বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিসিবি কাকে ক দ্যাখাচ্ছে!

e sakibরাশিদ রিয়াজ: ক্রিকেট তারকা সাকিব আল হাসানকে শাস্তির ঘোষণা দিয়ে চুপ করে বসে আছে বাংলাদেশ ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড বিসিবি। বরং বলা চলে কঠিন বিপাকে পড়েছে বিসিবি। ওদিকে বিসিবির দেওয়া শাস্তির ঘোষণা শোনার পর থেকে মুখে তালা মেরে আছেন সাকিব আল হাসান। তাঁর শাস্তির বিরুদ্ধে ভক্ত-সমর্থকেরা মানববন্ধনসহ বিভিন্নভাবে প্রতিবাদ জানালেও এ নিয়ে তিনি এখনো কোনো কথা বলেননি।

বিসিবি সবসময় নিজেদের পেশাদার বলে দাবি করে। অথচ বিসিবি এখন পর্যন্ত লিখিতভাবে শাস্তি প্রদানের বিষয়টি জানায়নি সাকিবকে। যতক্ষণ না ওই চিঠি হাতে পাচ্ছেন, ক্ষমা চাওয়া বা শাস্তির বিরুদ্ধে আপিলও করতে পারছেন না সাকিব আল হাসান। টেলিভিশনে ক্যামেরার সামনে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছিলেন, সাকিব ক্রিকেট অনুশীলন করতে পারবে। অনুশীলন তো দূরের কথা ঘর থেকে বের হতে পারছেন না সাকিব। কিভাবে তিনি বের হবেন, কোথায় যাবেন, কি করবেন, শাস্তির কথা ঘোষণা করেই খালাস, বিসিবি দুনিয়া সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানের জন্যে আর কিছু করার প্রয়োজন মনে করছেন না। কিভাবে একজন শীর্ষ খেলোয়াড়কে গড়ে তোলার পর সে যাতে পথভ্রষ্ট না হয়, সঠিক আচরণের মধ্যে থেকে দেশ ও ভক্তদের আরো চমৎকার খেলা উপহার দিতে পারে বিসিবি’র যে তা নিয়ে কোনো চিন্তার অবকাশ নেই তাই প্রমাণ করছে বোর্ড।

শাস্তি দেয়ার বিষয়টি অবশ্যই বোর্ড পেশাদার একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। বোর্ডের জানার কথা শাস্তি দেয়ার পর সাকিব আল হাসান কিভাবে এধরনের মানসিক চাপ বা দুশ্চিন্তার মধ্যে পড়বেন। কিভাবে এ বাজে পরিস্থিতি থেকে সাকিবকে ফিরিয়ে এনে আবার তাকে মাঠে খেলার মধ্যে নিয়োজিত করতে হবে এ নিয়ে বোর্ডের অবশ্যই একটা পরিকল্পনা থাকার কথা। কিন্তু শাস্তির ঘোষণা দিয়ে তা লিখিতভাবে সাকিবকে না জানিয়ে বোর্ড বসে আছে কোচের ভরসায়। এর দোষ ওর ঘাড়ে দিয়ে, খেলার পরিবেশ, কোচের কাজ করার পরিবেশ, খেলোয়াড়দের উৎকর্ষতার মধ্যে নিয়োজিত রাখার মত যত উদ্যোগ আছে তার কোনো অনুশীলনের ধার যে ধারে না বোর্ড তা এখন দিবালোকের মত স্পষ্ট। সাকিব আল হাসান বোর্ডের ডাকে সাড়া দিতে বিদেশ থেকে দেশে ফিরে আসতে এ মুহুর্তের জন্যে বিলম্ব করেননি। শাস্তি মাথা পেতে নিয়েছেন। এখন তার মাথা বোর্ডের যুপকাষ্ঠের নিচে থেকে বের করে এনে নতুন আরো উদ্দীপ্ত এক সাকিব আল হাসানকে উপহার দেয়ার বিন্দুমাত্র চেষ্টা বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে দেখা যাচ্ছে না। এধরনের বিষয়গুলো এর আগেও বিভিন্ন খেলোয়াড়দের ভবিষ্যত অঙ্কুরে বিনষ্ট করতে যথেষ্ট সাহায্য করেছে যার উদাহরণের ফিরিস্তি অনেক লম্বা।

সাকিবকে লঘু পাপে গুরুদণ্ড দেয়া হয়েছে এমন বক্তব্য এসেছে ক্রীড়া জগতে। এটা হতে পারে তা জানা ছিল বোর্ডের। বোর্ডের কোনো সদস্য কিংবা তাদের নিয়োজিত কোনো ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব সাকিবের এই কঠিন সময়ে পাশে দাঁড়ানোর প্রয়োজন মনে করছেন না। সাকিব এবং বিসিবি দুই পক্ষই এখন আছে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের ঢাকা ফেরার অপেক্ষায়। সাকিবের শাস্তির কথা শোনার পর কোচ ই-মেইলে বিসিবিকে জানিয়েছেন, বিষয়টা তিনি নিজে দেখতে চান। ছুটি কাটিয়ে ১৪ জুলাই রাতে ঢাকা ফেরার কথা হাথুরুসিংহের।

সাকিবকে দেওয়া শাস্তিটা বেশি হয়ে গেছে এমন উপলব্ধি আছে বিসিবিতেও! তবে উৎসাহে একবার শাস্তি দিয়ে ফেলার পর সেটি আবার নিজেদের উদ্যোগে কমাতে যাওয়াটা নিজেদের জন্যই বিব্রতকর মনে করছে বোর্ড। শাস্তি কমানোর ‘সম্মানজনক’ উপায় খোঁজা হচ্ছে বোর্ডেও তরফ থেকে। প্রাক্তন ক্রিকেট তারকারা সাকিব আল হাসানকে কোনো আশ্বাস দেয়ার প্রয়োজন মনে করছেন না। ক্রিকেটে খারাপ সময় আসে, এবং তা যে ভাল সময় ফিরে আসার পূর্ব লক্ষণ, কঠিন সময়ে সাকিবের পাশে দাঁড়িয়ে না হোক, মেইলে কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন কঠিন সংকল্পের কথা ব্যক্ত হচ্ছে খুব কমই। একজন সাকিব, একজন মাশরাফি একজন আশরাফুল দেশের জন্যে সম্পদ, তা কিভাবে বিনষ্ট হয়ে যায়, পরিচর্যার অভাবে ভাল বীজ যেমন পাথর চাপা পড়ে আর কোনো দিন অঙ্কুরোদগম হতে পারে না তেমনি দিশেহারা ভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে বিসিবি অনেক টাকা বেতন ভোগি কর্মকর্তাদের মধ্যে।

বোর্ডের আশা সাকিব দুঃখ প্রকাশ বা ক্ষমা চাক। তাহলেই তারা তাদেও শাস্তির মেয়াদ তুলে নিবেন বা শিথিল করবেন। অথবা কোচ হাথুরুসিংহে এসে যদি বোর্ডকে ‘অনুরোধ’ করে কমাতে পারেন শাস্তি। এক বোর্ড কর্মকর্তার অনুভূতি এমন যে, এখন আমরা মূলত কোচের জন্যই অপেক্ষা করছি। কোচ নাকি বলেছেন, তিনি নিজে বিষয়টার মীমাংসা করতে চান।

সাকিব চাইলেও এখনই ‘ক্ষমা’ চাইতে পারবেন না। আগে তো বিসিবির পক্ষ থেকে শাস্তির ঘোষণাটা তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানাতে হবে! তাঁকে যে আগামী দেড় বছর বিদেশি লিগে খেলতে দেওয়া হবে না বা তিনি যে আগামী ছয় মাস আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলতে পারবেন না, সেটা সাকিব জেনেছেন পত্রিকা পড়ে আর টেলিভিশন দেখে। বিসিবি আসলে এক ঘাঁ দেয়ার মত দেখিয়ে দিয়েছে। পরীক্ষায় সেই ছাত্রের মত দশা হয়েছে বিসিবি’র। কোনো অঙ্কই কমন পড়েনি বলে বিরাট একটা ‘ক’ লিখে মাস্টারের উদ্দেশ্যে খাতার নিচে লিখে রাখে ছাত্রটি ‘দ্যাখ শালা কত বড় ক! বিসিবি কাকে ক দ্যাখাচ্ছে!! – আমাদের সময়.কম

এ জাতীয় আরও খবর