বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তৈরী পাদুকা আর্ন্তজাতিক বাজারে পাঠানো সম্ভব প্রয়োজন সরকারী পৃষ্টপোষকতা

B.Baria shoes-2আমিরজাদা চৌধুরী:  ঈদকে সামনে রেখে এখন সরগরম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাদুকা পল্লী। রাত-দিন পাদুকা তৈরীতে ব্যস্ত শ্রমিকরা। রোজার ১৫/২০ দিন আগ থেকেই এখানে পাদুকা তৈরীর কাজ শুরু হয়েছে। তবে এবার বেচা-বিক্রি আশানুরূপ নয় বলে জানিয়েছেন  পাদুকা ব্যবসায়ীদের অনেকে। অন্যান্য বছর এই সময়ে পাদুকার যে চাহিদা থাকে তেমনটা নেই এবার। তবে ভালো ব্যবসার আশায় এবার বাহারী ডিজাইন এবং অন্যান্য বারের চেয়ে অধিক পরিমান পাদুকা তৈরী করেছেন ব্যবসায়ীরা। এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাদুকা ব্যবসায়ীরা বলছেন সরকারী পৃষ্টপোষকতা পেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তৈরী পাদুকা আর্ন্তজাতিক বাজারে পাঠানো সম্ভব। ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের পীরবাড়ি এলাকায় গড়ে উঠেছে ২ শতাধিক পাদুকা তৈরীর কারখানা। এখানে কাজ করে ৬ সহস্রাধিক শ্রমিক। প্রতি বছর রোজার ঈদকে সামনে রেখে দিনরাত পাদুকা তৈরীর কাজে ব্যস্ত থাকেন এই শ্রমিকরা। পাদুকা তৈরীর কারিগর বিল্লাল মিয়া ও ইয়াছিন মিয়া জানান,শবেবরাতের পর থেকে তাদের ব্যস্ততা শুরু হয়। যা থাকে কোরবানীর ঈদ পর্যন্ত। তারা আরো জানান,যত বেশী পাদুকা উৎপন্ন হয় তত বেশী লাভবান হন তারা। এদিকে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে উত্তাপ-উত্তেজনা না থাকায় এবার ভালো ব্যবসা হবে এই আশায় পাদুকার উৎপাদন বেশী পরিমানে করেছেন এখানকার কারখানার মালিকরা। তারিন সুজের মালিক নজরুল ইসলাম ও আরেকটি কারখানার মালিক বোখার জানান, এবার আশানুরুপ ব্যবসা হচ্ছেনা। অন্যান্যবার রোজার এই সময়ে যে বেচাবিক্রি হয় এবার তেমনটি হচ্ছেনা। চায়নাসহ অন্যান্য বিদেশে পাদুকা বাজার দখল করে নেয়ায় এই মন্দা বলে ধারনা কোন কোন ব্যবসায়ীর। তারপরও সরজমিনে দেখে গেছে বিভিন্ন কারখানায় দূরদূরান্তের পাদুকা ক্রেতাদের ভীড়। নবীনগরের শ্যামগ্রামের পাদুকা ব্যবসায়ী ফজলু মিয়া, কুমিল্লার মুরাদনগরের ইসমাইল হোসেন পাদুকা কিনতে এসেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। তারা জানান,গুনগতমান,ডিজাইন এবং স্থায়ীত্বের কারনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তৈরী পাদুকার ব্যাপক চাহিদা 

সম্ভাবনাময় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাদুকা শিল্প। এখানকার পাদুকা শ্রমিকদের হাতেই তৈরী হচ্ছে উন্নত মানের পাদুকা। কিন্তু নানা সমস্যায় এগিয়ে যেতে পারছেনা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাদুকা শিল্প। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাদুকা শিল্প মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মো: রানা সরকার জানান, সারা দেশেই যাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তৈরী পাদুকা। কিন্তু নানা সমস্যা থাকায় তারা অগ্রসর হতে পারছেননা। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পাদুকা শিল্প মালিক সমিতি সভাপতি কাজী শফি উদ্দিন বলেন 
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পাদুকা তৈরীতে গড়ে উঠেছে অভিজ্ঞ কারিগর। এখানে যে মানের পাদুকা তৈরী হয় তা বিদেশে রপ্তানীযোগ্য। সরকারী পৃষ্টপোষকতা পেলে সেটা অবশ্যই সম্ভব। 


 

 

    

 

এ জাতীয় আরও খবর