রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে কিশোর ইউসুফ

Crimeআমিরজাদা চৌধুরী: আপন চাচী আর তার ভাইদের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ইউসুফ নামের এক কিশোর। চাচা আর চাচাতো ভাইয়েরাও জোট বেধে মারধোর করে তাকে। অসহায় ও দরিদ্র ইউসুফের চিকিৎসা চলছে এলাকার লোকজনের সহায়তায়। এ ঘটনায় ইউসুফের দাদী মোছাম্মৎ জোবেদা খাতুন বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি মামলা করেছেন। এতে ছেলের বউ-এর দুই ভাই নরসিংসার গ্রামের জীবন মিয়া(৩০) ও সেলিম মিয়া(২৬), ছেলে ফিরোজ মিয়া(৪৫),দুই নাতি ইয়াছিন মিয়া(২২) ও মনির মিয়া(২০) এবং ছেলের বউ আনোয়ারা বেগম (৪২) কে আসামী করা হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাটাই দক্ষিন ইউনিয়নের পয়াগ গ্রামে গত ২৯ শে মে এই ঘটনাটি ঘটে। ইউসুফ গ্রামের মৃত কুদ্দস মিয়ার ছেলে। প্রায় আড়াই বছর আগে তার বাবা মারা যান। কুদ্দুস মিয়া মারা যাওয়ার পর থেকেই তার স্ত্রী ৫ ছেলে-মেয়ে নিয়ে অভাব-অনটনে দিনাতিপাত করছে। মামলার এজাহারে অভিযোগ করা হয়,গত ২৯ শে মে সকালে চাচী আনোয়ারা বেগম অহেতুক ইউসুফকে চর-থাপ্পর মারে। ইউসুফের মা কমলা বেগম এর প্রতিবাদ করলে তাকেও প্রানে মারার চেষ্টা করা হয়। পরে সে নিজের ঘরে ডুকে জীবনরক্ষা করে। এঘটনার পরই আনোয়ারা পাশের গ্রাম থেকে তার দুই ভাই জীবন মিয়া ও সেলিম মিয়াকে খবর দিয়ে তার বাড়িতে আনে । এরপর জীবন মিয়ার নেতৃত্বে আনোয়ারা,তার স্বামী,দুই সন্তান ও আরেক ভাই একত্রিত হয়ে কিশোর ইউসুফের ওপর হামলা চালায়। দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র দিয়ে আঘাত করে শরীরের বিভিন্নস্থানে জখম করে। তাকে গলাটিপে হত্যারও চেষ্টা করা হয়। গুরুতর আহত ইউসুফকে ঐদিনই জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ৯ দিন থেকে চিকিৎসা নিয়ে ইউসুফ বাড়ি ফিরে যাওয়ার পর তার অবস্থার আবার অবনতি ঘটলে গত ৯ ই জুন তাকে এনে আবার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মামলার বাদী মোছাম্মৎ জোবেদা খাতুন জানান,তার নাতির অবস্থা এখন খুবই খারাপ। সে বাচে কিনা সেটাই সন্দেহ। কন্ঠনালিতে আঘাতের কারনে সে খেতে পারছেনা এবং রক্ত বমি করছে। এদিকে অসহায় ও দরিদ্র ইউসুফের চিকিৎসা চলছে এলাকার লোকজনের অর্থ সহায়তায়।