রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের স্বাক্ষরে হিসাব পরিচালনা বন্ধ রাখতে তিনটি ব্যাংকে ইউএনও’র চিঠি

brhs॥বার্তা কক্ষ॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬০ বছর উত্তীর্ণ প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল কাশেম এর স্বাক্ষরে এমপিওতে বেতন ভাতা প্রদান না করা এবং স্বাভাবিক ব্যাংক হিসেব পরিচালনা না করার জন্য তিন ব্যাংককে চিঠি দিয়েছেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ড. আশরাফুল আলম। গত ৯ ও ১০ জুলাই যথাক্রমে জনতা ব্যাংক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রধান শাখা এবং রূপালী ব্যাংক লিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখা এবং ওয়ান ব্যাংক লিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখাকে পৃথক স্মারকে এ চিঠি দেয়া হয়। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ১০-০৮-২০০৬ তারিখের পরিপত্রের নির্দেশনানুযায়ী এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বোর্ড, কুমিল্লা এর স্মারক নং- স্বীকৃতি/০৩/ বিবি/ ১১৫ (২), তাং- ০৩-৩-২০১৪ মোতাবেক প্রধান শিক্ষকের চাকরীর বয়স ৬০ (ষাট) বছর পূর্ণ হওয়ায় তাকে অব্যাহতি প্রদানপূর্বক সহকারী প্রধান শিক্ষকের নিকট দায়িত্ব হস্তান্তর করে ৭ দিনের মধ্যে বোর্ডকে অবহিত করার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। এ প্রেক্ষিতে প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল কাশেম বিষয়টি পুর্নবিবেচনার জন্য আবেদন করলে কুমিল্লা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান দ্বিতীয় বার স্বীকৃতি/০৩/ বিবি/ ২২৮ (২), তাং- ২৭-৪-২০১৪ স্মারকে আবেদনটি সংশ্লিষ্ট বিধিবিধানের পরিপন্থী হওয়ায় বিবেচনা না করে স্বীকৃতি/ ০৩/ বিবি/১১৫, তারিখ ০৩-৩- ২০১৪ মোতাবেক প্রধান শিক্ষককে অব্যাহতি প্রদান পূর্বক সহকারী প্রধান শিক্ষকের নিকট দায়িত্ব হস্তান্তর করে বোর্ডকে অবহিত করার জন্য বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতিকে নির্দেশ প্রদান করেন। উল্লেখ্য যে, বর্তমানে উক্ত প্রধান শিক্ষকের বয়স ৬০ বছর উত্তীর্ণ হলেও ২ বছর করে ২ বার বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের মাধ্যমে বিধি লংঘন করে দায়িত্ব বর্ধিত করেছেন যা সরকারি আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এমতাবস্থায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল কাশেম বিধিবর্হিভূত, মনগড়া, বিধি ও পরিপত্র পরিপন্থীভাবে দায়িত্ব পালন বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এমপিও (গচঙ) তে তার স্বাক্ষরে শিক্ষকদের বেতন ভাতা প্রদান না করার জন্য জনতা ব্যাংক ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রধান শাখাকে অনুরোধ জানান। অপর চিঠিতে রূপালী ব্যাংক এবং ওয়ান ব্যাংক ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখার ব্যবস্থাপকদ্বয়কেও বিদ্যালয়ের ব্যাংক হিসাব পরিচালনা না করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়। সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক বিভিন্ন ব্যাংকে প্রেরিত চিঠির অনুলিপি জেলা প্রশাসক, জেলা শিক্ষা অফিসার ও সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে দেয়া হয়েছে।