শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আখাউড়া স্থল বন্দরের রপ্তানি আয় ১০০ কোটি টাকা কমেছে

Akhaura Landport photoনিজস্ব প্রতিবেদক : ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলা স্থল বন্দরে ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্ট চালুর পর টার্মিনাল খরচ ও আমদানি কর বৃদ্ধি, সড়ক পথে পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়া, রেলপথে পাথর পরিবহন এবং ওপারের (আগরতলা) ব্যবসায়িদের আমদানিতে আগ্রহ কমে যাওয়ার কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দরে চলতি অর্থবছরে রপ্তানি আয় প্রায় ১০০ কোটি টাকা কমে গেছে।

এ অবস্থায় দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই স্থলবন্দরের ব্যবসায়ি ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টরা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন।
স্থল ব
ন্দর সূত্র জানায়, গত ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরে ৩২৭ কোটি ৫৯ লাখ ১০ হাজার টাকা রপ্তানি আয় হয়। কিন্তু চলতি অর্থ বছরে তা কমে দাঁড়ায় ২২৬ কোটি ২১ লাখ ১৩ হাজার ৯৪ টাকায়।
স্থানীয় আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি রাজীব ভূঁইয়া বলেন, আগে প্রতিদিন গড়ে ২৪৫ ট্রাক পণ্য ভারতে রপ্তানি হতো। কিন্তু বর্তমানে গড়ে প্রতিদিন যাচ্ছে মাত্র ৪৫ টি ট্রাক। আগরতলায় ইন্টিগ্রেটেড (আধূনিক) চেকপোস্ট চালুর পর টার্মিনাল খরচ ও আমদানি কর বেড়ে যাওয়া এবং রেলপথ চালু হওয়ার কারেণই রপ্তানি বাণিজ্যে এমন ধ্বস নেমেছে বলে
জানান তিনি।
সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন বাবুল জানান, এ বন্দর দিয়ে রপ্তানি হওয়া পণ্যের অর্ধেকই পাথর। এই পাথর পরিবহনে সড়ক পথে খরচ বেশি হওয়ায় গত কয়েক মাস ধরে ভারতের ব্যবসায়িরা পরিবহনের ক্ষেত্রে সেদেশের রেলপথকে বেছে নিয়েছেন। তাছাড়া ভারতীয় ব্যবসায়িরা পণ্য আমদানিতে অনেকটা আগ্রহও হারিয়ে ফেলেছেন।
তিনি আরও জানান, ভৌগোলিক কারণেও এতদিন ভারতের সেভেন সিস্টার্স নামে পরিচিত সাতটি পাহাড়ি রাজ্যে এ বন্দর দিয়ে পণ্য রপ্তানি করা হতো। কিন্তু এখন আগরতলা পর্যন্ত রেলপথ চালু হওয়ায় অন্যান্য রাজ্যের সঙ্গে তাদের বাণিজ্য পথ সুগম হয়। ফলে ভারতের ব্যবসায়িরা সড়কপথে আমদানিতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন।
আখাউড়া স্থলবন্দরের সহকারি কমিশনার (শুল্ক) মো. মিজানুর বলেন, বর্তমানে ভারতের উত্তরাঞ্চলসহ আসামের শিলচর থেকে রেলপথে সরাসরি আগরতলায় পাথর নেওয়া হচ্ছে। এজন্য রপ্তানি আয় কমে গেছে।
প্রসঙ্গত, আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিদিন পাথর, সিমেন্ট, প্লাস্টিক সামগ্রী, শুঁটকি, ছোট-বড় মাছসহ প্রায় ৪১ ধরণের পণ্য ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যসহ সাতটি পাহাড়ি রাজ্যে রপ্তানি হয়।