শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাঞ্চারামপুর উপজেলা নির্বাচন বৈরী আবহাওয়া বাধা হতে পারেনি প্রচারণায়

AzizBabuJavedJoly AmirMintuuuuNurul IslamSabujSuchi PP Photo_02আমিরজাদা চৌধুরী: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্চারামপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ সময়ের প্রচার-প্রচারণা জমে উঠেছে। বৃষ্টি উপেক্ষা করেই প্রার্থীরা চালাচ্ছেন প্রচারনা। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মোট প্রতিদ্বন্ধি ৪ জন। লড়াইয়ের হিসেবে বাকী ৩ প্রতিদ্বন্ধিকে গননায় ধরছেনা আওয়ামীলীগ। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো: নূরুল ইসলাম নিজেই বলেছেন বাকী ৩ জনের অবস্থা তেমন সুবিধের নয়। আওয়ামীলীগের ভিত এখানে মজবুত। তবে অন্য প্রার্থীদের অভিযোগ আওয়ামীলীগ কেন্দ্র দখলের পরিকল্পনা করছে। ওদিকে বিএনপি’র সমর্থক থাকলেও নেতাকর্মীরা মাঠে নেই। জেলার নেতারাও যাননি সেখানে। এই অবস্থায় আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সঙ্গে নির্দলীয় প্রার্থী সাইদ উদ্দিন খান জাভেদের সরাসরি প্রতিদ্বন্ধিতার কথা জানিয়েছেন ভোটাররা।যদিও বিএনপি প্রার্থী বলেছেন নির্বাচন সুষ্টু হলে তার জয় নিশ্চিত।  আগামীকাল বৃহস্পতিবার এই উপজেলায় নির্বাচন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন এবং পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। ১৩ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এই উপজেলার ভোটার ১ লাখ ৯৩ হাজার ৪২১ জন।  ৮৩ টি কেন্দ্রে ভোট দেবেন তারা ।নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হচ্ছেন উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মো: নুরুল ইসলাম,বিএনপি’র মাহবুব হাসান বাবু,নির্দলীয় সাইদ উদ্দিন খান জাবেদ ও মো: আজিজুল হক। আওয়ামীলীগ চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের দুটি পদে প্রার্থী দিলেও বিএনপি সব কটি পদে প্রার্থী দিতে পারেনি। চেয়ারম্যান ও পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়েছে শুধু বিএনপি। অভিযোগ এই প্রার্থীদের পেছনেও নেই দলের নেতাকর্মীরা। প্রচারনার একেবারে শেষ পর্যায়ে সোমবার এই আসনের বিএনপি দলীয় সাবেক এমপি আবদুল খালেক এলাকায় আসেন। অবশ্য কেন্দ্রীয় বিএনপি’র কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক সিকদার আগে থেকেই এলাকায় অবস্থান করে কাজ করছেন। বিএনপি সুত্র জানিয়েছে,জেলা বিএনপি’র নেতারা একদিনের জন্যে যাননি সেখানে। প্রার্থী একাধিকবার যোগাযোগ করেছেন জেলার নেতাদের সঙ্গে। কিন্তু তারা সারা দেননি। তাছাড়া দলে কোন্দল রয়েছে। প্রার্থী সিলেকশন নিয়েও বিভক্ত বিএনপি। দলীয় ভোটাররা বিভ্রান্ত। দলের ঐ সুত্রটি জানায়, প্রার্থী মাহবুব হাসান বাবু ক’দিন আগে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়েছিলেন।এরপর এখন আবার বিএনপি থেকে প্রার্থী হয়েছেন। সেকারনে ইমেজ সংকটে পড়েছে বিএনপি। দশদোনার রফিক মিয়া নামে এক বিএনপি সমর্থক বলেন জোয়ার এলে আউশ ফসল যখন তলিয়ে যায় তখন বেশী কামলা(শ্রমিক) নিয়ে দ্রুত ফসল কেটে ঘরে তুলতে হয়। বিএনপি’র সেই অবস্থা নেই। এই অবস্থায় নির্দলীয় প্রার্থী সাইদ উদ্দিন খান জাভেদকে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর প্রধান প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে গণ্য করছেন ভোটাররা। জাভেদ-এর দাদা জহিরুল হক লিল মিয়া ছিলেন পূর্ব পাকিস্তান সরকারের একজন মন্ত্রী। তার চাচা এ ডব্লিউ এম আবদুল হক ছিলেন সাবেক এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যান। জাবেদ ইংল্যান্ডের ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি থেকে øাতক ডিগ্রীধারী। দেশে-বিদেশে রয়েছে তার নানা ব্যবসা। ধনাঢ্য হওয়ায় এলাকায় দান-খয়রাতে উদারহস্ত হিসেবে পরিচিত তিনি। পারিবারিক ও নিজের অবস্থানের কারনে শক্ত প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে বিবেচিত হচ্ছেন জাবেদ। রূপসদী গ্রামের আল আমিন বলেন নির্বাচনে আওয়ামীলীগ আর নির্দলীয় প্রার্থী জাভেদের মধ্যেই প্রতিদ্বন্ধিতা হবে।

সরজমিনে খোজখবর নেয়ার সময় অনেকেই বলেছেন আওয়ামীলীগ তাকেই হিসেবে রেখেছে। যদিও আওয়ামীলীগের প্রার্থী  উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: নূরুল ইসলাম বলেছেন আওয়ামীলীগের সাথে আর কারো কম্পিটেশন হবেনা।আওয়ামীলীগ ওয়েল অর্গানাইজড।এখন স্বতন্ত্রের ভাত নেই। আর বিএনপি’র যিনি প্রার্থী হয়েছেন তিনি ক’দিন আগে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়েছিলেন। আরেক নির্দলীয় প্রার্থী আজিজুল হককে কেউ চিনেনা।তবে তিনি এও বলেছেন ৫ বছর ধরে তারা এলাকার উন্নয়ন করেছেন। এখন এলাকার মানুষ যদি নির্দলীয় প্রার্থীকে নিয়ে পড়ে থাকে তাহলে আমরা সেখানে আর উন্নয়ন করবোনা এবং ঐএলাকার আওয়ামীলীগ নেতাদের পদ রাখা হবেনা। জানা গেছে,বিএনপি’র প্রার্থী মাহবুব হাসান বাবু ১৯৯০ সাল পরবর্তীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পরে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। কয়েক মাস আগে তিনি আবার দলবল নিয়ে আওয়ামীলীগে যোগ দেয়ার চেষ্টা করেন। বাঞ্চারামপুর এসএম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি পদে জয়ী হতে বাবু আওয়ামীলীগে যোগ দিতে যান। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম নিজেই জানিয়েছেন একথা। তিনি বলেন বাবু দলবল নিয়ে আমার অফিসে এসছিলো আওয়ামীলীগে যোগ দিতে। আমি তাকে ‘নাটক’ করোনা বলে ফিরিয়ে দেই। তবে বাবু বলেছেন তিনি আওয়ামীলীগে যোগ দিতে গিয়েছিলেন এর কোন প্রমান নেই্। তাকে কেনার জন্যে অনেকে চেষ্টা করেন কিন্তু পারেননা। তিনি বলেন নির্বাচন সুষ্টু হলে তার জয় হবে। তার অভিযোগ আওয়ামীলীগ বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোট কাটার চেষ্টা করছে। মানিকপুর, উজানচর ও সদর ইউনিয়নে এসব কেন্দ্র রয়েছে। এসব কেন্দ্র দখলের অভিযোগ আছে অন্যান্য প্রার্থীদের পক্ষ থেকেও। তবে নির্বাচন সুষ্টু করতে প্রশাসন কড়াকড়ি ব্যবস্থা গ্রহন করেছে বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং অফিসার আজাদ ছাল্লাল। তিনি জানান,সেনাবাহিনীর ৫ টি,বিজিবি’র ৮টি ও র‌্যাবের ৩ টি দল থাকবে। পাশাপাশি প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে পুলিশের  ষ্ট্রাইকিং ফোর্স  ও ভ্রাম্রমান হিসেবে পুলিশের আরো ৪ টি ষ্ট্রাইকিং ফোর্স থাকবে। নির্বাচনে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন ৪ জন। তারা হচ্ছেন মিন্টু রঞ্জন সাহা,মো: সফিকুল ইসলাম,মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান ও শাহিন আহম্মেদ। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের দু-প্রতিদ্বন্ধি হচ্ছেন সনি আক্তার ও জলি আক্তার। 
মিন্টুর চালাকি: পুরো নাম মিন্টু রঞ্জন সাহা। আওয়ামীলীগের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। ভোট পাওয়ার কৌশল হিসেবে মিন্টু নিজের নাম কাটছাট করেছেন পোষ্টারে। তাতে পুরো নাম না লিখে ‘মিন্টু ভাই’ হিসেবে নিজের নাম ছাপিয়েছেন।