রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৈরি আবহাওয়ায় আশুগঞ্জের বন্ধ চার শতাধিক চাতাল

chatalবৈরি আবহাওয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে দেশের অন্যতম বৃহত্তম ধান-চালের মোকাম আশুগঞ্জের চার শতাধিক চাতাল। ৫/৬ দিন ধরে চাতালগুলো বন্ধ থাকায় নষ্ট হচ্ছে কয়েক কোটি টাকার ধান। চাতালমালিকরা পড়েছেন বিপাকে।চাতাল মালিকদের দাবি, প্রতিদিন বৃষ্টির কারণে প্রতিটি চাতালে প্রায় ৫০হাজার টাকার ক্ষতি হচ্ছে। আর এসব চাতালে কর্মরত প্রায় ২৫ হাজার শ্রমিক ৫/৬ দিন ধরে অর্ধাহারে অনাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

সরজমিনে আশুগঞ্জের বিভিন্ন চাতালে দেখা যায়, কয়েকদিনের বৈরি আবহাওয়া এবং টানা বর্ষণে রোদ্র না উঠায় চাতাল ছড়িয়ে রাখা হয়েছে নষ্ট হয়ে যাওয়া কয়েকশ মণ ধান। সিদ্ধ করা ধান খোলা মাঠে টুপরি দিয়ে ঢেকে রাখতে হচ্ছে। এতে অধিকাংশ চাতালের ভিজা ধানে চারা জেগে উঠেছে। ধান শুকাতে না পারায় চাতালে ধান মাড়াই করে চাল উৎপাদনও বন্ধ রয়েছে। ফলে বাজারে চালের সরবরাহও কমে গেছে। এদিকে নষ্ট হয়ে যাওয়া অধিকাংশ ধানেই দুর্গন্ধ বের হচ্ছে।চাতালমালিক হেবজু মিয়া জানান, কয়েকদিনের বিরামহীন বৃষ্টিতে তার প্রায় ১০০০ মণ সিদ্ব ধান নষ্ট হয়েছে। এ ক্ষতি কিভাবে পূরন করবেন, তা নিয়ে চিন্তিত তিনি।

আবেদ ভূঁঞা অটো রাইস মিলের ম্যানেজার রুহুল আমিন জানান, ২টি মাঠের প্রায় ৯০০ মণ ধান নষ্ট হয়ে গেছে। এসব ধান থেকে যে চাল হবে তাতে দুর্গন্ধ থেকে যাবে। তাই এসব চাল বিক্রি করতে হবে অর্ধেক দামে। এতে প্রতিদিন ৪০/৫০ হাজার টাকার ক্ষতি হচ্ছে।

আশুগঞ্জ চাতালকলে কর্মরত শ্রমিকরা জানান, বৃষ্টির কারণে ধান শুকানো না যাওয়া তাদের কাজ বন্ধ রয়েছে। গত তিন দিন ধরে বেকার বসে থেকে তাদের অপূরনীয় ক্ষতি হচ্ছে।

চাতাল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন জানান, গত কয়েকদিনের ভারি বর্ষণে উপজেলার চাতালগুলোর সিদ্ধ করা ধান শুকানো না যাওয়ায় প্রায় ৯ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। বৃষ্টি না থামলে ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়বে। কাজ না থাকায় চাতালশ্রমিকরাও অনেক কষ্ট করছে।