মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কসবায় মুক্তিযোদ্ধার বিধবা স্ত্রীর সম্মানী ভাতা আত্মসাৎ

kosবার্তা কক্ষঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলা কুটি ইউপির বিঞ্চুপুর গ্রামের মৃতঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম নবীর বিধবা স্ত্রী মরিয়ম বেগমের সম্মানী ভাতা স্থানীয় সমাজসেবা অফিস আর সোনালী ব্যাংক সহযোগিতায় কুটি ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল কাইয়ুম জালিয়াতি করে আতœসাৎ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মরিয়ম বেগম  স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান গত ৯ জুন কুটি ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল কাইয়ুম এর বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক বরাবর জালিয়াতির মাধ্যমে সম্মানী ভাতা আতœসাৎ করার অভিযোগ করেন। কিন্ত  অভিযোগের ১৪ দিনেও  কোনো ব্যবস্থা নেননি।  কসবা সমাজসেবা বিভাগ থেকে উক্ত কমান্ডার আব্দুল কাইয়ুম সম্মানী ভাতার বহিটি নিয়ে  মরিয়মের স্বাক্ষর ছাড়াই   কসবা সোনালী ব্যাংক থেকে গত ০৯-০৪-২০১৪ইং-১৮ হাজার ও ২৭-০৪-২০১৪ইং ১৮ হাজার মোট ৩৬হাজার সম্মানী ভাতার উওলোন করে আতœসাৎ করে বলে তিনি অভিযোগ করেন।
উল্লেখ্য,  কুটি ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল কাইয়ুম এর বিরুদ্ধে অর্থ কেলেংকারির বিষয়ে এর পূর্বে কসবা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে গত ৩০-০৩-২০১১ইং মুক্তিযোদ্ধা আঃ রৌফ গ্রাম-গঙ্গানগর,কুটি এবং গত-১০-০৯-২০১১ইং উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড এর নিকট আব্দুর রশিদ হাজী গ্রাম-মাইজখার,  লিখিত অভিযোগ করেন।  আতœসাৎ করার বিষয়টি এলাকায় জানাজানির পর গত ০৬/০৬/২০১৪ইং মরিয়ম বেগমকে ১১হাজার টাকা দিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষর এবং সম্মানী ভাতার বইটি তার কাছে রেখে যেতে বলে। মরিয়ম আব্দুল কাইয়ুমের কথামতে স্বাক্ষর ও বই না দেয়ায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে মরিয়মকে নানা ভাবে ধমকি দিচ্ছে এবং মরিয়মের স্বামীর নাম মুক্তিযোদ্ধা তালিকা থেকে বাদ দিবে বলে হুমকি দিচ্ছে । ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসকের কাছে মৃতঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম নবীর বিধবা স্ত্রী মরিয়ম বেগমের সম্মানী ভাতা জালিয়াতি করে আতœসাৎ করার অভিযোগ করে সুবিচার পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন।

সূত্রঃ news brahmanbaria