মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিয়ের আগেই সঙ্গীর সঙ্গে সারুন টাকা নিয়ে পাঁচটি কথা

Wedding couple and money coins.তরুণ প্রজন্মের অনেকেই এখন তাড়াতাড়ি বিয়ে করতে চান না নানা ঝামেলায়। এসব ঝামেলা কাটানোর জন্যই পাত্রপাত্রীদের কিছু বিষয়ে আলোচনা করে নেওয়া প্রয়োজন। হবু দম্পতিদের আর্থিক বিষয়ে এসব আলোচনা থেকে দ্বার খুলে যাবে আরো অনেক আলোচনার। এতে বিয়ের পর আর্থিক বিষয়গুলো সামলানোও অনেক সহজ হবে। এ ক্ষেত্রে যে পাঁচটি বিষয় তাঁদের উভয়কেই আলোচনা করে নিতে হতে হবে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
১. ঋণের দিকে নজর দিন
স্বামী বা স্ত্রী উভয়েরই ঋণের দিকে নজর দিতে হবে। তাঁদের মধ্যে কারো যদি ঋণের পরিমাণ অস্বাভাবিক থাকে তাহলে আগেই তা নিয়ে আলোচনা করে নিতে হবে। এতে লুকোছাপা করা উচিত নয়। বিয়ে মানে একে অন্যের সঙ্গে অন্যান্য বিষয়ের মতো আর্থিক বিষয়াদিও ভাগাভাগি করে নেওয়া। তাই সময় থাকতে এসব বিষয় আলোচনা ও ঋণ পরিশোধের পরিকল্পনা জেনে নেওয়া উচিত।
২. আর্থিক দায়িত্ব বণ্টন করুন
সুস্থ ও স্বাভাবিক দাম্পত্যের জন্য আর্থিক বিষয়ে কার কোন দায়িত্ব তা বিয়ের আগেই আলোচনা করে নিতে হবে। প্রতিদিনের আর্থিক চাহিদা কে পূরণ করবেন, তা জেনে নেওয়া প্রয়োজন। আর্থিক বিষয় ব্যবস্থাপনা কার দায়িত্বে থাকবে আর বিল পরিশোধ কে করবেন, এসব বিষয় পরিষ্কার করে নেওয়া প্রয়োজন। এ ছাড়া আর্থিক লেনদেনের বিভিন্ন কাগজপত্র ও পিন নম্বর কে সংরক্ষণ করবে তা জানা থাকতে হবে। এগুলো একজন অন্যজনের অনুপস্থিতিতে কোথায় খুঁজে পাবেন, তাও জানিয়ে রাখতে হবে। দম্পতিদের একজন আর্থিক বিষয় ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকলে অন্যজন যে তা নিয়ে পুরোপুরি অন্ধকারে থাকবেন, এমন কোনো কথা নেই। সুস্থ সম্পর্কের জন্য কোথায় কত টাকা কিভাবে খরচ হচ্ছে, এসব বিষয় উভয়েরই জানা থাকা উচিত।
৩. বার্ষিক আয় অনুসারে পরিকল্পনা
বিয়ের আগেই জুটিদের তাঁদের বার্ষিক আয় কত টাকা এবং এ টাকা কিভাবে ব্যয় করা হবে, সে সম্পর্কে আলোচনা সেরে নিতে হবে। বার্ষিক আয় আলোচনাটি প্রয়োজন এ জন্য যে, এতে বিয়ের পরে তাঁদের জীবনযাত্রা কেমন হবে, সে সম্পর্কে উভয়ের স্পষ্ট ধারণা থাকবে। কোথায় তাঁরা বাস করবেন, কত টাকা কোথায় খরচ করবেন এসব বিষয় আগেই জেনে নেওয়া সম্ভব হবে।
৪. স্বচ্ছ আর্থিক পরিকল্পনা
আর্থিক বিষয়ে সবারই পরিকল্পনা করা উচিত। আর এ পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে দীর্ঘমেয়াদি ও স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনা। পরিকল্পনাতে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে বসবাসের জন্য বাড়ি ভাড়া কিংবা কিনে নেওয়ার পরিকল্পনা ও অবসরকালীন আর্থিক বিষয়াদি। দীর্ঘমেয়াদি বিষয়গুলো অনেক দূরের বলে মনে হলেও এগুলোর আলোচনা ও পরিকল্পনা করতে হয় আগে থেকেই। বিশেষ করে বিয়ের পরবর্তী বিষয়গুলো বিয়ের আগেই আলোচনা করে নেওয়া উচিত।
৫. ক্রেডিট স্কোর
নিয়মিত ঋণ ও বিল পরিশোধ, ব্যাংকের সঙ্গে লেনদেন ইত্যাদির ওপর নির্ভর করে এ ক্রেডিট স্কোর। কারো ক্রেডিট স্কোর কম থাকা মানে তাঁর আর্থিক ব্যবস্থাপনার অভ্যাস খারাপ কিংবা তিনি এ ক্ষেত্রে অদক্ষ। ক্রেডিট স্কোর নিয়ে অতীতে তেমন একটা আলোচনা করা হতো না। কিন্তু বর্তমানে আপনার কতখানি ঋণ নেওয়ার সক্ষমতা আছে, তা অনেকেই গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করেন। ক্রেডিট স্কোর বেশি থাকলে ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণে সুবিধা হয়। হবু দম্পতিদের উভয়ের এ ক্রেডিট স্কোর নিয়ে আলোচনা করে নেওয়া উচিত। যদি এ স্কোর কম হয় তাহলে তা কিভাবে বাড়ানো যাবে, তাও আলোচনা করে নিতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

সেপটিক ট্যাঙ্কে মিলল আনারের দেহের ‍অংশ

এমপি আনার খুন: দেহাংশ খুঁজতে ভাঙা হবে সঞ্জীবা গার্ডেনসের স্যুয়ারেজ লাইন

প্রাথমিকে ৪৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া হাইকোর্টে স্থগিত

বেনজীর ও তার স্ত্রী-সন্তা‌নদের সব বিও হিসাব ফ্রিজ

ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিলো স্পেন-নরওয়ে

কাল ঢাকায় আসছেন আইএমও মহাসচিব

আরও তিন উপজেলার ভোট স্থগিত

ঈদুল আজহায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির তারিখ ঘোষণা

উপকূলে এখনো থামেনি ঘূর্ণিঝড় রিমালের দাপট

বিয়ের ১২ দিন পর স্ত্রী হয়ে গেলেন পুরুষ

অপরাধী হলে শাস্তি পেতেই হবে, সাবেক সেনাপ্রধান-আইজিপির বিষয়ে কাদের

সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ৭০ হাজার পদ ফাঁকা : জনপ্রশাসনমন্ত্রী