শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পাঁচ লাশসহ ৩০৬ জীবিত যাত্রী উদ্ধার

sent martinসাগর পথে অবৈধভাবে মালোয়েশিয়াগামী একটি ট্রলার বোঝাই ৩০৬ জন যাত্রীকে জীবিত এবং আরো ৫ জনের লাশসহ একটি ট্রলার আজ বুধবার বিকালে কোস্টগার্ড সদস্যরা সাগরে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করেছে। যাত্রী বোঝাই ট্রলারটি সাগর থেকে টেনে সেন্টমার্টিন্স দ্বীপে আনার পর পুলিশ সেখান থেকে ৫ জন যাত্রীর লাশ এবং জীবিত যাত্রীদের নিজেদের হেফাজতে নেয়। ট্রলারের জীবিত যাত্রীদের মধ্যে ২৩ জন গুলিবদ্ধি রয়েছে। মালোয়েশিয়ায় এসব লোকজনদের পাচার কাজে নিয়োজিত মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের দালাল চক্রের গুলিতে গভীর সাগরে ট্রলারটিতে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ট্রলারে গুলিবিদ্ধ যাত্রীদের সন্ধ্যার পর সেন্টমার্টিন্স দ্বীপ থেকে টেকনাফে চিকিত্সার জন্য পাঠানো হয়েছে।
টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তার হোসেন জানান, মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের সংঘবদ্ধ একটি চক্র বড় আকারের ট্রলারে করে বহু সংখ্যক যাত্রী নিয়ে যাবার জন্য মিয়ানমার-বাংলাদেশ জলসীমানায় থাইল্যান্ডের একটি বড় যাত্রী বোঝাই ট্রলার নোঙ্গর করে রাখে। ওই ট্রলারে বাংলাদেশ থেকে ১৫/২০ জন করে ছোট আকারের নৌকায় করে যাত্রীদের তোলা হয়। এভাবে ১৪/১৫ দিন ধরে ট্রলারটি সাগরের মাঝখানে নোঙ্গর দিয়ে রেখে যাত্রী বোঝাইয়ের কাজ চলছিল। যাত্রী যখন দিন দিন বেশী হয়ে যাচ্ছে তখন তারা ট্রলার ছেড়ে দেওয়ার তাগিদ দিতে থাকে।  
কিন্তু দালালরা আরো যাত্রী বোঝাই করতে চায়-এই বিষয় নিয়েই ট্রলারের উত্তেজিত যাত্রীদের সাথে দালালদের ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে দালালরা ট্রলারের যাত্রীদের শায়েস্তার জন্য সিদ্ধান্ত নেয়। এ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দালালরা মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের অত্যাধুনিক নৌযানে করে সশস্ত্র লোকজনদের এনে ট্রলারের যাত্রীদের উপর লেলিয়ে দেয়। দালালদের সশস্ত্র লোকজন নিরীহ যাত্রী বোঝাই মালোয়েশিয়াগামী ট্রলারে এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ করে। এতে ৫ জন নিহত এবং গুলিবিদ্ধ হয় আরো ২৩ জন। হামলার সময় ট্রলারটির চালকসহ আরো ২ জন সাগরে ঝাঁপ দেয়। তারা দু'জনই থাইল্যান্ডের নাগরিক বলে জানা যায়।
এর আগে আজ সকালে গভীর সাগরে ট্রলারে এ হামলার ঘটনার পর ট্রলারের মালোয়েশিয়াগামী মিঠুন নামের একজন যাত্রী (নরসিংদীর বীরপুরের বাসিন্দা) সংবাদকর্মীদের মোবাইলে জানান। এর পরই টেকনাফ এবং সেন্টমার্টিন্স দ্বীপের কোস্টগার্ড সদস্যরা সাগরে ভাসমান ট্রলারটি উদ্ধারে কার্যক্রম শুরু করেন।
সেন্টমার্টিন্স দ্বীপের পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ পরিদর্শক আবদুল হক জানান, ভাসমান যাত্রীবাহী ট্রলারটি সাগর থেকে টেনে আনার জন্য সেন্টমার্টিন্স দ্বীপ থেকে ৫ টি ট্রলার পাঠানো হয়। এসব ট্রলারগুলো রশি বেঁধে এক সাথে টেনেই ৩১১ জন যাত্রী বোঝাই থাইল্যান্ডের ট্রলারটি নিয়ে আসে সেন্টমার্টিন্স দ্বীপে।  
টেকনাফ থানার ওসি আরো জানান, মালোয়েশিয়াগামী ট্রলারটিতে উদ্ধার প্রাপ্ত যাত্রীদের বেশীর ভাগই নরসিংদী, বগুড়া, যশোর, ঝিনাইদহ ও কুষ্টিয়া এলাকার বাসিন্দা। এসব লোকজনদের মালয়েশিয়ায় পাঠানোর জন্য এ দেশীয় যেসব দালাল নেপথ্যে কাজ করেছে তাদের খুঁজে বের করা হবে।

এ জাতীয় আরও খবর