শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদের সাজে হয়ে উঠুন লাবণ্যময়ী

 

ঈদের সাজসজ্জা নিয়ে সবার আকাঙ্ক্ষাই থাকে একটু স্পেশাল। সকাল হোক, কি রাত আর বিকাল ঈদের দিন মেকআপ তো একটু করতেই হয়। কিন্তু ঈদের মেকআপকে স্পেশাল করতে গিয়ে অনেকসময় মেকআপের বারোটা বেজে যায়। কারন এখন চলছে গরমকাল, তাই গরমের সময় মেকআপ অতিরিক্ত হয়ে গেলে স্বভাবতই বাজে দেখাবে। তাই ছিমছাম কিন্তু দীর্ঘস্থায়ী মেকআপই হোক আমাদের কাম্য।

* শুরুতেই গোসল শেষে মুখ ভালভাবে পরিষ্কার করেন নিন। তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীরা অবশ্যই মুখে তুলার সাহায্যে টোনার ব্যবহার করুন আর ত্বক শুষ্ক হলে, অবশ্যই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। তৈলাক্ত ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে চাইলে, তা অবশ্যই ওয়াটার-বেসড অয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজার হতে হবে। এবার ৫-১০ মিনিট অপেক্ষা করে, প্রাইমার ব্যবহার করুন। প্রাইমার ব্যবহারে ফাউন্ডেশনের ক্ষতিকর উপাদান থেকে ত্বককে রক্ষা করা যায়। চেহারায় যেসব জায়গায় কালো ছোপ বা দাগ আছে অথবা চোখের নিচে কালি থাকলে সেখানে কনসিলার লাগিয়ে নিন। যত্নের সঙ্গে কালো ছোপের ওপর আঙুল দিয়ে মিশিয়ে নিন। ত্বকের রঙের থেকে কনসিলারটি এক শেড গাঢ় হবে।

* যেহেতু এবারের ঈদ গরমের মাঝে হচ্ছে, তাই লিকুইড ফাউন্ডেশন এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। এসময় প্রেসড পাউডার ফাউন্ডেশন লাগানো উচিত। তবে খেয়াল রাখতে হবে যে, রাতের বেলায় ফাউন্ডেশন লাগাতে হবে স্পঞ্জ ভিজিয়ে আর দিনে পাউডার ফাউন্ডেশন হিসেবে। ফাউন্ডেশনের রঙ হতে হবে ত্বকের সঙ্গে মিলিয়ে, যেন আপনার ন্যাচেরাল লুক বজায় থাকে। 



* রাতে ভারী মেকআপ নেয়ার ইচ্ছা থাকলে, স্টিক ফাউন্ডেশন ব্যবহার না করে প্যান কেক ব্যবহার করা ভালো। প্যান কেক ব্যবহার করে, তার উপর লুজ পাউডার লাগিয়ে নিন। মুখের গড়ন একটু ভারী হলে, মুখে গালের পাশে, চিবুক বরাবর কন্টুরিং করে নিন, এতে মুখ হালকা গড়ন দেখাবে। আইশ্যাডো, ব্লাশ অন সঠিকভাবে ব্যবহার করুন। ব্লেন্ডিং ভালোভাবে না করলে মেকআপ বসবে না। আর দিনের বেলায় অবশ্যই মেকআপের আগে সানস্ক্রিন লাগাতে হবে। 



* ত্বক ভালো রাখতে সবসময় মেকআপের পরিমান কম রাখাই ভালো। মেকআপ যত কম করা যাবে, ত্বকের জন্য তা ততই ভালো। ত্বক ভালো রাখার আরেকটি ভালো উপায় হল, খাবারের তালিকায় বেশী করে ফলমূল, শাকসবজি রাখতে হবে এবং প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। 



মনে রাখতে হবে যে, শারীরিক ও মানসিক প্রশান্তি রূপ-লাবণ্যের পরিপূর্ণ প্রকাশ ঘটায়। তাই পরিমিত আহার, নিয়মিত শারীরিক চর্চা ও দুশ্চিন্তা মুক্ত জীবনযাপন করা সবার জন্য উত্তম।