রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মাবাড়ীয়ার কোল্লাপাথর ৫০ মুক্তিযোদ্ধার সমাধি

kollapathor_239ব্রাহ্মাবাড়ীয়া জেলার কসবা উপজেলার কোল্লাপাথর নামক এলাকায় এর অবস্থান। পাকিস্তানি বাহিনীর বর্বরতার আরও একটি অন্যতম উদাহারণ এটি। বিভিন্ন স্থানের শহীদের বিভিন্ন সময় এইখানে কবর দেওয়া হয়েছে। এখানে অনেক নামি-দামী, দেশপ্রেমী মুক্তিযোদ্ধাসহ ৫০ জন মুক্তিযোদ্ধা চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন। কিন্তু সরকারের নজরহীনতার কারণে এটি এখন পর্যন্ত তেমন পরিচিতি পায় নি।সারিবদ্ধভাবে সাজানো মুক্তিযোদ্ধাদের ওই সমাধি দেখতে সারা বছরই পর্যটকদের ভিড় থাকে। সমাধিস্থলটি ভারত সীমান্তের খুবই নিকটবর্তী এয়ালাকায় হওয়ায় এখাকার প্রাকৃতিক পরিবেশ খুবই মনোরম। সমাধিস্থলের চারপাশের বিস্তীর্ণ এলাকার উঁচু-নিচু টিলা, নানা প্রজাতির বৃক্ষ, সামাজিক বনায়ন আর সবুজের সমারোহ পর্যটকদের দারুণভাবে আকৃষ্ট করে। এখানে আপনার চোখে পড়বে লাল বালির পাহাড়। যা বাংলাদেশে খুবই দুর্লভ।

সমতল ভূমি থেকে বেশ কয়েকটি সিঁড়ি মাড়িয়ে মূল বেদিতে পা রাখার পর হাতের বাঁয়েই জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের সারিবদ্ধ কবর। ওই সমাধিস্থলে রয়েছে নায়েক সুবেদার মইনুল ইসলামের কবর। তাঁর নামেই ঢাকা সেনানিবাস এলাকার অতি পরিচিত মইনুল সড়ক নামকরণ করা হয়েছে। এ সমাধিতে ৫০ জনের নাম রয়েছে। এর মধ্যে ৪৭ জনের পরিচয় মিলেছে। অন্য তিনজনের পরিচয় পাওয়া যায় নি।

জানা গেছে, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের পর সদ্য প্রয়াত ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনের সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফুল হাই সাচ্চুর নেতৃত্বে তৎকালীন জেলা প্রশাসন কোল্লাপাথর শহীদদের স্মৃতিবিজড়িত কবর চিহ্নিত করে সংরক্ষণ করার উদ্যোগ নেয়। পরবর্তী সময়ে ১৯৮০ সালে সেখানে একটি কাঠের তৈরি রেস্টহাউস হয়। গত এক দশকে সেখানে স্মৃতিসৌধ, মসজিদ, রেস্টহাউস, সীমানাপ্রাচীর ও পুকুরঘাট বানানো হয়। প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদ ওই কাজ শেষ করে।