শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুমন বর্ধনের লাশ পুলিশ অপমৃত্যু বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা!

kidnapবিশেষ প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার কুন্ডা ইউনিয়নের বেড়–ইন গ্রামের এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ বিজয়নগর উপজেলার সিঙ্গারবিল ইউনিয়নের উথালিয়া পাড়ায় উদ্ধার হওয়ায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে সুমন বর্ধন (৩০) নামের ওই যুবকের লাশ উথালিয়া পাড়ার একটি আম গাছ থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত সুমন বর্ধন নাসিরনগর উপজেলার কুন্ডা ইউনিয়নের বেড়–ইন গ্রামের প্রদীপ বর্ধনের ছেলে। 

এ ঘটনার পর বিজয়নগর থানা পুলিশ এটিকে অপমৃত্যু বলে চালিয়ে দিতে তড়িঘড়ি করে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করে। নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, উথালিয়া পাড়ার শ্যামা বর্ধন ও তার পরিবারের লোকজন সুমনকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। অথচ তাদের এই অভিযোগ গতকাল পর্যন্ত আমলে নেয়নি পুলিশ। 
নিহতের বাবা প্রদীপ বর্ধন জানান, তার ছেলে সুমন ঢাকার গাউছিয়া এলাকায় সেলুনে কাজ করতেন। উথালিয়া পাড়ার শ্যামা বর্ধনের মেয়ের সঙ্গে তারা প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে তারা জানতেন। মুঠোফোনে কথাবার্তার সূত্র ধরে রাতে তাদের বাড়িতে আসে সুমন। এরপর সকালে গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ দেখতে পায় এলাকাবাসী। 
তিনি অভিযোগ করেন, সুমনকে পিটিয়ে হত্যার পর গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। কিন্তু লাশের পা মাটিতে লাগানো থাকায় এলাকার লোকজনের মধ্যেও সন্দেহের তৈরি হয়। তাছাড়া লাশটি চিকন একটি গাছে নামমাত্র ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল বলে এলাকার মানুষের মধ্যে আরও সন্দেহ জাগে। এলাকাবাসীর মাধ্যমে এসব জানতে পেরে তারা ধারণা করছেন, কেউ সুমনকে পিটিয়ে মেরেছে। 
এদিকে এ ঘটনার পর সিঙ্গারবিল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের বলেন, এলাকাবাসীর মাধ্যমে খবর পেয়ে উথালিয়াপাড়ার ভুট্টু মিয়ার বাড়ীর সামনের একটি আম গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় সুমন বর্ধনের লাশ উদ্ধার করা হয়। সোমবার দুপুরে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 
বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রসুল আহমেদ নিজামী বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে সে আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পেলে বুঝা যাবে আত্মহত্যা নাকি তাকে কেউ হত্যা করেছে। এ ব্যাপারে বিজয়নগর থানায় অপমৃত্যর মামলা হয়েছে।