শনিবার, ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খাদ্যশস্য পরিবহনের জন্য আবার ভারতকে ‘সাময়িক’ ট্রানজিট

asugong tangitআশুগঞ্জ বন্দর ব্যবহার করে সড়কপথে ভারতকে আবার ট্রানজিট দিচ্ছে সরকার। এ জন্য সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে অনুমোদনও দেয়া হয়েছে। তবে এই ট্রানজিট-সুবিধা ‘সাময়িক’ এবং শুধু খাদ্যশস্য পরিবহনের জন্য সীমাবদ্ধ।ইতিমধ্যে ফুড করপোরেশন অব ইন্ডিয়া (এফসিআই) আশুগঞ্জ

নদীবন্দর ও ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর সংযোগকারী সড়কপথ ব্যবহার করে ত্রিপুরায় খাদ্যশস্য পরিবহণের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন ত্রিপুরা রাজ্যের সংশ্লিষ্ট সচিব।শুক্রবার ভারতের আগরতলার দৈনিক ‘প্রতিবাদী কলম’-এর এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

এর আগে ত্রিপুরার পালাটানা বিদ্যুৎ প্রকল্পের মালামাল ও খাদ্যশস্য পরিবহণের জন্য ত্রিপুরা রাজ্যকে আশুগঞ্জ বন্দর ব্যবহার করে সড়কপথে ট্রানজিট-সুবিধা দিয়েছিল সরকার। সে সময় বলা হয়েছিল, মানবিক কারণে ত্রিপুরাকে এই সুবিধা দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার আগরতলার দৈনিক ‘প্রতিবাদী কলম’-এর ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ত্রিপুরা রাজ্যের রেলপথের মেগাব্লকের পরিপ্রেক্ষিতে তারা খাদ্যশস্য পরিবহণে আশুগঞ্জ বন্দর ব্যবহার করে সড়কপথে ট্রানজিটের জন্য বাংলাদেশের সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে আসছিল। শেখ হাসিনা সরকারের শীর্ষপর্যায় থেকে এ বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব দেখানো হয়েছে।

পত্রিকাটিকে ত্রিপুরা রাজ্যের খাদ্য, বেসামরিক সরবরাহ ও ভোক্তাবিষয়ক মুখ্য সচিব বি কে রায় বলেন, ১০ হাজার টন খাদ্যশস্য পরিবহণের জন্য ইতিমধ্যে বাংলাদেশ সরকার আশুগঞ্জ বন্দর ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে।

সচিব বি কে রায় পত্রিকাটিকে বলেছেন, বাংলাদেশ সরকারের গ্রিন সিগন্যাল পেয়ে ফুড করপোরেশন অব ইন্ডিয়া (এফসিআই) বাংলাদেশের আশুগঞ্জ

নদীবন্দর ও ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর সংযোগকারী সড়কপথ ব্যবহার করে ত্রিপুরায় ওই খাদ্যশস্য পরিবহণের প্রক্রিয়া শুরু করেছে।পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতকে খাদ্যশস্য পরিবহণে ট্রানজিট দেয়ার বিষয়টি তাদের নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশের নৌপরিবহনমন্ত্রী মো. শাজাহান খান। তিনি বলেছেন, ভারতকে ট্রানজিট দেয়ার বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ ট্রানজিট শুধু খাদ্যশস্য পরিবহণের জন্য সীমাবদ্ধ থাকবে।আর যোগাযোগসচিব এম এ এন সিদ্দিক বলেছেন, নৌ মন্ত্রণালয় ট্রানজিট দিলে আশুগঞ্জ থেকে সড়কপথে ট্রানজিটের বিষয়টিও আটকে থাকবে না। তিনি জানান, পালাটানা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের সময় সাময়িকভাবে এ পথে ভারতকে ট্রানজিট দেয়া হয়েছিল।

 দৈনিক ‘প্রতিবাদী কলম’-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের কাকিনাদা বন্দর থেকে ছোট জাহাজে করে খাদ্যশস্য আনা হবে আশুগঞ্জে। এরপর তা সড়কপথে বাংলাদেশী ট্রাকে করে ৩১ কিলোমিটার দূরে ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলায়  নেয়া হবে।ফুড করপোরেশন অব ইন্ডিয়ার এক কর্মকর্তা ওই পত্রিকাটিকে বলেন, ত্রিপুরার পর উত্তর-পূর্ব ভারতের অন্যান্য রাজ্যেও খাদ্যশস্য পরিবহন করা হবে বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে। যেমন মিজোরাম, মনিপুর ও আসামের দক্ষিণাঞ্চল।এর আগে ২০১২ সালে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত তেল ও গ্যাস করপোরেশনকে (ওএনজিসি) দক্ষিণ ত্রিপুরায় ৭২৬ মেগাওয়াটের পালাটানা বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য আশুগঞ্জের বন্দর ব্যবহার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মধ্য দিয়ে ভারী যন্ত্রপাতি, টারবাইন ও কার্গো পরিবহন করতে দিয়েছিল।