শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিদ্যালয়ের জমি দখলের চেষ্টা ১৪ আসামিকে জেলে পাঠালেন আদালত

jailআরাফাত আহমেদ: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বুধল ইউনিয়নের জংগলীসার গ্রামের একটি স্কুল ভাঙ্গচুর ও এর আসবাবপত্র লুট করে নেয়ার অভিযোগে দায়ের করার মামলার ১৪ আসামীকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত। গত সোমবার  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট এর আদালতে মামলার ৩৫ আসামী হাজির হয়ে জামিনের প্রার্থনা করে। আদালত তাদের মধ্যে ১৪ জনের জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। এই আসামীরা হচ্ছে জালাল মিয়া,মমিন মিয়া,আবুল খায়ের,গিয়াস উদ্দিন,মন মিয়া,মোশারফ,আসাদ,রাশেদ মিয়া,রহিছ মিয়া,মনির মিয়া,জামাল,ধনমিয়া,বাছির মিয়া ও জলিল মিয়া। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার জংগলীসার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙ্গুচুর ও এর আসবাবপত্র লটুটপাট করে নেয়ার অভিযোগে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো: জাহের মিয়া গত ১১ ই জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি মামলা করেন। এই মামলার আসামীরা সোমবার আদালতে হাজির হলে তাদের মধ্যে ১৪ জনের জামিন না মঞ্জুর জেল হাজতে পাঠানো হয়। জাহের মিয়া তার এজাহারে অভিযোগ করেন,বিদ্যালয়টি উচ্ছেদে আসামীরা দীর্ঘদিন ধরেই তৎপর। এরই অংশ হিসেবে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সম্প্রতি দেওয়ানী আদালতে একটি মামলা করে এই আসামীরা। যাতে বিদ্যালয়ের জায়গাটিকে ডোবা উল্লেখ করে বলা হয় এই ডোবার পানি দিয়ে সেচকার্য ও চাষাবাদ চালানো হয়। এই মামলার প্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশ মতে একজন  এডভোকেট কমিশনার গত ১০ ই জুন জায়গার বাস্তব অবস্থা পরিদর্শন করতে আসেন। তার পরিদর্শনের পরপর জংগলীসার গ্রামের মৃত সুলতান মিয়ার ছেলে জালাল মিয়া দলবল নিয়ে সেখানে এসে ‘বিদ্যালয়টি ভাঙ্গিয়া গুড়া করিয়া ফেল ও সব মালামাল লুট করিয়া নিয়া যা’ বলে হুকুম দেয়। এরপরই তার সঙ্গে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আসা লোকজন বিদ্যালয়ের বেড়া,দরজা-জানালা,আসবাবপত্র নিয়ে যায়।  

 

এ জাতীয় আরও খবর