শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পালিয়ে বিয়ে করতে যাচ্ছেন?মাথায় রাখুন ১০টি বিষয়

love merigভালোবাসার সম্পর্ক সব সময় যে বিয়ে অবধি গড়ায় তা নয়। অনেক সময়েই বিয়ে পর্যন্ত ভালোবাসার সম্পর্ক নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না। অনেক সময় এক কারণ থাকে নিজেদের মধ্যে সমস্যা। আবার অনেক সময় কারণ হয়ে দাঁড়ায় অভিভাবকের অসম্মতি। বাবা-মায়ের অসম্মতির কারণে অনেক ভালোবাসার সম্পর্কে ইতি আসে।

কিন্তু সব সময় ইতি আসে ভালোবাসার সম্পর্কে তাও নয়। অনেকেই বাবা-মায়ের অসম্মতির পরও নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন বিয়ে করার জন্য। ঘর পালিয়ে বিয়ে করতে রাজি হয়ে যান দুজনেই। করে ফেলেন পরিবারকে ছেড়ে যাওয়ার দুঃসাহসিক কাজটি। কিন্তু অনেকেই সে সময়টাতে বুঝে উঠতে পারেন না কী করা উচিৎ এবং নানা ধরণের ভুল করে থাকেন। আজকে চলুন দেখে নেয়া যাক ঘর পালিয়ে বিয়ে করতে চাইলে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে সেই বিষয়গুলি।

১)যে মানুষটিকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন তার সম্পর্কে খুব ভালো করে খোঁজ খবর নিন

ভালোবাসার সম্পর্ক এবং বিয়ের সম্পর্ক এক জিনিস নয়। বিয়েটা সারাজীবনের একটি বন্ধন। অনেক চিন্তা ভাবনা করেই মানুষ এই সম্পর্কে জড়ায়। আপনার আপাত দৃষ্টিতে হয়তো সব কিছুই পারফেক্ট মনে হচ্ছে কিন্তু তা পারফেক্ট নাও হতে পারে। নিজের পছন্দের মানুষটির ক্ষেত্রেও হতে পারে এই ব্যাপারটি। যার সাথে এবং যার জন্য নিজের ঘর ছাড়তে যাচ্ছেন তার সম্পর্ক খুঁটিনাটি সব তথ্য জেনে নিন। যে মানুষটিকে ঘর পালিয়ে বিয়ে করতে চাচ্ছেন তার সম্পর্কে সব কিছু জানুন ভালো করে। খুব ভালো করে খোঁজ খবর করুন।

২)অসংখ্যবার ভেবে দেখুন আসলেই বিয়ে করতে চান কিনা

বাবা মায়ের অসম্মতি থাকলে অনেকেই জেদের বসে এবং আবেগের কারণে ঘর পালিয়ে না জানিয়ে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন। এবং পরবর্তীতে মনে করেন ভুল করেছি ও অনেক কষ্ট পান। তাই নিজেকে ভালো করে প্রশ্ন করুন এটি কি অতিরিক্ত আবেগের ফলাফল নাকি সত্যিই আপনার ভালোবাসা তার জন্য অটুট। আপনি তাকে ছাড়া কিছুই করতে পারবেন না। অনেকবার ভেবে দেখে তবেই একটি সিদ্ধান্ত গ্রহন করুন।

৩)মা-বাবাকে বোঝাবার সকল চেষ্টা করে দেখুন

নিজের অবিভাবককে বোঝানোর সর্বাত্মক চেষ্টা করুন। বাবা-মা সন্তানের ভালোই চান। তারা আপনার কাজে অসম্মতি জানালে আপনার ভালোর জন্যই করবেন। কিন্তু আপনি আপনার অবিভাভকের সম্মতি পাওয়ার জন্য সকল চেষ্টা করে দেখুন।

৪)একা কোনো সিধান্ত নেবেন না, বন্ধুদের সাথে আলোচনা করুন

একা কোনো সিদ্ধান্ত নিলে তা ভুল কি সঠিক তা অনেক সময়েই বোঝার উপায় থাকে না তাই সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বন্ধুদের জানান। এবং ঘর পালাতে চাইলে বন্ধুদের সাথে পরামর্শ করে সাহায্য নিয়ে কাজ করুন। বন্ধুরা আপনাকে অনেক সাহায্য করতে পারবেন।

৫)বেশ বড় অংকের একটা টাকা জমিয়ে নিন

যদি আপনি সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলেন ঘর ছেড়ে বিয়ে করার তাহলে আগে বেশ বড় অংকের টাকা জমিয়ে নিন। কারণ বিয়ে পরবর্তী অনেক খরচ রয়েছে যা আপনার সামনে আসবে। সে সময়টার জন্য নিজেদের প্রস্তুত রাখুন। এবং নিজের মতো করে একটি বাসস্থান খুঁজে বের করুন।

৬)বেশ কিছু বিশ্বাসী সাক্ষী যোগাড় করে ফেলুন

যেহেতু ঘর পালিয়ে বিয়ে করতে যাচ্ছেন, সেহেতু বিয়েটা বৈধ করার জন্য আপনার অনেক সাক্ষীর প্রয়োজন পড়বে। বিয়ে পরবর্তী সময়েও আপনাদের বিরুদ্ধে কোনো আনিনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হলে যাতে সাক্ষী আপনাদের পক্ষে কথা বলতে পারেন সেই ব্যবস্থা করুন।

৭)অবশ্যই বিয়েটা শতভাগ আইন মেনে করবেন, কেবল ধর্মমতে হলে হবে না

কোর্ট ম্যারেজ বা রেজিস্টার বিয়ের কিছু নিয়মাবলী রয়েছে সেই আইন অনুযায়ী বিয়ে করুন। শুধুমাত্র ধর্মমতে বিয়ে করলেই হবে না। কারণ সেই সকল আইন অমান্য করে বিয়ে হলে আপনার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হতে পারে। আইন মেনে চলার ব্যাপারে সতর্ক থাকুন।

৮)কী কী সমস্যা হতে পারে সেগুলো নিয়ে সঙ্গীর সাথে আলোচনা করে রাখুন

ঘর পালিয়ে বিয়ে করে ফেললেই ঝামেলা শেষ নয়। বরং তখন ঝামেলার শুরু। কি কি ধরণের ঝামেলা হতে পারে, কোন ধরণের সমস্যায় পড়তে পারেন আপনারা তা নিয়ে সঙ্গীর সাথে কথা বলে রাখুন। পরিবারের দিক থেকে কোনো ধরণের ঝামেলা আসতে পারে তাও বলে রাখুন। এতে করে দুজনে মিলে ঝামেলা মেটাতে পারবেন।

৯)সম্ভাব্য বিপদের প্রস্তুতি নিন

ঘর পালিয়ে বিয়ে সেরে ফেলার পর যদি মনে করে থাকেন সব বিপদ শেষ তাহলে ভুল ভাববেন। যে সমস্যাগুলো তৈরি করতে পারে পরিবার বা আত্মীয়স্বজন সে সমস্যা থেকে সম্ভাব্য বিপদের জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখুন। প্রয়োজনে বন্ধুবান্ধবের সাহায্য নিন। বন্ধুবান্ধবকেও এব্যাপারে সতর্ক করে দিয়ে প্রস্তুত থাকুন।

১০)একটা বড় ঝড় আসবে সেই প্রস্তুতি রাখুন

যে কোনো ধরণের সমস্যার প্রস্তুতি নিয়ে রাখুন। সমস্যা কতোটা বড় হবে তা অনেকাংশে নির্ভর করে আপনাদের পরিবারের মনোমানসিকতার ওপর। যদি আশংকা করেন অনেক বড় ধরণের সমস্যায় পড়তে পারেন তবে সে ধরণের প্রস্তুতি নিয়ে মনকে শক্ত রাখবেন।