মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মানবতাবিরোধী অপরাধের আসামি রাজশাহী থেকে গ্রেপ্তার

rajআন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি খান আকরাম হোসেনকে (৬০) রাজশাহী থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।বৃহস্পতিবার রাত একটার দিকে মহানগরীর শাহ মখদুম থানার ভুগরইল এলাকার একটি বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।গ্রেপ্তারকৃত আকরাম হোসেনের বাড়ি বাগেরহাট জেলার মেড়েল গঞ্জ থানার দৈঙ্গাহাটি গ্রামে।
মেড়েলগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সঞ্জিব ঘোষ জানান, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ থেকে ১০ জুন খান আকরাম হোসেনের নামে ওয়ারেন্ট বের হয়। সেই কাগজ থানা এসে পৌঁছালে তাকে ধরার জন্য খোঁজ শুরু হয়। সেখান থেকেই জানা যায় যে খান আকরাম হোসেন রাজশাহীতে অবস্থান করছেন।
রাজপাড়া থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার আনোয়ার সাঈদ জানান,  ১৯৭১ সালে বাগেরহাট জেলার শাখারি কাঠি গ্রামে গণহত্যা সংঘঠিত হয়। ওই গণহত্যার সঙ্গে খান আকরাম হোসেন জড়িত ছিল বলে অভিযোগ আছে। ২০০৯ সালে শাখারি কাঠি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা নিমাই দাস ১৯ জনকে আসামি করে বাগেরহাটে একটি মামলা দায়ের করেন।
১৯৭১ সালের মানবতাবিরোধী মামলা হওয়ার কারণে পরে ওই মামলা আন্তর্জাতিক আপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১  স্থানান্তর করা হয়। সেখান থেকে তাদের নামে ওয়ারেন্ট বের হয়।
সহকারী পুলিশ কমিশনার আনোয়ার সাঈদ আরো জানান, বাগেরহাট থানা পুলিশের দেয়া তথ্য মতে, রাজপাড়া থানা পুলিশ ও মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা বৃহস্পতিবার সকালে প্রথমে নগরীর ডিঙ্গাডোবা এলাকার খান আকরাম হোসেনের ভগ্নিপতি আবুল কালাম আজাদের বাড়িতে অভিযান চালায়। সেখানে তাকে পাওয়া যায় না। পরে আবুল কালাম আজাদকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায় যে খান আকরাম হোসেন শাহ মখদুম থানা এলাকার ভুগরইলে শামীম নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে অবস্থান করছেন। শামীম সম্পর্কে আবুল কালাম আজাদের বেয়াই হন। পরে রাজপাড়া থানা পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের সঙ্গে অভিযানে যোগ দেয় শাহ মখদুম ও বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশের সদস্যরা।
রাত একটার দিকে ভুগরইল এলাকায় পাঁচটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে খান আকরাম হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়।তাকে শুক্রবার ভোরে ঢাকা পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে বলে রাজপাড়া থানা পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) আনোয়ার সাঈদ জানান।
 

এ জাতীয় আরও খবর