ধু থাকাকে কোনো সমস্যাই মনে হয়নি। তারা শুধু একে অন্যের সময়টাকে নিজেদের মতো করে পেতে চায়। ফলে ছোট ছোট বিষয় নিয়ে ঝমালিন্য, মনোমালিন্য, হতাশা আরো অনেক কিছু একটা সুন্দর সম্পর্ককে নষ্ট করে পারে। কারন যেহেতু তাদের সম্পর্কটা বন্ধুত্ব থাকে তৈরি হয়েছে এবং তারা একে অন্যকে অনেক আগে থেকেই চেনে তাই তারা বন্ধুর সঙ্গে প্রেমিক অথবা প্রেমিকাকে মেলাতে গেলে সম্পর্কটাকেই নষ্ট হয়ে যেতে পারে।



এসব ক্ষেত্রে ছেলে মেয়ে দুইজনকেই অনেক সহনশীল ও একে অন্যর প্রতি মনোযোগী হতে হবে। একজনকে অবশ্যই অপরজনের নিজের জন্য সময় দিতে হবে। যেসব জিনিস তাদের মধ্যে দূরত্ব বা সন্দেহ সৃষ্টি করে সেসব বিষয় থেকে দূরে রাখতে হবে। তার ছোট ছোট ভালোলাগাগুলো খেয়াল করে সেগুলো পুরণ করার চেষ্টা করা, তার সঙ্গে মন খুলে কথা বলা, সমস্যা শেয়ার করা ইত্যাদি অনেক কিছুর মাধ্যমে তার প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করতে হহবে। কোনো কিছুর জন্যই একে অপরের প্রতি চাপ সৃষ্টি করা যাবে না। এতে করে যেমন পড়াশোনারও ক্ষতি হবে না তেমনি একটা সম্পর্কও সুন্দর থাকবে।



আবার যদি বন্ধুকে ভালোলাগার কথা জানানোর পর সে না করে দেই মানে সে যদি তাকে শুধু বন্ধুই ভেবে থাকে তাহলে এই কথাটিও রাগ করে বা খারাপ ব্যবহার করে না জানিয়ে বুঝিয়ে বলা যেতে পারে। তাকে না পছন্দ করার কারণ, তাদের প্রতিবন্দকতা সব কিছুই ভালোভাবে বুঝিয়ে বলতে হবে। যেসব জিনিস তাকে মেয়েটার প্রতি বেশী দুর্বল করে ফেলে সেগুলো থেকে আস্তে আস্তে বিরত থাকতে হবে। তার ফোন ধরা বন্ধ করে দিয়ে বন্ধুত্ব নষ্ট করে দিয়ে হিতে বিপরিত হতে পারে। ফলে তার পড়াশোনার ক্ষতি হতে পারে এমনকি সে খারাপ পথেও চলে যেতে পারে। তাকে সবসময় বুঝাতে হবে যে সেও তার অন্য বন্ধুদের মতোই একজন। ওয়েবসাইট




 

এ জাতীয় আরও খবর