মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্বকাপের আনন্দ উচ্ছ্বাস

football2আল আমীন শাহীন ॥ বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে আনন্দ এখন সর্বত্র। ব্রাজিলে এ বিশ্বকাপের খেলা হলেও এর আনন্দ জোয়ার ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বে। গোল বলের প্রধান আসরকে কেন্দ্র করে গোলাকার পৃথিবী সেজে উঠেছে নতুন ভাবে। গোল বলের ঢোল বাজছে সারাবিশ্বে। ছোট শিশু থেকে শুরু করে নানা বয়সী নারী পুরুষ ফুটবলের আনন্দে এখন মাতোয়ারা। সারা বিশ্বেই শহর বন্দর গ্রাম মহল্লা এমন কোন স্থান নেই যেখানে পৌছেনি ফুটবল আনন্দের রেশ। ঘরে বাইরে সর্বত্রই আলোচনা এখন বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে।

বিশ্বকাপের আনন্দ উচ্ছ্বাসে পিছিয়ে নেই ব্রাহ্মণবাড়িয়া। শহর গ্রাম সবখানেই ক্রীড়ামোদী দর্শকরা উপভোগ করছে বিশ্বকাপের আনন্দ নানা মাধ্যমে। দিনে রাতে এখন ফুটবল নিয়ে মাতামাতি। প্রিয়দলের সমর্থন জানাতে ঘরের চালে, গাছের ডালে, দালানের ছাদে, যানবাহনে উড়ানো হয়েছে পতাকা। খেলা শুরুর বেশ কিছুদিন আগ থেকেই পতাকা কেনা , বানানো, উড়ানো এ নিয়ে ছিল ব্যতিব্যস্ততা। কে কত বড় , কত উচুতে , ব্যতিক্রমী স্টাইলে পতাকা উড়ানো পাড়ে এর প্রতিযোগিতা চলেছে। পোষাক পরিচ্ছদেও বিশ্বকাপের প্রতীক। প্রিয় দলের জার্সি পড়ে , ব্যানার স্টিকার, টেটু লাগিয়ে ক্রীড়ামোদীদের বিচরণ দেখা যায় পথে প্রান্তরে।  খেলা দেখা নিয়ে অনেকেই কিনেছেন নতুন টিভি, ডিশ সংযোগ লাগিয়েছেন অনেক নতুন গ্রাহক। প্রজেক্টরের মাধ্যমে বড় পর্দায় শত শত মানুষ জড়ো হয়ে খেলা দেখার ব্যবস্থা হয়েছে বিভিন্ন স্থানে।  বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনে খেলা দেখার প্রস্ততি নিয়ে ছিল ক্রীড়ারসিকদের ব্যস্ততা, পতাকা নিয়ে কোথাও কোথাও হয়েছে আনন্দ মিছিল। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ছিল আনন্দ উচ্ছাসে এক মুখরিত রাত। খেলা শুরুর পর খেলোয়ারদের আক্রমণ মূহুর্তে সমর্থন ধ্বনী, গোল গোল চিৎকার রাতের নিরবতাকে ভেঙ্গে দিয়েছে। বিনিদ্র রাতে কেউ পারিবারিক পরিবেশে, কেউ বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে আড্ডা জমিয়ে, পথে মাঠে জড়ো হয়ে উপভোগ করেছে বিশ্বকাপ শুরুর আনন্দঘন মূহুর্ত। দূরত্বহীন, সীমাহীন এক পৃথিবী যেন মুখরিত হয়েছে নানা জাতি ধর্ম বর্ণ , শ্রেনী পেশার মানুষের আনন্দে উচ্ছাসে।