রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘ফুটবলের জন্ম ইংল্যান্ডে ঘর ব্রাজিলে’

বিশ্বকাপের বাঁশি যেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালার হাতে। বাঁশির সুরে সুরে তাঁর পিছু পিছু ছুটছে সারা দুনিয়া। গন্তব্য একটাই—ব্রাজিল। সারা দুনিয়া যখন বিশ্বকাপের বাঁশির সুরে নেচে উঠছে, তখনই আয়োজক দেশ ব্রাজিলের নাগরিকেরা কী ভাবছেন ফুটবল বিশ্বকাপ নিয়ে? ৬৪ বছর পর আবারও বিশ্বকাপের আয়োজনকে অনেক ব্রাজিলীয়ই নাকি দেখছেন ‘বিশ্বকাপের ঘরে ফেরা’ হিসেবে!

এই ভাবনাই ফুটে উঠেছে দেশটির প্রেসিডেন্ট দিলমা রৌসেফের কথাতেও। তিনি বলছেন, ‘ফুটবলের জন্ম ইংল্যান্ডে এটা সত্য, কিন্তু আমরা ব্রাজিলীয়রা ভাবতে পছন্দ করি যে, সে ব্রাজিলেই ঘর বেঁধেছে।’ বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৪ ঘিরে রোববার আয়োজক দেশটির প্রেসিডেন্টের একটি লেখা প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যের দ্য গার্ডিয়ান। প্রথম আলোর পাঠকদের জন্য এর ভাষান্তর প্রকাশ করা হলো—বৃহস্পতিবার থেকে শুরু—সারা দুনিয়ার চোখ তাকিয়ে থাকবে, অন্তর পড়ে থাকবে ব্রাজিলে। ফুটবলে সেরাদের প্রতিনিধিত্বকারী ৩২টি জাতীয় দল নামবে বিশ্বকাপের লড়াইয়ে। এই সেই আসর, যা প্রতি চার বছর পর আমাদের সবার ভেতরের ফুটবলপ্রেমীটাকে জাগিয়ে তোলে। এটাই ফুটবলের সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক উত্সব। কিন্তু একই সঙ্গে এটা আমাদের জন্য ফুটবলকে উদযাপনেরও সময়, ফুটবলকে ধন্যবাদ পরিচ্ছন্ন খেলার আর সব মানুষের একত্রে মিলেমিশে শান্তিময় সহাবস্থানের মূল্যবোধের জন্য। এটা পিয়েরে ডি ক্যুবারতির (আধুনিক অলিম্পিক গেমসের প্রতিষ্ঠাতা) মানবিক মূল্যবোধ ফিরিয়ে আনার, শান্তির মূল্যবোধ, ঐকতান ও সহনশীলতার মূল্যবোধ ফিরিয়ে আনারও একটা সুযোগ। ভালোবেসে আমরা যেমন একে ‘সব কাপের কাপ’ বলে ডাকি, তেমনি এটা বর্ণবাদের বিরুদ্ধে শান্তির কাপ, সব ধরনের বৈষম্যের বিরুদ্ধে সবাইকে গ্রহণের কাপ, সহনশীলতা, সংলাপ, পারস্পরিক বোঝাপড়া এবং এগিয়ে যাওয়ারও কাপ।বিশ্বকাপের আয়োজন করতে পারাটা ব্রাজিলীয়দের জন্য গর্বের। মাঠে এবং মাঠের বাইরেও আমরা ঐক্যবদ্ধ, নিবেদিত এক অসাধারণ প্রদর্শনীর জন্য। এক মাসের জন্য আমাদের দেশে আসা দর্শনার্থীরা দেখতে পাবেন যে, ব্রাজিল একটা পরিণত, বিকাশমান গণতান্ত্রিক দেশ। গত ১২ বছর ধরে আমরা আয় বণ্টন, কর্মসংস্থানের মাত্রা এবং সামাজিক অংশীদারত্ব বাড়ানোর ক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে সফল প্রকল্পগুলোর একটিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। আমরা ব্যাপক হারে বৈষম্য কমিয়েছি, এক দশকে আমরা চার কোটি ২০ লাখ মানুষকে মধ্যবিত্তের স্তরে এবং তিন কোটি ৬০ লাখ মানুষকে চরম দারিদ্র্যের মাত্রা থেকে উঠিয়ে এনেছি।



কয়েক দশক আগে স্বৈরতন্ত্রের অধীনে থাকলেও আমরা এখন প্রাণবন্ত গণতান্ত্রিক অবস্থায় আছি। আমরা পুরোপুরিই স্বাধীনতা উপভোগ করছি এবং বিভিন্ন জনপ্রিয় দাবিদাওয়া, প্রতিবাদ-বিক্ষোভের সঙ্গে মিলেমিশেই অবস্থান করছি। এটাই গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নতি এবং সেগুলোকে যথাযথ করে গড়ে তুলতে আমাদের সাহায্য করছে।



বিশ্বকাপের ১২টি স্বাগতিক শহরেই দর্শনার্থীরা খুব কাছ থেকে আমাদের সাংস্কৃতিক ও ভৌগোলিক বৈচিত্র্য দেখতে পারবেন। আমাদের দেশ গানের, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের, সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের, জাতিগত ও ধর্মীয় সৌহার্দ্যের এবং পরিবেশ-প্রতিবেশের প্রতি শ্রদ্ধাশীলতার।



এটা সত্য যে, ফুটবলের জন্ম হয়েছে ইংল্যান্ডে, কিন্তু আমরা ব্রাজিলীয়রা ভাবতে পছন্দ করি যে, সে ঘর বেঁধেছে ব্রাজিলে। এখানেই পেলে, গারিঞ্চা এবং দিদির মতো সারা দুনিয়া মাতানো আরও অনেক ফুটবল মাস্টাররা জন্মেছেন। তাই যখন, ৬৪ বছর পর বিশ্বকাপ আবার ব্রাজিলে ফিরে আসে, তখনই আমাদের মনে হয় যে ফুটবল তার ঘরে ফিরছে।



পাঁচ-পাঁচবার বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরবময় ইতিহাস এবং প্রত্যেক ব্রাজিলীয় তাঁর নায়কদের প্রতি এবং আমাদের জাতীয় দলের প্রতি যে দরদ নিয়ে নিবেদিত থাকেন, সেসব মিলিয়েই আমরা ফুটবলের দেশ। ফুটবলের প্রতি জনগণের ভালোবাসা এখন আমাদের জাতীয় পরিচয়ের অংশ হয়ে গেছে। আমাদের কাছে, ফুটবল জীবনেরই উদযাপন।



২০ কোটি ১০ লাখ ব্রাজিলীয়র পক্ষ থেকে আমি যুক্তরাজ্য এবং সবখান থেকে ব্রাজিলে আসা সব দর্শনার্থীকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাচ্ছি আমাদের সঙ্গে মিলে এই ‘সব কাপের কাপ’ উপভোগের জন্য।