বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ধৈর্যশীলদের সঙ্গে আল্লাহ থাকেন

allah।।মোঃ রাসেল মিয়া।। ধৈর্যশীলতা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যা ইহকাল ও পরকালের সফলতা অর্জনে বিরাট ভূমিকা পালন করে। আল্লাহর প্রিয় বান্দার জন্য এটি একটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য। আল্লাহর প্রেরিত নবী-রসুলরা ধৈর্যশীল ছিলেন। যার কারণে তারা সফল হয়েছেন। মহান আল্লাহ বলেন, 'তোমাদের আগেও অনেক রসুলকে অবশ্যই মিথ্যাবাদী বলা হয়েছিল, কিন্তু তাদের মিথ্যাবাদী বলা ও ক্লেশ দেওয়া সত্ত্বেও তারা ধৈর্যধারণ করেছিল, যে পর্যন্ত আমার সাহায্য তাদের কাছে এসেছে। আল্লাহর আদেশ কেউ পরিবর্তন করতে পারে না। রসুলদের সম্বন্ধে কিছু সংবাদ তো তোমার কাছে এসেছে।' (সূরা আনয়াম-৩৪)। হজরত লোকমান (আ.) সৎকর্মে আদেশ ও অসৎ কর্মে নিষেধের ক্ষেত্রে ধৈর্যশীল ছিলেন। কেননা, এই দায়িত্ব পালন করতে অনেক কঠিন বাধার সম্মুখীন হতে হয় এবং লোকদের দ্বারা অপমানিত হতে হয়। লোকমান (আ.) শুধু নিজেই ধৈর্যশীল ছিলেন তা নয়, তিনি তার ছেলেকেও ধৈর্যশীল হওয়ার জন্য বলেছেন। যা পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, 'এবং তোমার ওপর যে বিপদ আসে তাতে ধৈর্যধারণ কর। নিশ্চয়ই এ হলো দৃঢ় সংকল্পের কাজ।' (সূরা লোকমান-১৭)। ধৈর্য তিন ভাগে বিভক্ত। প্রথমত, আল্লাহর আনুগত্যের মাধ্যমে ধৈর্যশীল হয়ে তার আদেশ মান্য করা, দ্বিতীয়ত, আল্লাহর নিষেধকৃত কাজ থেকে বিরত থাকার সময় ধৈর্যশীল হওয়া, তৃতীয়ত, বিপদ-আপদ বা অন্যান্য পরীক্ষার সময় ধৈর্যশীল হওয়া। আল্লাহর আদেশ পালনে ধৈর্যশীল হওয়ার ব্যাপারে মহান আল্লাহ বলেন, 'তিনি আকাশমণ্ডলী, পৃথিবী ও তাদের অন্তর্বর্তী যা কিছু আছে তার প্রতিপালক। সুতরাং তারই ইবাদত কর এবং তার ইবাদতে ধৈর্যশীল থাক। তুমি কি তার সমগুণসম্পন্ন কাউকেও জান? (সূরা মারইয়াম-৬৫)। অন্য আয়াতে আরও বলেন, যারা তাদের প্রতিপালকের সন্তুষ্টি লাভের জন্য ধৈর্য ধারণ করে, সালাত কায়েম করে আমি তাদের যে জীবনোপকরণ দিয়েছি তা হতে গোপনে ও প্রকাশ্যে ব্যয় করে এবং যারা ভালো দ্বারা মন্দ দূরীভূত করে, এদের জন্য শুভ পরিণাম। (সূরা আর রাদ-২২)। মহান আল্লাহতায়ালা আমাদের প্রত্যেককে ধৈর্যশীল হওয়ার তৌফিক দিন।