শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপে পরাজয়: আর্জেন্টিনায় ভয়াবহ দাঙ্গা

ar dangaডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালে জার্মানির কাছে ১-০ গোলে হেরে যাওয়ার পর আর্জেন্টিনায় ভয়াবহ দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ে।
রবিবার রাতে দাঙ্গা পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে ফুটবল ভক্ত দাঙ্গাবাজদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।
বুয়েন্স আয়ারসের কেন্দ্রস্থলে রবিবার রাতে নিজ দলের পারফরম্যান্স দেখতে জড়ো হয়েছিলেন হাজার হাজার ভক্ত। তবে খেলায় হেরে যাওয়ার পরই দৃশ্যপট পাল্টে যেতে থাকে। এ সময় মাত্রাতিরিক্ত মদপান করা যুবকরা তাদের মুখ ঢেকে পাথর নিক্ষেপ, দোকানপাট ভাঙচুর, রাস্তার লাইট তছনছ এবং এমনকি একটি থিয়েটারও ভেঙে ফেলে।
এ সময় সন্তানদের নিয়ে বাবা-মাকে পালাতে দেখা যায়। পুলিশ জানায়, তাদের অন্তত ২০ কর্মকর্তা আহত হয়েছে এবং অন্তত ৬০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
এর আগে ওবেলিস্কে অবশ্য ছিল ভিন্ন চিত্র। সব বয়সের হাজার হাজার ভক্ত আতশবাজি নিয়ে এখানে হাজির হয়েছিলেন। তাদের ‘ আর্জেন্টিনা! আর্জেন্টিনা! আর্জেন্টিনা!’ সেøাগানে আকাশ বাতাস ছিল প্রকম্পিত।
তবে বিপরীত চিত্রও দেখা গেছে। গত ২৪ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মত ফাইনালে খেলায় গর্বিত ও শোকার্ত হাজার হাজার আর্জেন্টাইন বুয়েন্স আয়ারসের খ্যাতনামা ওবেলিস্কে জড়ো হয়ে তাদের দলের প্রশংসা করেন। এখানে বিশাল পর্দায় খেলা দেখানোর ব্যবস্থা করা হয়।
আর্জেন্টাইন তারকা লিওলেন মেসির পারফরম্যান্সেও অনেককে নাখোশ দেখা যায়।
৩১ বছর বয়সী এডুয়ার্ডো রদ্রিগেজ বলেন, ‘ মেসি এখনো ম্যারাডোন হতে পারেননি।’
১৯৮৬ সালের দিয়েগো ম্যারাডোনার নেতৃত্বে বিশ্বকাপ জয় করে আর্জেন্টিনা। এরপর ১৯৯০ সালেও তিনি তার দেশকে ফাইনালে নিয়ে যান। সেবার ফাইনালে প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল জার্মানি।
রাজধানীর প্লাজা সান মার্টিনে দেশটির পতাকার রঙ নীল ও সাদার পোশাক পরে জড়ো হয়েছিলেন প্রায় ২০ হাজার দর্শক। খেলা শেষে তাদের মধ্যে নেমে আসে হতাশা।
সোলেদাদ ক্যানেলাস নামের ১৯ বছর বয়সী এক কিশোর বলেন, ‘আমি অসহনীয় কষ্ট পেয়েছি। আশা করেছিলাম জীবনে প্রথমবারের মত নিজ দেশের বিশ্বকাপ ট্রফি জয় দেখব।
নিজ দেশের বিশ্বকাপ জয়ের আশা নিয়ে ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে হাজির হয়েছিলেন প্রায় ৭০ হাজার আর্জেন্টাইন। নিজ দলের আকাশী নীল রঙের জার্সি পরে প্রায় ৪০ ঘণ্টা গাড়িতে ভ্রমণ শেষে তারা এখানে উপস্থিত হন। দিন রাত সেøাগানে সেøাগানে মারকানা স্টেডিয়ামের আশেপাশের এলাকা মুখরিত করে রাখেন তারা।
খেলা শেষে ভগ্ন হৃদয় নিয়েই তাদের ফিরে যেতে হয়।আরটিএনএন