মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাজা আছে রাজা নেই!

bajalখাদ্যে ভেজাল মেশানো অপরাধীদের সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। তবে সেটা আইন! যে আইন প্রায় পাঁচযুগ (৫৮ বছর) আগে প্রণয়ন করা হয়েছে। ভেজালবিরোধী এ আইনটি শুধু সংবিধানেই সীমাবদ্ধ। যার নেই কোনো প্রয়োগ। এ সুযোগেই অপরাধ করে চলেছে অপরাধীরা। আর ভোক্তা ও ক্রেতারা পাচ্ছেন অনিরাপদ ও ভেজালযুক্ত খাবার।

দেশে এখন চলছে ফরমালিন আতঙ্ক। ফরমালিন হলো এক ধরনের কেমিক্যাল, যা রসায়ন বিজ্ঞানের ভাষায় মিথান্যাল আর অ্যালকোহলের জলীয় দ্রবণ। এটি সাধারণত মেডিকেল সাইন্স ও বায়োলজির বিভিন্ন ল্যাবগুলোতে নানা জীবজন্তুর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংরক্ষণের কাজে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু সেই ফরমালিনে এখন সংরক্ষণ হচ্ছে খাদ্যদ্রব্য! আর এ কারণে খাবার হজমের সময় তা রক্তে চলে যায় এবং ধীরে ধীরে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ যেমন- পাকস্থলী, লিভার, কিডনি ইত্যাদিকে অকার্যকর করে ফেলে। এমনকি ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগ হওয়ার সম্ভাবনাও বাড়িয়ে দেয় কয়েকশত গুণ।

এ প্রসঙ্গে মেডিসিন, পরিপাকতন্ত্র, লিভার ও অগ্নাশয় বিশেষজ্ঞ ডা. আব্দুল্লাহ হেল আল কাফী বলেন, ‘ফরমালিন মানবদেহের খাদ্যনালী, পরিপাকতন্ত্র, লিভার, কিডনিসহ পুরো শরীরই ক্ষতিগ্রস্ত করে দেয়। এ কেমিক্যাল মানবদেহে গেলে যে লক্ষণগুলো দেখা যায় তাহলো- বমি, খাবারে অরুচি, স্বাস্থ্যহানী, স্বাস্থ্য ভেঙে যাওয়া।’ ফরমালিনের কারণে ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার, কিডনি সমস্যাসহ নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হয় বলেও জানান তিনি।

ইউরোপীয় দেশগুলো খাদ্যে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে খাবারে দশমিক ৩ থেকে দশমিক ৮ পরিমাণ ফরমালিন ব্যাবহার করা হয়। মালটা, আপেল, আম, জামসহ পচনশীল খাদ্যদ্রব্য ৩ থেকে ৫ দিন টিকিয়ে রাখার জন্য এ কেমিক্যাল ব্যবহৃত হয়। কিন্তু বাংলাদেশে ইউরোপীয় দেশগুলোর তুলনায় ৬০০/৮০০/১০০০ গুণ বেশি পরিমাণ ফরমালিন ব্যবহার করা হয় বলে জানান এই চিকিৎসক।

তিনি জানান, খেজুরে ফরমালিনের প্রয়োজন নেই কারণ এ ফল প্রাকৃতিকভাবেই অনেকদিন টিকে থাকে। তারপরও আমাদের দেশের কিছু অসাধু ব্যবসায়ী খেজুরে স্প্রে ব্যাবহার করে ফরমালিন মেশায়। গবেষণা রিপোর্টে এ তথ্যগুলোই উঠে এসেছে। ইউরোপীয় দেশগুলোতে মোটা আঁশযুক্ত খাদ্যদ্রব্যে পচনরোধে মূলত ফরমালিন ব্যবহার করা হয়।

ডা. কাফী বলেন, ‘ফরমালিন থেকে বাঁচার উপায় নেই। তবে ফরমালিনযুক্ত খাবার যদি ১০ মিনিট সময় পানিতে ভিজিয়ে রাখা যায় তাহলে দেখা যাবে ফলের উপরের অংশে থাকা ফরমালিন কিছুটা রোধ হয়। অথবা লবনযুক্ত পানিতে ফরমালিনযুক্ত ফল ভিজিয়ে রাখলেও ফরমালিন থেকে কিছুটা রক্ষা পাওয়া যাবে। তবে ফলের ভেতরের পানির ঘনত্ব লবনের পানির ঘনত্বের চেয়ে কম হতে হবে।’

খাদ্যে ফরমালিন ও ভেজাল প্রসঙ্গে পুরানা পল্টনের ফল ব্যাবসায়ী মোকাদ্দেস আলী বাংলামেইলকে বলেন, ‘কোন ফলে ফরমালিন আছে কোনটাতে নেই তা আমরা ভালো করে বলতে পারবো না। আমরা ফরমালিনের সাথে সরাসরি যুক্ত না। আমাদের কাছে সব ফলই ফরমালিনমুক্ত ভালো ফল। ভালো ফল আমদানি করে আমরা তা বাজারে বিক্রি করি।’

ফলমূলে ফরমালিন মেশালে যাবজ্জীবন সাজার বিধান রয়েছে, এ প্রসঙ্গে মোকাদ্দেস বলেন, ‘আমরা মোকাম থেকে আম, কাঁঠাল, লিচু, বেল, বড়ই নিয়ে আসি কোনটাতে কতটুকু ফরমালিন মেশানো আছে তা বলতে পারবো না। কাজেই সাজার ব্যাপারে আমাদের নজর দেয়ার প্রয়োজন নেই।’

এ বিষয়ে কথা হয় রাজধানী এজিবি কলোনির কাঁচাবাজারে আসা জিহাদ পারভেজ তুষারের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘যদিও ফরমালিন মারাত্মক ক্ষতিকর একটি রাসায়নিক পদার্থ, তারপরও আমরা বাজার থেকে খাদ্যদ্রব্য কিনে খাচ্ছি। কারণ খেতে তো হবেই।’

তিনি বলেন, ‘বাজারের কোথায় ফরমালনমুক্ত পণ্য পাওয়া যাচ্ছে না তাই ফরমালিনযুক্ত খাবারই কিনে খাচ্ছি আমরা।’

ফকিরেরপুলে সবজি কিনতে আসা শ্রী রিতা রানী ঘোষ বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমার মনে হয় সবজিতে তেমন ফরমালিন নেই। তবে সব ধরনের ফলমূলে কনফার্ম ফরমালিন আছে। বেঁচে থাকতে হবে তাই জেনেশুনেও আমরা এ জাতীয় খাবার কিনে খাচ্ছি।’

ফরমালিন নিয়ন্ত্রণ প্রসঙ্গে ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বাংলামেইলকে বলেন, ‘ফরমালিনমুক্ত করতে আমরা ইতিমধ্যে পুলিশের পক্ষ থেকে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়েছি, ভ্রাম্যমাণ আদালত গঠন করেছি।’

তিনি বলেন, ‘ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে আমরা বেশ কয়েকজন ব্যাবসায়ীকে দণ্ডও প্রদান করেছি। অর্থদণ্ড ও জরিমানাসহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।’ তবে কতজন ব্যবসায়ীকে কত টাকা জরিমানা ও কত দিনের সাজা প্রদান করা হয়েছে তা জানাননি এই পুলিশ কর্মকর্তা।

 

5 {focus_keyword} সাজা আছে রাজা নেই!   58

ফরমালিন ও খাদ্যে ভেজাল মেশানো প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দ মহিদুল কবির বাংলামেইলকে বলেন, ‘খাদ্যে ভেজাল নিয়ন্ত্রণ করতে প্রচলিত আইনই যথেষ্ট। নিরাপদ খাদ্য আইন (২০১৩)  ও খাদ্যে ভেজালরোধ এবং ফরমালিনমুক্ত করতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সবাই সমন্বিতভাবে কাজ করলে এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।’

সংবিধানের দ্বিতীয় ভাগের আর্টিকেল ১৮ এর(১ ও ২) উপ-ধারায় বলা আছে, ‘জনসাধারণের খাদ্যে পুষ্টি বিধানের নিমিত্ত্বে সরকার যথাযথ ব্যাবস্থা নিবে এবং স্বাস্থ্যেও জন্য ক্ষতিকর বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণ করবে। এটি রাষ্টের মৌলিক অধিকার নীতির অন্তর্ভুক্ত হবে।’ ১৯৭৪ সালের বিষেশ ক্ষমতা আইনের ধারা ২৫ এর (সি)তে বলা হয়েছে যে- খাদ্য, পানীয়, ঔষধ, কসমেটিকসে ভেজাল মেশালে সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হবে। সুতরাং এই আইনটিও ফরমালিনমুক্ত করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করবে বলে মনে করেন অ্যাডভোকেট সৈয়দ মহিদুল কবির।

এদিকে নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ বাস্তবায়নের নির্দেশনা চেয়ে গত ২১ মে সুপ্রিমকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় একটি রিট আবেদন করে লিগ্যাল অ্যাকশন ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ নামের মানবাধিকার সংগঠন। খাদ্যে ভেজাল ও ফরমালিন মেশানোর অভিযোগ এনে খাদ্য, স্বাস্থ্য, শিল্প, বাণিজ্য, আইন সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, র‌্যাবের মহাপরিচালক, বিএসটিআইসহ মোট ১১ জনকে বিবাদী করা হয় এ রিটে।

রিটের শুনানী শেষে গত ২৬ মে ১৫ দিনের মধ্যে নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ এর ধারা (১ ও ২) অনুযায়ী গেজেট বিজ্ঞাপন প্রকাশের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করতে নির্দেশ দেন আদালত। পাশাপাশি এ আইনের কার্যকারিতা বাস্তবায়নের বিষয়ে জানতে চেয়ে ২ সপ্তাহের রুল জারি করেন। সেই সঙ্গে এ সংক্রান্ত অগ্রগতি প্রতিবেদন আগামী ১৬ জুন আদালতে জমা দিতে বলা হয়।

পরে আদালতের আদেশ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাস্তবায়ন না করতে পেরে সময়ের আবেদন করে বিবাদীপক্ষ। সময়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ১ জুলাই আবার পরবর্তী সময় ধার্য করা হয়। সে দিনও তারা আদালতের কাছে প্রতিবেদনটি জমা দিতে পারেননি। যার ফলশ্রুতিতে আদালত আবার অগ্রগতি প্রতিবেদন জমা দিতে আগামী ৭ জুলাই সময় নির্ধারণ করেছেন।

উল্লেখ্য, সেই ১৯৫৬ সালে খাদ্যে ভেজাল নিয়ন্ত্রয়ণ করতে প্রথম একটি আইন প্রণয়ন করা হয়। বিশুদ্ধ খাদ্য নীতিমালা প্রণয়ন করতে আইন করা হয় ১৯৬৭ সালেও। এরপর প্রণয়ন করা হয়, খাদ্য বীজ সরবরাহ নিয়ন্ত্রণ অধ্যাদেশ বীজ সরবরাহ আইন ১৯৭৯।

ওষুধের ভেজাল নিয়ন্ত্রয়ণ করতে ২০০৬ সালে ড্রাগ কন্ট্রোল সংশোধনী আইন নামে একটি আইন প্রণয়ন করে সরকার। পরবর্তীতে খাদ্য ভেজালমুক্ত করতে ২০০৭ ও ২০০৯ সালে গঠন করা হয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। সেই আদালতই এখন কিছুটা সক্রিয়। কিন্তু সেটিও শতভাগ বাস্তবায়ন করা যায়নি। জনস্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে এবং নিরাপদ ও বিশুদ্ধ খাদ্য মানুষের দোড়গোড়ায় পৌঁছে দিতে জাতীয় সংসদে পাস করা হয় নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩। কিন্তু এ আইনকে বাস্তবায়নের জন্য এখনো প্রকাশ করা হয়নি গেজেট। আর তাই সংবিধান ও আইনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়ে গেছে ভেজালবিরোধী আইনগুলো।

পরবর্তীতে এ বছরের ৩০ জুন মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে ফরমালিন নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৩ চূড়ান্ত অনুমোদন করা হয়। এ আইনে বলা হয় ফরমালিন অবৈধভাবে আমদানি ও খাদ্যদ্রব্যে মেশালে সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ লাখ টাকা জরিমানা করা হবে। এতে আরো বলা হয়, এটি আমলযোগ্য অপরাধ এবং এ অপরাধের সঙ্গে জড়িত আসামিকে বিনা ওয়ার্ন্টেই গ্রেপ্তার করতে পারবে পুলিশ। এ ধরনের অপরাধ আপোস ও জামিন অযোগ্য।

এই আইনটি মন্ত্রিপরিষদ সচিবের মাধ্যমে জনসম্মুখে প্রকাশ করে সরকার। কিন্তু এটি নিয়ে এখনো কোনো ধরনের কনসালটেন্সি করা হয়নি। অর্থাৎ এ আইনের প্রয়োগ নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এখনো কোনো ধরনের মতবিনিময় ও সভা করা হয়নি। কনসালটেন্সি হলো নতুন কোনো আইন প্রণয়ন করতে হলে এ আইনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে মতবিনিময় করা।

এ জাতীয় আরও খবর

সেপটিক ট্যাঙ্কে মিলল আনারের দেহের ‍অংশ

এমপি আনার খুন: দেহাংশ খুঁজতে ভাঙা হবে সঞ্জীবা গার্ডেনসের স্যুয়ারেজ লাইন

প্রাথমিকে ৪৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া হাইকোর্টে স্থগিত

বেনজীর ও তার স্ত্রী-সন্তা‌নদের সব বিও হিসাব ফ্রিজ

ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিলো স্পেন-নরওয়ে

কাল ঢাকায় আসছেন আইএমও মহাসচিব

আরও তিন উপজেলার ভোট স্থগিত

ঈদুল আজহায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির তারিখ ঘোষণা

উপকূলে এখনো থামেনি ঘূর্ণিঝড় রিমালের দাপট

বিয়ের ১২ দিন পর স্ত্রী হয়ে গেলেন পুরুষ

অপরাধী হলে শাস্তি পেতেই হবে, সাবেক সেনাপ্রধান-আইজিপির বিষয়ে কাদের

সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ৭০ হাজার পদ ফাঁকা : জনপ্রশাসনমন্ত্রী