মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভূমিদস্যুদের দৌরাত্বে জঙ্গলীসার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস ও পরীক্ষা কোনটাই হতে পারেনি

School Pic-1আমিরজাদা চৌধুরী: রোজার বন্ধ শুরু হয়ে গেছে। কিন্তু আরো দু-মাস আগে থেকেই পড়াশুনা বন্ধ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জঙ্গলীসার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের। মুল্যায়ন পরীক্ষাও হতে পারেনি। ভূমিদস্যুদের হুমকী-ধামকি,বিদ্যালয়ে এসে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় লাটে উঠেছে বিদ্যালয়টির শিক্ষা কার্যক্রম। গত দু-মাস ধরে একের পর এক ঘটনায় বিদ্যালয়টি প্রায় অচল হয়ে পড়ে। বিদ্যালয়ের টিনের বেড়া খুলে নিয়ে যায় ভূমিদস্যুরা। নিয়ে যায় আসবাবপত্র। এই অবস্থায়  বেড়াবিহীন খোলা স্কুল ঘরে ক্লাস শুরু হলে ভূমিদস্যুরা ধাওয়া করে তাড়িয়ে দেয় শিক্ষার্থীদের। শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে,স্কুলে আসা যাওয়ার পথে ভয়ভীতি দেখাতে  থাকে ভূমিদস্যুরা। এদিকে বিদ্যালয়টি রক্ষায় ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে তৎপর বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যদেরও হুমকী দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিদ্যালয় ভাঙ্গচুর ও আসবাবপত্র লুটপাটের ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামীরা কারাগার থেকে বেড়িয়ে এলে দেখে নেয়া হবে বলে গ্রামে হুমকী দিয়ে বেড়াচ্ছে ভূমিদস্যুদের সাঙ্গপাঙ্গরা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের বুধল ইউনিয়নের জঙ্গলীসার গ্রামের ৩১৯ দাগের ১০ শতক পরিমান ডোবা ভরাট করে ২০০৪ সালের ১ জানুয়ারি গ্রামবাসী নিজ উদ্যোগে টিনশেড একটি ঘরে বেসরকারি এই প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৫০ শিক্ষার্থী ও চার জন নারী শিক্ষক নিয়ে যাত্রা শুরু হয় বিদ্যালয়টির। এর কয়েক বছর পরই বুধল বাজার লাগোয়া বিদ্যালয়ের লোভনীয় জায়গাটির দিকে নজর পড়ে ভূমিদস্যুদের। সরকারী খাস জায়গাটিতে  মার্কেট করার জন্যে তৎপর হয়ে উঠে গিয়াস উদ্দিন ও সাত্তার মিয়ার নেতৃত্বে গ্রামের একটি ভূমিদস্যু দল। এরপরই ঐ জায়গা থেকে বিদ্যালয়টি উচ্ছেদে নানা তৎপরতায় লিপ্ত হয় এরা। দফায় দফায় হামলা চালাতে থাকে বিদ্যালয়ে। গত প্রায় দু-বছর ধরেই বিদ্যালয়ের জায়গাটি দখলে তাদের এই তৎপরতা চলছে ।  গত কয়েকদিন আগে বিদ্যালয়ের একটি ঘরের টিনের চারপাশের বেড়া খুলে নিয়ে যায়। নিয়ে যায় সব আসবাবপত্র। এর আগেও  বিদ্যালয়ের টেবিল, চেয়ার, বেঞ্চ,ব্ল্যাকবোর্ড, দরজা-জানালা ও বেড়া ভেঙ্গে ফেলে দেয় । তখন বিদ্যালয়ের দেড় শতাধিক শিশু শিক্ষার্থীকে ক্লাস করতে হয় খোলা আকাশের নিচে।এরপর বিদ্যালয়ের মাঠ আর চারিপাশে বাশের স্তুপ,বনের কুঞ্জি,লাকড়ীর স্তুপ ফেলে ,টং ঘর বসিয়ে ছাত্রছাত্রীদের আসা-যাওয়ায় বাধার সৃষ্টি করা হয়।২০১২ সালের ২৭ আগস্ট বিদ্যালয়ের সামনের রাস্তায় জোরপূর্বক আধা পাকা দোকানঘর নির্মাণ করে। এসব ঘটনায় মামলা-মোকদ্দমা হয়েছে একাধিক। গত ১৪ ই জুন বিদ্যালয় ভাঙ্গচুর ও লুটপাটের একটি মামলায় হাজিরা দিতে গেলে ১৪ আসামীকে জেল হাজতে পাঠায় আদালত। গিয়াস উদ্দিন ও সাত্তার মিয়া বিদ্যালয়ের জায়গাটিতে মার্কেট নির্মাণের উদ্দেশ্যে স্থায়ী বন্দোবস্ত নিতে ২০১২ সালের ৪ জুলাই জেলা প্রশাসক বরাবর একটি আবেদন করেন। কিন্তু সেখানে বিদ্যালয় থাকার কারনে  তাদের আবেদন প্রত্যাখাত হলে তারা বিদ্যালয়টিকে উচ্ছেদের চেষ্টায় নামে। 

 

 

 

 

    

 

এ জাতীয় আরও খবর

সেপটিক ট্যাঙ্কে মিলল আনারের দেহের ‍অংশ

এমপি আনার খুন: দেহাংশ খুঁজতে ভাঙা হবে সঞ্জীবা গার্ডেনসের স্যুয়ারেজ লাইন

প্রাথমিকে ৪৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া হাইকোর্টে স্থগিত

বেনজীর ও তার স্ত্রী-সন্তা‌নদের সব বিও হিসাব ফ্রিজ

ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিলো স্পেন-নরওয়ে

কাল ঢাকায় আসছেন আইএমও মহাসচিব

আরও তিন উপজেলার ভোট স্থগিত

ঈদুল আজহায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির তারিখ ঘোষণা

উপকূলে এখনো থামেনি ঘূর্ণিঝড় রিমালের দাপট

বিয়ের ১২ দিন পর স্ত্রী হয়ে গেলেন পুরুষ

অপরাধী হলে শাস্তি পেতেই হবে, সাবেক সেনাপ্রধান-আইজিপির বিষয়ে কাদের

সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ৭০ হাজার পদ ফাঁকা : জনপ্রশাসনমন্ত্রী