বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

স্বাস্থ্যকর রমজানের প্রস্তুতির জন্য কিছু পরামর্শ

Ramjan Mubarakসংযমের মাস রমজান। আর এ মাসের জন্য কীভাবে প্রস্তুতি নেবেন, তা নিয়েই এ লেখা। এ পরামর্শগুলো অনুযায়ী সফলভাবে প্রস্তুতি নিতে পারলে আপনি নিজেই এর উপকারিতা বুঝতে পারবেন। গত বছরের তুলনায় এ বছরের রোজা আপনার কাছে অনেক সহজ হয়ে আসবে।



১. আগেই পানি পান করুন



রমজান মাস আসার আগে থেকেই প্রস্তুতি নেওয়া প্রয়োজন। এ জন্য রমজান শুরুর কয়েক দিন আগে থেকেই অতিরিক্ত পানি পান করার অভ্যাস করুন। এতে দেহে পানি ধারণক্ষমতা বাড়বে। ফলে রোজা রাখার জন্য প্রস্তুত হবে আপনার দেহ। রমজান শুরুর পর দিনে পানি পান না করার ঘাটতি পুষিয়ে দিতে হবে রাতে বাড়তি পানি পান করে। রোজা রাখার পরও রাতে প্রতিদিন কমপক্ষে আট গ্লাস পানি পান করতে হবে। আর যদি আপনি গরম পরিবেশে পরিশ্রমের কাজ করেন তাহলে তার চেয়েও বেশি পানি পান করতে হবে।



২. খাবার থেকে চিনি, লবণ, ভাজা-পোড়া, তেল কমিয়ে দিন



আপনার খাবার থেকে কৃত্রিম চিনি ও লবণ কমিয়ে দিন। কমিয়ে ফেলুন ভাজা-পোড়া ও তেলযুক্ত খাবার। এ ছাড়াও ছোট ছোট খাবার বা নাস্তা বাদ দিন, যাতে থাকতে পারে বিস্কুট, কেক, চিপস, কোমল পানীয়, বোতলজাত পানীয় ও প্রক্রিয়াজাতকৃত খাবার। এসব বাদ দিলে আপনার হজম অনেক সহজ হয়ে যাবে। এ নিয়মটি পালন করলে আপনার পানির সমস্যা, খারাপ মুড, পিপাসা ও মুখের দুর্গন্ধ কমে আসবে।



৩. ধীরে ধীরে খান



খাওয়ার সময় বাড়িয়ে নিয়ে ধীরে ধীরে খাওয়ার অভ্যাস করলে তা অনেক উপকার হয়। কেউ যদি এ কাজে সক্ষম না হন তাহলে একটি উপায় অবলম্বন করতে পারেন। আপনার একটি ঘড়ি ও কাগজ-কলম দরকার এ কাজটি করার জন্য। এবার যা করতে হবে তা হলো-

-খাওয়ার শুরুর সময়টি কাগজে লিখে রাখুন।

-খাওয়া শেষ হওয়ার সময়টি লিখে রাখুন।

-খাওয়ার সময় যদি ২০ মিনিট না হয়, তাহলে তা ২০ মিনিটে নিয়ে আসুন।

ধীরে ধীরে খাওয়া একটি ভালো অভ্যাস। একমনে ধীরে ধীরে খেলে খাবারের সঙ্গে মস্তিষ্কের সংযোগ তৈরি হয়। এর ফলে হজমশক্তি বাড়ে। আর রমজান মাসে রোজা ভাঙার পর অর্ধেক ইফতার করা হলে মাঝখানে নামাজের বিরতি দিয়ে ফিরে এসে আবার খাবার খাওয়া সম্ভব।

 

৪. জিহ্বা পরিষ্কার করুন



টুথব্রাশ যারা ব্যবহার করেন, তাদের জন্য এটি একটি নিয়মিত পরিচ্ছন্নতামূলক কাজ হতে পারে। এ জন্য বাজারে জিহ্বা পরিষ্কারক (টাং ক্লিনার) পাওয়া যায়। এর মাধ্যমে মুখের জীবাণু অনেকখানি দূর করা যায়। ফলে কমে আসবে মুখের দুর্গন্ধ। আর এতে হজমেরও উপকার হবে। কারণ মুখের সুস্থতার সঙ্গে হজমের সুস্থতা জড়িত। মুখে থাকে কোটি কোটি ব্যাকটেরিয়া। খাবার গ্রহণের সময় এগুলো মুখ থেকে পাকস্থলিতে চলে যায়। আর মুখ যতটা সম্ভব পরিষ্কার করা সম্ভব হলে এ ব্যাকটেরিয়াও কমে যাবে।



৫. প্রলোভনে ভুলবেন না



বাজারে নানা মুখরোচক খাবারের ছড়াছড়ি দেখা যায় রমজানে। এসব খাবারের অধিকাংশই অস্বাস্থ্যকর। এসব খাবার কেনার আগে একটু চিন্তা করে নিন। রমজান মাস সংযমের মাস। এ সময়ে আপনার পানাহারে স্বাস্থ্যকর উপাদানই রাখা উচিত। বিক্রেতাদের এসব প্রলোভন থেকে মুক্তির জন্য বাজারে যাওয়ার আগে বাসা থেকেই তালিকা করে নিন কিছু স্বাস্থ্যকর খাবার ও ফলমূলের। এরপর বাজারে গিয়ে সে তালিকা অনুযায়ী কেনাকাটা করুন।



৬. নিয়মিত গোসল করুন



নিয়মিত গোসল করলে তা রমজান মাসে আপনার সুস্বাস্থ্য ধরে রাখতে সহায়ক হবে। এ ছাড়া গোসলের পানিতে দিতে পারেন ইপসম লবণ। এটি কোনো সাধারণ লবণ নয়। এগুলো খনিজ লবণের ছোট স্ফটিক আকারে পাওয়া যায়। এ খনিজ উপাদানটি আপনার দেহ শিথিল করতে সাহায্য করবে। এ উপাদানটি ব্যথা ও ত্বকের শুষ্কতার সমস্যাসহ বেশ কিছু রোগের উপশম করে। মানসিক অবসাদও দূর করে। এ জন্য এক কাপের চার ভাগের এক ভাগ ইপসম লবণ আপনার গোসলের পানিতে মিশিয়ে দিতে পারেন। এর পর ১৫ মিনিট ধরে তা গুলিয়ে নিতে হবে। এরপর তা দিয়ে গোসল সারতে হবে। এ সময় অন্য কোনো প্রসাধনী ব্যবহার করা যাবে না। গোসল শেষ হলে তা আবার পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।



৭. সুস্থ জীবনযাপন অভ্যাস করুন



এ মাসটি আপনার জন্য সংযমের মাস। আর এ মাসে অভ্যাস করতে হবে সুস্থ জীবনযাপনের। জীবনের সব অন্যায় অবিচার বাদ দেওয়ার অভ্যাস করতে হবে এ মাসেই। আপনার সম্পর্কের ব্যাপারে সচেতন হোন। সুস্থ সম্পর্ক গড়ে তুলুন। নিজের পিতা-মাতা, সন্তান, দাদা-দাদি, নানা-নানি, প্রতিবেশী, বন্ধু ও পরিচিত জনদের খবর নিন। তাদের প্রতি দয়ালু হোন। নিজেকে সামাজিকভাবে বিচ্ছিন্ন করবেন না।



৮. ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য বজায় রেখে ডায়েট করুন



অনেকে রমজান মাস ছাড়াই খাবারের ব্যাপারে সংযমী হয়ে ওজন কমানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু রমজান মাস আসলে অতিরিক্ত পানাহার করে গণ্ডগোল বাধিয়ে ফেলেন। যদিও এ মাসে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য বজায় রেখে ডায়েটিংয়ের সুযোগ রয়েছে। যেহেতু এ মাসে পানাহারের ও বিরতির নির্দিষ্ট সময় রয়েছে, তাই এ সুযোগটি কাজে লাগানো সম্ভব। এ জন্য আপনার প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী খাবারের একটি বাস্তবসম্মত তালিকা করুন ও সে অনুযায়ী পানাহার করুন। আর এভাবেই স্বাস্থ্যকর পানাহারের অভ্যাস গড়ে তুলতে পারবেন।



৯. স্বাস্থ্যকর খাবারের জন্য সময় দিন



অনেকেই সারা বছর খাবারের পেছনে যে সময় ও মনোযোগ ব্যয় করেন, তার চেয়ে বেশি মনোযোগ দেন রমজান মাসে। এ মনোযোগ ও সময়ের সদ্ব্যবহার করে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস গড়ে তোলা সম্ভব। এ জন্য বিভিন্ন পুষ্টিকর খাবারের রেসিপি সংগ্রহ করুন এবং তা ইফতারের জন্য প্রস্তুত করুন। বাদ দিন যাবতীয় অস্বাস্থ্যকর খাবার।



১০. মানসিক সন্তুষ্টি অর্জন করুন



রমজান মাসে আপনি আর আগের মতো জীবনযাপন করবেন না বলে প্রতিজ্ঞা করুন। আপনার প্রতিটি দিন হয়ে উঠুক আগের থেকে ভিন্ন। ধর্মকর্মে মন দিন। নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী দান করুন ও দান সংগ্রহ করে যার সত্যিকার প্রয়োজন, তাকেই দিন। ক্ষুধার্ত মানুষকে খাবার দিন। আর এভাবেই আপনি মানসিক শান্তি ও সন্তুষ্টি লাভ করবেন।