শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গ্যাস রেগুলেটরের সমাধি

B.Baria Gas pic-1আমিরজাদা চৌধুরী: নিরাপত্তা নেই গ্যাসের রেগুলেটরের। বাসা-বাড়ির গ্যাস সংযোগের রেগুলেটরের অব্যাহত চুরির মুখে দিশেহারা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গ্যাস গ্রাহকরা। লোহার খাচায় ভরে,কেউ ইটের দেয়াল দিয়ে সমাধি বানিয়ে রক্ষার চেষ্টা করছেন রেগুলেটর। শহরের প্রতিটি গ্যাস গ্রাহকই তাদের রেগুলেটর রক্ষায় এমন নানা কসরৎ করছেন। খোজ নিয়ে জানা গেছে,নতুন সংযোগের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এখানে অবৈধ সংযোগ দেয়ার হিরিক পড়েছে। আর এই সংযোগের জন্যে প্রয়োজনীয় রেগুলেটর চুরি করে নেয়া হচ্ছে পুরনো গ্রাহকদের সংযোগ থেকে। কোন কোন বাসা-বাড়ির রেগুলেটর একাধিকবার চুরি হয়েছে। ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন এখানকার পুরনো গ্যাস গ্রাহকরা। এমন একজন গ্রাহক শহরের দাতিয়ারার তাহমিনা বেগম জানান,দু-মাসের মধ্যে তার বাসার গ্যাসের রেগুলেটর দুই বার চুরি হয়েছে। প্রথমবার ২৫’শ টাকা দিয়ে রেগুলেটরটি লাগানোর পর লোহার খাচা করে তালা লাগিয়ে দেন। খাচা ভেঙ্গেই চুরি হয়ে যায়। পরের বার প্রায় ৫ হাজার টাকা খরচ করে রেগুলেটর লাগানো হয়। আর যাতে চুরি না হয় সেজন্যে রেগুলেটরটি দেয়াল করে ঢেকে দেয়া হয়েছে বলে জানান এই গ্রাহক। সরজমিনে পুনিয়াউট এলাকায়ও দেখা গেছে রেগুলেটর এভাবে পাকা দেয়ালে আবদ্ধ করে রাখা হয়েছে। এছাড়া শহরের প্রায় সব গ্রাহকরাই তাদের রেগুলেটর বিশেষ ভাবে তৈরী খাচা বা বকসে ভরে তালা দিয়ে রেখেছেন। বাখরাবাদ গ্যাস ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিক্রয় বিভাগের নিয়মানুসারে একটি রেগুলেটর চুরি বা নষ্ট হলে দুটি রেগুলেটরের দাম পরিশোধ করতে হয় গ্রাহককে। সাড়ে ১১’শ  টাকা হিসেবে দুটি রেগুলেটরের মুল্য বাবদ প্রায় ২৩ ’শ টাকা পরিশোধ করতে হয়। তার আগে থানায় জিডি করতে হয়। ডিমান্ড নোট নিয়ে ব্যাংকে টাকা জমা করতে হয়। এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে গিয়ে দু-একদিন গ্রাহকের চুলা পুরোপুরি বন্ধ থাকে। এসব ঝামেলা এড়াতে অবস্থা সম্পন্ন গ্রাহকরা রেগুলেটর চুরির সঙ্গে জড়িত বিভিন্ন এলাকার ঠিকাদারদের লোকজনদের কাছ থেকে ৪/৫ হাজার টাকা দিয়ে রেগুলেটর কিনে ফেলছেন। বাখরাবাদ গ্যাস ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের কর্মকর্তারা স্বীকার করেন অবৈধ সংযোগের কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে চোরাই রেগুলেটরগুলো। জানা গেছে,কোম্পানীর এক শ্রেনীর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে গ্যাস ঠিকাদাররা যোগসাজস করে রাতের অন্ধকারে অবৈধ সংযোগ দিয়ে চলেছে।গভীররাতে মাটি খুড়ে পাইপ বসিয়ে এই সংযোগ দেয়া হচ্ছে। প্রতি সংযোগের জন্যে নেয়া হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা। চোরাই সংযোগ প্রদানকারী ঠিকাদার হিসেবে জহির,আশিষসহ আরো অনেক ঠিকাদারের নাম আলোচনায় আছে বাখরাবাদের অফিসে। তৈরী পোশাক ব্যবসার পাশাপাশি গ্যাসের ঠিকাদারীতে জড়িত এমন এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে শহরের কুমারশীল মোড়,পাইকপাড়া ও মেড্ডা এলাকায় অসংখ্য অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেয়ার অভিযোগ রয়েছে। কুমারশীল মোড়ের একটি ৯ তলা বিল্ডিংয়ের ৭ তলা পর্যন্ত ১৪ টি  অবৈধ সংযোগ দিয়েছে এই ঠিকাদার। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়,অবৈধ সংযোগ রয়েছে সারা শহরেই। কিন্তু বাখরাবাদের কর্মকর্তারা এর হদিস পাচ্ছেননা। বাখরাবাদ গ্যাস ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিক্রয় বিভাগের উপ-মহাব্যবস্থাপক (বিক্রয়) প্রকৌশলী মো: খায়রুল আলম অবৈধ সংযোগ হওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন- এখানে গত ৫০ বছরে সংযোগ দেয়া হয়েছে ১৬ হাজার। আর আমরা  একবছরে সংযোগ দিচ্ছি ৮ হাজার। গ্যাস সংযোগের চাহিদা অনেক বেড়েছে। আমরা রাইজার উঠাচ্ছি তারাও(অবৈধ সংযোগ প্রদানকারীরা) উঠাচ্ছে। রেগুলেটর এখানেরটা ওখানে নিয়ে লাগাচ্ছে। তবে আমরা অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিচ্ছি। শহরের শেরপুর,নাটাই-বিরাশার ও ভাদুঘর এলাকায় অভিযান চালিয়ে এ পর্যন্ত ২৬ টি সংযোগ এবং ভাদুঘর ও ভাটপাড়ায় ২০৪ ফুট লাইন উচ্ছেদ করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এ বছরের জুন মাস পর্যন্ত বাখরাবাদ গ্যাস ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিক্রয় বিভাগে নতুন সংযোগের জন্যে আবেদন জমা পড়েছে ৮১৯৮টি। এর বিপরীতে সংযোগ দেয়া হয়েছে প্রায় ১৪’শ। তিনি আরো জানান- নতুন রাইজার উঠানোর জন্যে কোম্পানী দুটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেটকো কনষ্ট্রাকশন এবং শাহজাহান ব্রাদার্সের সঙ্গে চুক্তি করেছে। এসব ঠিকাদার প্রতিদিন ১২/১৩টি করে সংযোগ দিচ্ছে। সুত্র জানায়,নতুন সংযোগের ব্যাপক চাহিদার কারনে একশ্রেনীর ঠিকাদার গ্রাহকদের সঙ্গে মোটা অংকের টাকার চুক্তি করে অবৈধ সংযোগ দিচ্ছে। গ্রাহকরাও দ্রুত সংযোগ পাওয়ার আশ্বাসে তাদের সঙ্গে চুক্তি করছে। এসব সংযোগ দেয়ার জন্যে ঠিকাদাররাই তাদের লোকজন দিয়ে পুরনো গ্রাহকদের রেগুলেটর চুরি করিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।