শনিবার, ৩রা জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিএনপিকে দুর্বল প্রতিপক্ষ মনে করছে আওয়ামী লীগ

BNP Auwmi Logoনাশরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী : ঈদের পর আন্দোলনে যাচ্ছে বিএনপি। ইতোমধ্যে আন্দোলনে নামার ঘোষণাও দিয়েছে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বিএনপির আন্দোলনের পরিকল্পনা হিসাবে ঢাকার কমিটিগুলোও ১০০ দিনের মধ্যে গঠন করা হবে। ইতোমধ্যে আহ্বায়ক কমিটিও গঠন করা হয়েছে। আন্দোলনে নামার জন্য উদ্যোগ নিয়ে কমিটি গঠন করা হলেও এনিয়ে চিন্তিত নয় সরকার ও আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ মনে করছে এটা বিএনপির রুটিন কাজের একটি অংশ। বিএনপির কমিটি গঠনকে গুরুত্ব দিচ্ছে না সরকার। সরকার ধরেই নিয়েছে বিএনপি আন্দোলন করে সরকারের কিছুই করতে পারবে না। এই কারণে বিএনপির আন্দোলনের হুমকিতে ভীত নয় সরকার। বিএনপিকে দুর্বল প্রতিপক্ষ মনে করছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সরকারের স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফের কথায়ও এটা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। বিএনপির নেতারা মনে করছেন সরকার তাদের আন্দোলনের হুমকিতে ভীত। প্রকৃতপক্ষে এর উল্টো চিত্র। ওই দলের সব খবরই সরকারের কাছে রয়েছে। কোন নেতার কি অবস্থা সেটাও খবর রাখছেন।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম রোববার বলেছেন, আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে ঢাকায় বিএনপি নতুন কমিটি করলেও তাতে ফল আসবে না। তারা নির্বাচন বর্জন করে সংসদ থেকে ছিটকে পড়েছে। এর মাধ্যমে বিএনপি রাজনৈতিকভাবে ভুল করেছে। তিনি সেজন্য খালেদা জিয়াকে দায়ী করেন। পাশাপাশি তিনি আন্দোলনের পথ ছেড়ে আলোচনায় আসতেও দলের চেয়ারপারসনের প্রতি আহ্বান জানান। দলের কাউন্সিল না করে ঢাকা মহানগর বিএনপির কমিটি গঠনের সমালোচনাও করেন। বলেন, আব্বাস সাহেবকে আহ্বায়ক করলেন। বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক স্ট্রাটিজি যে ভুল সেটাও পরিবর্তন করার প্রয়োজন অনুভব করছে আওয়ামী লীগ। এই জন্য সৈয়দ আশরাফ খালেদা জিয়াকে বলেন, আপনার রাজনীতির স্ট্রাটিজি পরিবর্তন করলে, ঢাকা মহানগর কমিটি পরিবর্তন করলেও কাজ হবে না। আসলে তাদের কোনো দোষ নেই। সব দায়-দায়িত্ব আপনার ওপরই পড়বে।
এদিকে আওয়ামী লীগ রাজনীতির বাইরে কোনো কিছুই চিন্তা করছে না। সরকার পাঁচ বছর মেয়াদ পূরণ করতে চাইছে। এই কারণে তাকেও ভোট ছাড়া অন্য কোনো প্রক্রিয়ার কথা না ভাবতে পরামর্শ দেন। বলেন, মজিনা আপনাকে হাত ধরে নিয়ে ক্ষমতায় বসাবে এটা ভাবা অবান্তর। সূত্র জানায়, খালেদা জিয়ার সাম্প্রতিক আচরণেও সন্তুষ্ট নয় সরকার। এই কারণে এটাকে তারা বিবেচনায় নিচ্ছেন। আশরাফ সেটাও প্রকাশ করেও দেন। বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার ধরন দেখলে মনে হয়, তিনি দয়া করে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখছেন। তার প্রতি আশরাফ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, মনে রাখবেনÑ এখন ১৯৭৫ সাল নয়। ওই সময় মারছিলেন বলে বারবার মারবেন, এখন আর সেই সুযোগ নাই।
এদিকে সরকার বিএনপিকে নয় কেবল বেগম খালেদা জিয়াকেই আপাতত বিপদ মনে করছে। কারণ জানেন যে, বেগম খালেদা জিয়া মাঠে নামতে না পারলে কোনো কৌশলই কাজে লাগবে না। তারেক রহমান দেশে নেই। আন্দোলনের আর কোনো নেতা নেই। সরকারের এই উপলব্ধি থেকেই মির্জা ফখরুলকেও তারা গুরুত্ব দিচ্ছে না। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে ‘বেচারা’ আখ্যায়িত করেন আশরাফ। বলেন, ফখরুল সাহেবের কথা কী আর বলব। এখনো ‘বেচারা’র কিছু হয় নাই। তিনি অত্যন্ত সুবোধ বালকের মতো ইফতার মাহফিলে বক্তব্য দিচ্ছেন। তার শিকড় মুসলিম লীগে। তাকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, আপনি যতই চেষ্টা করুন না কেন, তারেক জিয়া আপনাকে স্থায়ী মহাসচিব করছে না। ছেলের বয়সী তারেক জিয়ার চাটুকারিতা না করে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে কীভাবে শক্তিশালী করা যায় সে বিষয়ে বক্তব্য রাখার পরামর্শ দেন।
সূত্র জানায়, আব্বাসকে ঢাকার কমিটির আহ্বায়ক করার বিষয়টি আওয়ামী লীগ ও সরকার এতটাই হাল্কাভাবে নিয়েছে যে, তার মতো একজনকে দিয়ে একশ বার কমিটি করা হলেও কোনো লাভ হবে না বলেছে। সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, তাকে দিয়ে ঢাকা মহানগর কমিটি একবার নয়, একশ বার পরিবর্তন করলেও সরকারের কিছুই হবে না। এটাই দেশের রাজনৈতিক বাস্তবতা। আরো বলেছেন, আব্বাস সাহেব সারা দিন রাস্তায় বসে থাকলেও কিছু হবে না।
সূত্র জানায়, সরকারের ভেতরে বিএনপি ঢাকা আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে আগ্রহ ছিল। এই জন্য তারা নজরও রাখছিলেন। বিএনপির কাউন্সিল নিয়ে কি হচ্ছে সেই ব্যাপারেও সরকার খোঁজ-খবর রাখছে। বিএনপির নেতারা অনেকেই মনে করছেন, তারা আন্দোলনে নামার ঘোষণা দিয়েছেন মানেই সরকার এটাকে গুরুত্ব দিচ্ছে। কিন্তু প্রকৃত পক্ষে সরকারের ভেতরে সেটা নিয়ে আপাতত কোনো রেশ নেই।
এর প্রমাণ দিলেন সৈয়দ আশরাফ। বিএনপির আন্দোলনের ক্ষমতা আছে কি নেই সেটা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেন, নির্বাচন বয়কটের পর আন্দোলনের সক্ষমতাও বিএনপির নেই। বিএনপি ২-১ জন নেতার আমাদের দেখা হয়, কথা হয়। তারা এখন চরম হতাশ। আহ্বায়ক কমিটিতে নাম দিতে গেলে অনেকে ঢাকা ছেড়ে পালান।
এদিকে সৈয়দ আশরাফ তিন নেতার পক্ষ সমর্থন করে আজকের বিএনপির অবস্থার জন্য খালেদাকে দায়ী করেন। বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনাদের এ অবস্থার জন্য আব্বাস না, খোকাও না, ফখরুল সাহেব না, দায়ী আপনি। কারণ আপনি গণতান্ত্রিক সরকারের অধীনে নির্বাচনে আসেননি। কতবার, কত কমিটি করলেন। দোষটা হলো ওদের, আর পুণ্যি হলেন আপনি। এ বাস্তবতা এখন আর নেই।
সূত্র জানায়, সরকার বিএনপির সঙ্গে আপাতত কোনো আলোচনা চায় না। তা না চাইলেও বেগম খালেদা জিয়াকে আলোচনার আহ্বান জানিয়ে আশরাফ বলেন, আমরা সেনাবাহিনী কিংবা অন্য বাহিনী নই। যুদ্ধ করা আমাদের কাজ না। এখানে অস্ত্রের স্থান নেই। রোজার মাসে আপনার প্রতি আহ্বান, রাজনীতির পথ আলোচনার পথ, শান্তির পথ। হুমকি-ধমকি দেওয়া বন্ধ করেন। সাবেক প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ ধরনের আচরণ গ্রহণযোগ নয়। তিনি মনে করছেন, বিএনপি ঈদের পর আন্দোলনের ঘোষণা দিলেও আÍ উপলব্ধি হওয়ার পর সে পথ থেকে খালেদা জিয়ার সরে আসবেন।
সূত্র জানায়, সরকার এমন অবস্থাই করতে চাইছে যে, বিএনপি যাতে আন্দোলন থেকে পিছু হটে। বিএনপিকে আন্দোলন থেকে পিছু হটানোর সব কৌশলই সরকার ঠিক করে রেখেছে। আপাতত সরকারের পরিকল্পনা বিএনপিকে কোনো সভা সমাবেশ করতে না দেওয়া। সরকারের বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলতে যাতে না পারে সেই জন্য ব্যবস্থা নেওয়া।

 

এ জাতীয় আরও খবর